Barta24

রোববার, ১৬ জুন ২০১৯, ২ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

সৈয়দ আশরাফের শূন্য আসন নিয়ে জটিলতা

সৈয়দ আশরাফের শূন্য আসন নিয়ে জটিলতা
ছবি: বার্তা২৪
ইসমাইল হোসেন রাসেল
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
ঢাকা
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

একাদশ সংসদ নির্বাচনে কিশোরগঞ্জ-১ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে বিজয়ী বিগত সরকারের জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম শপথ গ্রহণের আগেই মৃত্যুবরণ করেছেন। তার মৃত্যুর ফলে ‘শূন্য’ এই আসনটিতে নির্বাচন নিয়ে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে।

নির্বাচন কমিশন বলছে, 'সংসদ সচিবালয় আসনটি শূন্য ঘোষণা করে গেজেট প্রকাশের পর ইসিকে জানালে সেখানে নির্বাচনের ব্যবস্থা নেয়া হবে।'

আর সংসদ সচিবালয় বলছে, 'যেহেতু নির্বাচন কমিশন জেনেছে যে সৈয়দ আশরাফ মারা গেছেন সেহেতু আসনটি হয়তো শূন্য ঘোষণা করবে ইসি।'

সৈয়দ আশরাফের দশম সংসদের সদস্য পদটি চলতি মাসের ২৮ তারিখে পাঁচ বছর মেয়াদ পূর্ণ করবে। সাংবিধানিক পদে থেকে সংসদ নির্বাচনে অংশ নেওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হওয়ায় একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিয়েও তিনি জয়লাভ করেন ৩০ ডিসেম্বর। আর ২০১৯ সালের ১ জানুয়ারি তার জয়ী হওয়ার গেজেট প্রকাশ করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। অর্থাৎ ৩ জানুয়ারি (এদিন একাদশ সংসদ নির্বাচনে জয়ী প্রার্থীদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়) মৃত্যুর সময় তিনি দশম সংসদের সদস্য ছিলেন। আর একাদশ জাতীয় সংসদ সদস্য পদে নির্বাচিত ছিলেন। যেহেতু তিনি শপথ গ্রহণ করেননি, তাই একাদশ সংসদ সদস্য হিসেবে কার্যভার গ্রহণ করেছেন বলে গণ্য হননি।

এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দিন আহমদ বলেন, 'সাবেক জনপ্রশাসনমন্ত্রী ও কিশোরগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য সৈয়দ আশরাফ একাদশ সংসদ নির্বাচনে জয়ী হওয়ার পর শপথ গ্রহণের আগেই মারা গেছেন। ফলে তার আসন শূন্য ঘোষণা করে সংসদ সচিবালয় থেকে প্রজ্ঞাপন পাঠালে আমরা পূর্ণাঙ্গ তফসিল ঘোষণা করব। যেভাবে অন্যান্য নির্বাচনে ঘোষণা করা হয়, একইভাবে এই আসেন জন্যও তফসিল ঘোষণা করব।'

তবে সংসদ সচিবালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব ড. জাফর আহমদ খান বলছেন, ‘যেহেতু নির্বাচন কমিশন জেনেছে যে সৈয়দ আশরাফ মারা গেছেন সেহেতু আসনটি হয়তো শূন্য ঘোষণা করবে ইসি। কারণ তিনি তো শপথ নেননি। তবে পুরো প্রক্রিয়াটি এখনো পরিষ্কার নয়। আইন মন্ত্রণালয়ে বা নির্বাচন কমিশনে কথা বললে হয়তো বিষয়টি পরিষ্কার হয়ে যাবে যে, কারা আসলে আসনটি শূন্য ঘোষণা করবে।’

সংবিধানের ১২৩ (৪) দফা অনুযায়ী, সংসদ ভেঙে যাওয়া ছাড়া অন্য কোনো কারণে কোনো সদস্য পদ শূন্য হলে পদ শূন্য হওয়ার নব্বই দিনের মধ্যে ভোটগ্রহণের বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

