‘নিরাপত্তার নামে কণ্ঠরোধ কোনো সমাজের জন্যই ভালো না’

স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন মুভ ফাউন্ডেশনের কর্মশালা, ছবি: বার্তা২৪.কম

অপতথ্য ব্যবস্থাপনা বর্তমান বিশ্বে খুব গুরুত্বপূর্ণ এক বিষয় পরিণত হয়ে উঠেছে। বিষয়টি নতুন হলেও গুরুত্বপূর্ণ। আর ইন্টারনেটের কল্যাণে প্রচলিত মিডিয়ার বাইরে স্যোশাল মিডিয়া এখন মানুষের কাছে দ্রুত জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। তাই এর ব্যবস্থাপনাও গুরুত্বপূর্ণ।

বৃহস্পতিবার (১১ অক্টোবর) রাজধানীর একটি হোটেলে ‘মিস ইনফরমেশন ম্যানেজম্যান্ট: জাজিং ফ্যাক্ট ফ্রম ফিকশন’ শীর্ষক কর্মশালায় বক্তারা এ কথা বলেন।

স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন মুভ ফাউন্ডেশন এবং ঢাকাস্থ মার্কিন দূতাবাস যৌথভাবে এ কর্মশালার আয়োজন করে।

মুভ ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ড. মনজুর আহমেদ চৌধুরীর সঞ্চালনায় কর্মশালার উদ্বোধনী পর্বে বক্তব্য রাখেন দৈনিক ভোরের কাগজ সম্পাদক শ্যামল দত্ত এবং ডিইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ আনাম।

অতিথি বক্তা হিসেবে কর্মশালা পরিচালনা করেন এবং বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন ওয়াশিংটন ডিসির ‘নিউজিয়ামইডি’র ভাইস প্রেসিডেন্ট মিজ বারবারা ম্যাকরম্যাক।

সমাপনী পর্ব পরিচালনা করেন মার্কিন দূতাবাসের জনসংযোগ কর্মকর্তা নিকোলাস পপ।

কর্মশালায় সাংবাদিক, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, শিক্ষক, সাবেক সেনাপ্রধান ও সংখ্যালঘু এবং ধর্মীয় নেতৃবৃন্দসহ বিভিন্ন শ্রেণির মানুষ অংশগ্রহণ করেন।

মিজ বারবারা ম্যাকরম্যাক কর্মশালায় বলেন, নিরাপত্তার নামে কন্ঠরোধ কোনো সমাজের জন্য ভালো হয় না।

তিনি বলেন, বিশ্বের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারিত ৫৯ ভাগ সংবাদই মানুষ হেডিং দেখেই শেয়ার করে থাকে। ভেতরের বিষয়টা তারা পড়েন না। তাই সবাইকে এ বিষয়ে সতর্ক হতে হবে। কারণ একটি ভুল তথ্য বড় ধরনের সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে।

মাহফুজ আনাম তার বক্তব্যে বলেন, অবাধ স্বাধীনতা আমাদের মাঝে দায়িত্বহীনতা তৈরি করে। আর সামাজিক মাধ্যম আমাদের মাঝে অবাধ স্বাধীনতার সুযোগ তৈরি করেছে। অন্যদিকে পরাধীন মানুষ কিছুই করতে পারে না।

তিনি বলেন, আমরা দেখতে পাচ্ছি উম্মুক্ত পরিবেশে আমরা ভুল তথ্যই বেশি পাচ্ছি। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশের নির্বাচনের প্রেক্ষাপটে আমরা দেখতে পাই যে, রাষ্ট্রও বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ভুল তথ্য দ্বারা প্রভাবিত হচ্ছে।

ভোরের কাগজ সম্পাদক শ্যামল দত্ত বলেন, বাংলাদেশে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম একটি বড় চ্যালেঞ্জ। তাই আমাদের এ বিষয়ে সতর্ক হতে হবে।

জাতীয় এর আরও খবর