জোড়া খুন: আ’লীগ নেতাসহ ৫১জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ

ছবি: সংগৃহীত

পাবনা সদর উপজেলার ভাড়ারা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের দ্বন্দ্বে প্রতিপক্ষের হামলায় জোড়া খুনের ঘটনায় সদর থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে।

বুধবার (৫ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় এ অভিযোগ দায়ের করেন আওয়ামী লীগ নেতা নিহত লস্কর খানের ছেলে সুলতান মাহমুদ খান। এতে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু সাঈদ খানসহ ৫১ জনের নাম উল্লেখ করা হয়।

জানা যায়, গত সোমবার (৩ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় পাবনা সদর উপজেলার ভাড়ারায় আধিপত্য নিয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ খান ও জাসদ থেকে সদ্য যোগদানকারী আওয়ামী লীগ নেতা সুলতান মাহমুদ খানের সমর্থিত দু’গ্রুপের মধ্যে গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। এসময় সুলতানের বাবা মহসীন খান লস্কর (৬৮) ও প্রতিবেশী আব্দুল মালেক (৪০) গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হন। এ ঘটনায় গুলিবিদ্ধসহ কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়।

নিহত মহসীন খানের ছেলে সুলতান মাহমুদ খানের অভিযোগ, হামলাকারীরা তার বাবা ও প্রতিবেশীকে এলোপাথাড়ি পিটিয়ে ও গুলি করে হত্যা করে। এ সময় হামলাকারীরা আমাদের বাড়ির নগদ টাকা ও স্বর্ণালঙ্কারসহ প্রায় ৫ লাখ টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।

থানায় দায়ের করা অভিযোগে জানা যায়, এই জোড়া হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ভাড়ারা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও পাবনা সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ খান, আব্দুল কাদের মাস্টারসহ ৫১ জনের নামের অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে পাবনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওবাইদুল হক বলেন, ‘শুনেছি বাদী অভিযোগ নিয়ে থানায় আসবে। অভিযোগ পেলে পরবর্তী আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।’

জাতীয় এর আরও খবর

//election count down