সর্বনিম্ন তাপমাত্রায় কাঁপছে রাজশাহী

রাজশাহীতে মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ বইছে/ ছবি: বার্তা২৪.কম

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম

টানা তৃতীয় দিনের মতো দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা বিরাজ করছে রাজশাহীতে। শুক্রবার (২৮ ডিসেম্বর) তাপমাত্রা আরো এক দফা কমে ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমেছে। যা দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা বলে জানিয়েছে রাজশাহী আবহাওয়া অফিস।

আগের দিন বৃহস্পতিবার রাজশাহীতে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ৬ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। শীতের তীব্রতা বৃদ্ধির সাথে সাথে হিমেল বাতাসের মাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ায় ঠাণ্ডার প্রকোপ আরো বেড়েছে। এতে বিপাকে পড়েছেন ছিন্নমূল মানুষজন।

দিনের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা সাধারণত ৮ থেকে ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে থাকলে বলা হয় মৃদু শৈত্যপ্রবাহ। তাপমাত্রা ৬ থেকে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে থাকলে তাকে বলা হয় মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ। আর তাপমাত্রা ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে নেমে গেলে তাকে তীব্র শৈত্যপ্রবাহ বলা হয়।

রাজশাহী আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, উত্তরাঞ্চলের ওপর দিয়ে মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে।

কয়েকদিনের শীতে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে উত্তর জনপদের মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা। বিশেষ করে খেটে খাওয়া মানুষগুলো পড়েছেন বিপাকে।

আবহাওয়া অধিদফতরের পূর্বাভাস বলছে আরও দুই থেকে তিন দিন রাজশাহীসহ সারাদেশে রাতের তাপমাত্রা ১ থেকে ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত কমবে। ফলে নতুন করে উত্তর ও মধ্যাঞ্চলের আরও কিছু এলাকা শৈত্যপ্রবাহের কবলে পড়তে পারে।

২৫ ডিসেম্বর থেকে ১০ ডিগ্রির নিচে তাপমাত্রা অব্যাহত রয়েছে রাজশাহীতে। এই জেলায় শৈত্যপ্রবাহ আরো কয়েকদিন থাকবে বলেও জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর।

রাজশাহী আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল মান্নান জানান, পহেলা ডিসেম্বর থেকে মূলত রাজশাহীর তাপমাত্রা কমতে থাকে। ২৫ ডিসেম্বরের পরে রাজশাহীর তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রির নিচে অবস্থান করছে।

শীতের প্রকোপ বাড়ায় রাজশাহীতে ঠাণ্ডাজনিত রোগের মাত্রা বৃদ্ধি পেয়েছে। এর মধ্যে ডায়রিয়া, নিউমোনিয়া, শ্বাসকষ্ট ও হৃদরোগে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ক্রমশ বাড়ছে। শীত যতই বাড়ছে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে শীতজনিত রোগীর সংখ্যা ততই বাড়ছে। শীতের অসুখে শিশু ও বয়স্করাই আক্রান্ত হচ্ছেন বেশি।

জাতীয় এর আরও খবর