Alexa
independent day 2019

বছরের শুরুতে অস্থির চাল ডালের বাজার

বছরের শুরুতে অস্থির চাল ডালের বাজার

ছবি: বার্তা২৪

আবদুস সাত্তার, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট,চট্টগ্রাম, বার্তা২৪

বছরের শুরুতেই অস্থির হয়ে উঠেছে চাল, ডাল ও মসলার বাজার। চট্টগ্রামের পাইকারি বাজার খাতুনগঞ্জে বাড়তে শুরু করেছে এসব পণ্যের দাম।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, নির্বাচন-পরবর্তী সময়ে পণ্যের চাহিদা বাড়লেও ডলারের মূল্যবৃদ্ধির কারণে আমদানি কমে যাওয়ায় বাজারে এ অস্থিরতা দেখা দিয়েছে।

খাতুনগঞ্জের পাইকারি দোকান ও আড়তগুলোয় খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত কয়েক দিনে পাইকারি পর্যায়ে বেশির ভাগ ভোগ্যপণ্যের দাম বেড়েছে। এর মধ্যে চাল, ভোজ্যতেল, চিনি, ডাল ও মসলাজাতীয় পণ্যের দাম বেড়েছে সবচেয়ে বেশি।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jan/12/1547277162998.jpg

গত এক সপ্তাহে এই পাইকারি বাজারে চালের দাম বেড়েছে ১শ থেকে দুই শত টাকা। ব্যবসায়ীরা বলছে, রাইস মিলে ধানের সরবরাহ কমে যাওয়ায় দামে প্রভাব পড়েছে। এখানকার ব্যবসায়ীরা চাহিদা মতো চাল পাচ্ছেন না। স্বাভাবিকভাবে সরবারহ কমে গেলে দাম বেড়ে যায়।

যে কোন একটি পণ্যের দাম বাড়ার সাথে সাথে অন্যান্য পণ্যের দাম বেড়ে যায়। তারই ধারাবাহিকতায় চিনির দামও বেড়েছে। বর্তমানে বাজারে প্রতি মণ চিনি বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার ৬৮০ টাকায়, যা গত সপ্তাহের শুরুতে ১ হাজার ৬০০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। সে হিসাবে মণে প্রায় ৮০ টাকা বেড়েছে পণ্যটির দাম।

খাতুনগঞ্জ ব্যবসায়ী নেতা মাহবুবুল আলম বার্তা২৪কে বলেন, নির্বাচন শেষ হওয়ায় দেশব্যাপী ব্যবসা-বাণিজ্য চাঙ্গা হয়ে উঠেছে। বাজারে পণ্য বিক্রি গত এক-দুই মাসের চেয়ে অনেক বেড়েছে। কিন্তু এ সময়ে সরবরাহ কমে যাওয়ায় কিছুটা বেড়ে গেছে প্রায় সব পণ্যের দাম। সরবরাহ বাড়লে অল্প সময়ের মধ্যেই দাম আবার স্বাভাবিক হয়ে আসবে বলে আশা করছি।

বাজারে ডালজাতীয় কয়েকটি পণ্যের দামও অতিরিক্ত বেড়ে গেছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি বেড়েছে মুগ ডালের দাম। গত কয়েক দিনে পণ্যটির দাম বেড়েছে মণে ৬৭০ টাকা। নির্বাচনের আগে প্রতি মণ মুগ ডালের দাম ৩ হাজার ২৫০ টাকার নিচে থাকলেও বর্তমানে একই মানের মুগ ডাল বিক্রি হচ্ছে ৩ হাজার ৯২০ টাকায়। একই সময়ে মসুরের দামও বেড়েছে। বাজারে প্রতি মণ দেশী মসুর বিক্রি হয়েছে ৩ হাজার ৬০ থেকে ৩ হাজার ৯০ টাকায়, যা এক সপ্তাহ আগেও প্রতি মণ ২ হাজার ৬০০ টাকায় বিক্রি হয়েছে।

গত সপ্তাহে প্রতি মণ নেপালি মসুর ২ হাজার ৭৯০ টাকায় বিক্রি হলেও চলতি সপ্তাহে একই মানের মসুরের দাম বেড়ে ৩ হাজার ৯০ টাকায় দাঁড়িয়েছে।

গত সপ্তাহ পর্যন্ত পাইকারিতে প্রতি মণ খেসারি বিক্রি হয়েছে ১ হাজার ৩৭৫ টাকায়। একই মানের খেসারি দেড় হাজার টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে। এছাড়া মটর ডালের দামও মণে প্রায় ১১০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে।

নির্বাচনের আগে অস্ট্রেলিয়া থেকে আমদানিকৃত ছোলা বিক্রি হয়েছে প্রতি মণ ২ হাজার ৪৫০ টাকায়। এখন তা মণে প্রায় ২০০ টাকা বেড়ে ২ হাজার ৬৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

ডালজাতীয় পণ্য আমদানিকারক আবু নোমান বলেন, কয়েক মাস ধরে ডলারের মূল্যবৃদ্ধি ও অন্যান্য সংকটের কারণে পণ্য আমদানি আগের চেয়ে কিছুটা কমে গেছে।

মসলাজাতীয় কয়েকটি পণ্যের দামও বেড়েছে। এর মধ্যে অস্বাভাবিকভাবে বেড়েছে এলাচের দাম। বর্তমানে বাজারে প্রতি কেজি এলাচ বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার ৭৫০ টাকায়, যা নির্বাচনের আগে ১ হাজার ৬৭০ টাকায় বিক্রি হতো।

মসলাপণ্যের মধ্যে জিরার দামও অতিরিক্ত বেড়েছে। গত এক সপ্তাহে পণ্যটির দাম বেড়েছে মণে ৩৭০ টাকা। তবে মিষ্টি জিরার দাম বেড়েছে মণে প্রায় ১ হাজার ৫০ টাকা। বাজারে প্রতি কেজি জিরা ৩২০ ও মিষ্টি জিরা ১৩৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে। যদিও গত সপ্তাহে প্রতি কেজি জিরা ৩১০ ও মিষ্টি জিরা ১০৭ টাকায় বিক্রি হতো।

বেড়েছে জয়ত্রির দামও। বর্তমানে পাইকারিতে প্রতি কেজি জয়ত্রি ১ হাজার ৫২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে, যা এক সপ্তাহ আগে ছিল ১ হাজার ৪৭০ টাকা।

মসলাজাতীয় অন্যান্য পণ্যের মধ্যে এক সপ্তাহ ধরে বাড়তির দিকে বাদাম, হলুদ ও ধনিয়ার দামও। এ সময়ে প্রতি মণ বাদামে ৯৩০ টাকা, হলুদে ১৫০ ও ধনিয়ায় ৩৭০ টাকা পর্যন্ত দাম বেড়েছে বলে জানা গেছে।

জাতীয় এর আরও খবর