ইসি সূত্র বলছে, কিশোরগঞ্জ-১ আসনের নির্বাচিত প্রার্থী সৈয়দ আশরাফ যেহেতু শপথ গ্রহণ করার আগেই মারা গেছেন সেহেতু নতুন করে পূর্ণাঙ্গ তফসিল ঘোষণা করে শূন্য আসনে নির্বাচন অনুষ্ঠান করবে ইসি। যেহেতু উনি শপথ না নিয়েই মারা গেছেন সেহেতু তাকে তো সংসদ সদস্য হিসেবে বিবেচনা করা যাবে না। কারণ তিনি সংসদ সদস্য হিসেবে কার্যভার গ্রহণ করেননি।

তাছাড়া নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের নিয়ে কমিশন গেজেট প্রকাশ করেছে। গেজেট প্রকাশের তিন দিনের ভেতরে শপথ গ্রহণ করার কথা। কিন্তু সৈয়দ আশরাফ শপথ গ্রহণের আগেই মারা গেছেন। এখন সংসদ সচিবালয় থেকে কমিশনের কাছে একটি চিঠি দিয়ে জানাবে যে, সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম শপথ গ্রহণ করতে পারেননি। শপথ গ্রহণের আগেই তিনি মৃত্যু বরণ করেছেন। পরবর্তী কার্যক্রম গ্রহণের জন্য ইসিকে জানাবে। এর পরিপ্রেক্ষিতে পরবর্তীকালে আমরা নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য প্রস্তুতি নেবে।

এদিকে সংবিধানে ৬৭ (ক) দফায় বলা হয়েছে, সংসদের প্রথম বৈঠকের তারিখ থেকে নব্বই (৯০) দিনের মধ্যে তৃতীয় তফসিলে নির্ধারিত শপথ গ্রহণ বা ঘোষণা করতে ও শপথপত্রে বা ঘোষণাপত্রে স্বাক্ষর করতে অসমর্থ হলে সংশ্লিষ্ট আসন শূন্য হবে। আর নির্বাচন করতে হবে আসন শূন্য হওয়ার নব্বই দিনের মধ্যে।

ইসির নির্বাচন ব্যবস্থাপনা শাখার যুগ্ম সচিব ফরহাদ আহাম্মদ খান বলেন, 'একটা জটিলতা আছে। কিন্তু আইনের স্পিরিট বিবেচনায় নির্বাচন কমিশন আসনটি শূন্য ঘোষণা করতে পারে। এক্ষেত্রে তার আসনটি সংশ্লিষ্ট সংসদ সদস্যের মৃত্যুর দিন থেকে শূন্য হয়েছে বলে গণ্য করা হবে।'

উল্লেখ্য, চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ৩০ ডিসেম্বর জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক কিশোরগঞ্জ-১ আসনে বিজয়ী হন। কিন্তু সাংসদ হিসেবে শপথের আগেই গত ৩ জানুয়ারি রাত ১০টার দিকে মারা যান সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। মরদেহ বাংলাদেশে নিয়ে আসার পর ৬ জানুয়ারি রাজধানীর বনানী কবরস্থানে কিশোরগঞ্জ-১ আসনের টানা পাঁচবারের নির্বাচিত সংসদ সদস্যর দাফন সম্পন্ন হয়।

আপনার মতামত লিখুন :

খুলনা-সাতক্ষীরা মহাসড়কে রোলারচাপায় চালক নিহত

খুলনা-সাতক্ষীরা মহাসড়কে রোলারচাপায় চালক নিহত
প্রতীকী

খুলনা-সাতক্ষীরা মহাসড়কে চলন্ত রোলারের নিচে চাপা পড়ে মো. জাহাঙ্গীর আলম (৪৩) নামে রোলারচালক নিজেই মারা গেছেন। নিহত জাহাঙ্গীর চুকনগর এলজিআরডিতে মাস্টার রোলে কর্মরত ছিলেন।

সোমবার (২৪ জুন) সন্ধ্যায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত জাহাঙ্গীর ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মোজাহার এন্টারপ্রাইজের চলমান খুলনা-সাতক্ষীরা মহাসড়কের সংস্কার কাজে নিয়োজিত ছিলেন। তিনি নগরীর নাজিরঘাট এলাকার মৃত ছবেদ আলীর ছেলে।

