Barta24

রোববার, ২৫ আগস্ট ২০১৯, ১০ ভাদ্র ১৪২৬

English

ফুলবাড়িয়ায় ছোট ভাইয়ের হাতে বড় ভাই খুন

ফুলবাড়িয়ায় ছোট ভাইয়ের হাতে বড় ভাই খুন
ছবি: বার্তা২৪
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
ময়মনসিংহ
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলার বালিয়ান গ্রামে ছোট ভাই আখেরের হাতে বড় ভাই রব্বানী খুন হয়েছেন।

রোববার (২০ জানুয়ারি) দুপুরে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ (মমেক) হাসপাতালে পাঠিয়েছে পুলিশ। ফুলবাড়িয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ কবিরুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

স্থানীয় সূত্র জানায়, উপজেলার বালিয়ান গ্রামের আ. কাদেরের তিন ছেলে। তারা যৌথ পরিবারের সদস্য। শনিবার (১৯ জানুয়ারি) দুপুরের দিকে ব্যবসায়িক হিসাব-নিকাশ নিয়ে মেঝো ভাই নুরুল হক ও বড় ভাই রব্বানীর মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে ছোট ভাই আখের নুরুল হকের হাতে থাকা পাওয়ার টিলারের (ট্রাক্টর) হ্যান্ডেল দিয়ে বড় ভাই রব্বানীর মাথায় আঘাত করেন। এতে তিনি রক্তাক্ত হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন।

পরিবার ও স্থানীয়রা তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কতর্ব্যরত চিকিৎসক ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান। কিন্তু পরিবারের সদস্যরা রব্বানীকে হাসপাতালে না নিয়ে বাড়িতে চলে যায়। পরে রাত ১০টার দিকে হঠাৎ বমি শুরু হয়। পরে হাসপাতালে নেয়ার পথে রব্বানী মারা যান।

খবর পেয়ে রোববার (২০ জানুয়ারি) দুপুর ১২ টার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মমেক হাসপাতালে পাঠায়।

আপনার মতামত লিখুন :

মিয়ানমারের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের চাপ অব্যাহত

মিয়ানমারের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের চাপ অব্যাহত
কক্সবাজারের টেকনাফে রোহিঙ্গা ক্যাম্প/ ফাইল ছবি

জাতিগত নির্মূলের শিকার রোহিঙ্গাদের অধিকার ফিরে পেতে মিয়ানমারের ওপর যুক্তরাষ্ট্র ক্রমাগত চাপ অব্যাহত রেখেছে। যুক্তরাষ্ট্রের মুখপাত্র মরগান অর্টাগাস এক বিবৃতিতে এ কথা জানিয়েছেন।

রোববার (২৫ আগস্ট) ঢাকাস্থ মার্কিন দূতাবাস এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এসব জানায়।

মার্কিন মুখপাত্র বিবৃতিতে বলেন, ‘রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর ভয়াবহ নৃশংসতার কারণে সাত লাখ ৪০ হাজারেরও বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। রাখাইন রাজ্য মিয়ানমারের একমাত্র জায়গা নয়, যেখানে সামরিক বাহিনী মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছে। পাশাপাশি কাচিন ও শান স্টেটস-এও সামরিক নির্যাতন অব্যাহত রয়েছে।’

‘এই উদ্বাস্তুদের আশ্রয় দেওয়ার জন্য বাংলাদেশ সরকারের চলমান উদারতার প্রশংসা করি। যুক্তরাষ্ট্র রোহিঙ্গা সঙ্কটে মানবিক সহায়তা দিয়ে যাচ্ছে। ২০১৭ সাল থেকে প্রায় ৫৪২ মিলিয়ন ডলার প্রদান করেছে। অন্যদেরও এই মানবিক কাজে অবদান রাখার আহ্বান জানাই।’

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘মিয়ানমার সরকারকে কফি আনান উপদেষ্টা কমিশনের সুপারিশগুলো বাস্তবায়নে উৎসাহিত করা অব্যাহত রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র, যা রাখাইন রাজ্যের সকল মানুষ ও সেই সাথে যারা পালিয়ে গেছে, তাদের জন্য সর্বোত্তম পথের প্রস্তাব দেয়।’

