Alexa

শীঘ্রই অনলাইন নীতিমালা প্রণয়ন করা হবে: তথ্যমন্ত্রী

শীঘ্রই অনলাইন নীতিমালা প্রণয়ন করা হবে: তথ্যমন্ত্রী

সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়ে তথ্যমন্ত্রী/ ছবি: বার্তা২৪

ভুঁইফোড় ও নামসর্বস্ব অনলাইন নিউজ পোর্টাল ও টিভির বিষয়ে কঠোর অবস্থানের কথা জানালেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, ভূুঁইফোড় সংবাদ মাধ্যম নিয়ে সংবাদিকদের উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠা নিরসনের লক্ষ্যে প্রথমদিন থেকে আমি কাজ করছি। শীঘ্রই অনলাইন সাংবাদ মাধ্যমের নীতিমালার প্রণয়ন করা হবে। রেজিস্ট্রশনের আওতায় এনে যাবতীয় বিষয় তদারকি ও যাচাই-বাছাই শেষে পরামর্শ মোতাবেক কাজ করা হবে।

মন্ত্রিসভায় শপথ গ্রহণের পর প্রথমবারের মতো মঙ্গলবার (১৫জানুয়ারি) সকালে একটি প্লেনে ঢাকা থেকে চট্টগ্রামে আসেন তথ্যমন্ত্রী। বিমান বন্দরে ড. হাছান মাহমুদকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। পরে বেলা সাড়ে ১১ টায় সার্কিট হাউজে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়ের আয়োজন করা হয়।

মতবিনিময় সভায় মন্ত্রীর বক্তব্য শেষে সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে অনলাইন গণমাধ্যমের দৌরাত্ম্য ও হয়রানি বিষয়ে জোর আপত্তি তোলা হয়। একইসাথে নবম ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়ন ও তদারকি নিয়ে সরকারের অবস্থান জানতে চাওয়া হয়। মন্ত্রী সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে অনলাইন সাংবাদিকতার বিষয়ে সরকারের দৃঢ় অবস্থান ও পদক্ষেপের কথা জানান।

হাছান মাহমুদ বলেন, অনলাইন গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বিস্তৃতি বর্তমান সমাজের বাস্তবতা। শুধুমাত্র বাংলাদেশেই নয়, সমগ্র পৃথিবীতে প্রসার ঘটেছে। এই প্রসার বন্ধ করা সঠিক নয়। কিন্তু এটি যাতে সঠিক হয়, নিয়ম-নীতির মধ্যে হয় সেই কাজটি করা হলো আমাদের লক্ষ্য। আপনারা সাংবাদিক বন্ধুরা যথার্থই বলেছেন; অনেকে ঘরে বসে অনলাইন চালু করেছে। নীতিমালার মধ্যে রেজিস্ট্রেশনের আওতায় আনা হলে বিপুল পরিমাণ অনলাইন বন্ধ হয়ে যাবে। আমার পূর্বসূরী (হাসানুল হক ইনু) সেই কাজের অনেকটুকু এগিয়ে নিয়ে গেছেন, আমি সেই কাজটিকে সম্পন্ন করব ইনশাআল্লাহ। এছাড়া অনুমোদন ছাড়া কোনো অনলাইন টেলিভিশন থাকতে পারবে না। এটিকেও নীতিমালায় আনা হবে। এক্ষেত্রে সাংবাদিকদের পরামর্শ ও সহায়তা নেওয়া হবে।

নবম ওয়েজবোর্ডের বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, আমি গতকাল সোমবার (১৪জানুয়ারি) জাতীয় প্রেসক্লাবে বলেছি এটি যত দ্রুত সম্ভব বাস্তবায়নের জন্য কাজ করব। অনেকগুলো ধাপ অতিক্রম করতে হবে। ২৮ জানুযারি, এই সময়সীমার মধ্যে এর বাস্তবায়নে কাজ করব। বর্তমান ওয়েজবোর্ডে টেলিভিশন নাই, আমি ব্যক্তিগতভাবে বলেছি টেলিভিশনকেও অন্তর্ভুক্ত করা হবে। আর কেউ বাস্তবায়নের ঘোষণা দিয়ে প্রণয়ন করছে কিনা তাও তদারকি করা হবে।

এ সময় সংরক্ষিত মহিলা আসনে দলীয় মনোনয়ন দেওয়ার বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নে তিনি বলেন, তিনি (প্রার্থী) কতদিন ধরে দল করছেন, দলের প্রতি তার অবস্থান এবং কমিটমেন্ট বিবেচনা করে তাকে মনোনয়ন দেওয়া হয়। নারী সংরক্ষিত আসনের ক্ষেত্রে একই মানদণ্ড বজায় রেখে নির্ধারণ করা হবে।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে নগর আওয়ামী লীগের (ভারপ্রাপ্ত) সভাপতি মাহতাব উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমেদ, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুছ সালাম বক্তব্য রাখেন।