সোনাডাঙ্গা মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) উজ্জ্বল সরকার জানান, সন্ধ্যায় ডুমুরিয়া মিকশিমিল এলাকায় রোলারচালক জাহাঙ্গীর রোলারটি পেছনের দিকে নেওয়ার সময় হঠাৎ করে পড়ে যান। এ সময় চলন্ত রোলার তার ওপর দিয়ে চলে যায়। এতে তিনি গুরুতর আহত হন। পরে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করেন।

এরপর তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। নিহতের মরদেহ খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।

তিস্তার পানিতে ভেসে গেছে বাদাম চাষিদের স্বপ্ন

তিস্তার পানিতে ভেসে গেছে বাদাম চাষিদের স্বপ্ন
ডুবে গেছে তিস্তা চরাঞ্চলের বাদাম ক্ষেত। ছবি: বার্তা২৪.কম

আষাঢ়ের শুরুতেই পানি বাড়তে শুরু করেছে তিস্তা নদীতে। ভাঙতে শুরু করেছে নদীর পাড়ও। এতে রংপুরের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। ডুবে গেছে চরাঞ্চলের মানুষের স্বপ্নের বাদাম ক্ষেত। আর কদিন পর ঘরে তোলা হতো এসব ক্ষেতের ফসল।

রংপুরের গঙ্গাচড়া ও কাউনিয়া উপজেলার বেশ কয়েকটি বিস্তীর্ণ অঞ্চল ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, কাউনিয়ার ঢুষমাড়া, গদাই, বিশ্বনাথপুর, মধুপুর, ভূতছড়া, শাব্দি, ট্যাপা এবং গঙ্গাচড়ার মহিপুর, বালাপাড়া, মোহালি গ্রামের নিম্নাঞ্চল পানিতে তলিয়ে গেছে। এসব এলাকায় নদীর ধু-ধু বালুচরে ফলানো বাদাম পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়েছে চাষিরা।

চাষিদের দাবি, ফলন ভালো হলেও পানিতেই ভেসে গেছে তাদের স্বপ্ন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/24/1561390346277.jpg

বিশ্বনাথপুর গ্রামের কৃষক হামিদ মিয়া বার্তা২৪.কমকে বলেন, 'এবার অনেক আশা নিয়ে বাদাম চাষ করেছি। কিন্তু ঘরে তোলার আগেই পানিতে সর্বনাশ হলো। এখন ঋণ পরিশোধ করা কষ্টকর হবে।'

একই এলাকার মর্জিনা বেগম বার্তা২৪.কমকে বলেন, 'বাদাম তোলা হইলো ন্যা, সোগ (সব) পানির তলোত ডুবি গেছে। সংসার চালাইতে কষ্ট হইবে। ছাওয়াগুল্যার (সন্তান) খরচা দিতে দেরি হইবে।'

রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক ড. সরোয়ারুল হক বার্তা২৪.কমকে জানান, রংপুরে প্রায় ৬৮০ হাজার হেক্টর জমিতে বাদাম চাষ হয়েছে। যার বেশির ভাগই নদীর বিস্তীর্ণ চরাঞ্চল। তবে তিস্তায় হঠাৎ পানি বাড়ায় চাষিরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন।

কৃষক সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক পলাশ কান্তি নাগ বার্তা২৪.কমকে জানান, বছরের পর বছর তিস্তা ভরাট হওয়ায় সামান্য বৃষ্টিতে প্লাবিত হচ্ছে দুই পাড়ের বিস্তীর্ণ অঞ্চল। এতে বাদাম চাষিরা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। এই সমস্যা সমাধানে তিস্তা নদী খনন ও নদী শাসন করা জরুরি হয়ে পড়েছে।

রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের মুখ্য সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মো. আব্দুল হাকিম বার্তা২৪.কমকে জানান, কিছু জায়গায় ড্রেজিং করা হয়েছে। তবে পুরো তিস্তায় ড্রেজিং করার কাজ শিগগিরই শুরু হবে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র