‘যুক্তরাষ্ট্র মিয়ানমারকে এসব পালনে আন্তর্জাতিক সংস্থার সাথে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। যা শরণার্থীদের স্বেচ্ছাসেবক, নিরাপদ, মর্যাদাপূর্ণ ও টেকসই প্রত্যাবাসন তাদের নিজ দেশে বা তাদের পছন্দসই আবাসে ফিরিয়ে দেবে।’

৫৩ বছর ধরে চলা ‘শ্রম’ হাট এখনো জমজমাট

৫৩ বছর ধরে চলা ‘শ্রম’ হাট এখনো জমজমাট
হাটে ভিড় জমান শ্রমিক ও গৃহস্থরা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

বরগুনার তালতলী উপজেলা শহরের ভূমি অফিসের সামনের মাঠে ৫৩ বছর ধরে বসে শ্রম হাট। এই হাটে ভোর থেকে ভিড় করেন বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত শ্রমিক ও গৃহস্থরা। দরদাম ঠিক হলে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে শ্রমিকরা চলে যান গৃহস্থদের বাড়ি। কেউ বিক্রি হন দিন চুক্তিতে, কেউবা সপ্তাহ চুক্তিতে আবার কেউ মাস চুক্তিতে।

জানা গেছে, বছরের শ্রাবণ ও ভাদ্র মাসের মাঝামাঝি পর্যন্ত আমন চাষাবাদের উপযুক্ত সময়। এ সময় শ্রমজীবী মানুষের চাহিদা থাকে বেশি। ধান বোনা, ধান কাটাসহ বিভিন্ন কাজে পারদর্শী শ্রমিকের চাহিদা থাকে সবচেয়ে বেশি। দরদাম করে শ্রমিকদের নেওয়া হয় এলাকার বাড়িতে। কৃষি কাজে ব্যবহৃত মালামাল নিয়ে শ্রম হাটে বসে থাকেন শ্রমিকরা। হাটে ১৬ থেকে ৫০ বছর বয়সের শ্রমিকদের দেখা মেলে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/25/1566740308042.jpg

রোববার (২৫ আগস্ট) দুপুরে সরেজমিনে দেখা গেছে, শতশত শ্রমজীবী মানুষ হাটে এসেছেন বিক্রি হতে। উপজেলার বিভিন্ন এলাকার মানুষ কৃষিকাজের জন্য তাদের কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। বাজারের অন্যান্য পণ্যের মতো শ্রমিকদের পারিশ্রমিক নিয়ে চলে দর কষাকষি। সকালের দিকে শ্রমিকদের চাহিদা বেশি থাকে। শ্রমজীবীরা দামও বেশি পান। দুপুর গড়িয়ে বিকাল হলে চাহিদা কমে যায় এবং দামও কমে যায়। অনেকে বিক্রি হতে না পারলে হতাশা নিয়ে বাড়ি ফেরেন।

কয়েকজন শ্রমিক জানান, সব জিনিসের দাম বাড়ায় দৈনিক ৭২০-৭৫০ টাকায় শ্রম বিক্রি করেন তারা। তবে শ্রম কিনতে আসা মালিকের পছন্দের ওপর পারিশ্রমিক নির্ভর করে। তবে শ্রম বাজারে বৃদ্ধদের চেয়ে যুবকদের চাহিদা বেশি।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/25/1566740327096.jpg

শ্রম কিনতে আসা কয়েকজন মালিক জানান, গত বছরের চেয়ে এ বছর শ্রমের দাম একটু বেশি। কিন্তু উপায় না থাকায় বেশি দামেই শ্রম কিনতে হচ্ছে।

শ্রম অবিক্রিত থাকা হালিম হাওলাদার জানান, বাজারে লোক বেশি থাকায় বিক্রি হতে পারেননি তিনি। তবে আগামী সপ্তাহে তিনি আবার হাটে আসবেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/25/1566740363590.jpg

বিক্রিত মহের উদ্দির জানান, তিনিসহ দলের সাতজনের শ্রম কিনেছেন তাঁতিপাড়ার এলাকার বাসিন্দা রিয়াজুল ইসলাম। তার কৃষি কাজ করে দিতে হবে।

শ্রম ক্রেতা হাসান জানান, তিনি ১০ জনকে সাত দিনের জন্য ক্রয় করেছেন। আগামী সপ্তাহে আবারও শ্রম কিনতে হবে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র