Barta24

মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০১৯, ১১ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

জেএমবি মিডিয়াতে কাজ করত আইএস মতাদর্শী শরিফুল

জেএমবি মিডিয়াতে কাজ করত আইএস মতাদর্শী শরিফুল
র‍্যাবের মুখপাত্র মুফতি মাহমুদ খান। ছবি: বার্তা২৪.কম
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
ঢাকা
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

২০১৩ সালে জঙ্গিবাদে জড়িয়ে পড়া শরিফুল ইসলাম ওরফে খালিদ ছিলেন আইএস মতাদর্শী। পরবর্তীতে জেএমবিতে যোগ দেয়ার পরে ভালো ছাত্র হওয়ার কারণে দলটির মিডিয়া শাখায় অন্তর্ভুক্ত হন তিনি।

শনিবার (২৬ জানুয়ারি) হলি আর্টিজান মামলার চার্জশিটভুক্ত সর্বশেষ পলাতক আসামি শরিফুল ইসলাম সম্পর্কে এ তথ্য জানান র‍্যাবের মুখপাত্র মুফতি মাহমুদ খান।

মুফতি মাহমুদ খান বলেন, ‘২০১৩ সালের ডিসেম্বরে শোভন নামের এক বন্ধুর কাছে থেকে জঙ্গিবাদে অনুপ্রাণিত হন শরিফুল ইসলাম। প্রথম দিকে তিনি আইএসের মতাদর্শী ছিলেন। পরবর্তীতে শোভনের মাধ্যমে রাজশাহীতে জঙ্গি শীর্ষ নেতা তামিম চৌধুরীর সঙ্গে পরিচয় হয়। পরে তিনি জেএমবিতে যোগ দেন।

র‍্যাব জানায়, সেই পরিচয়ের সূত্র ধরে ২০১৫ সালে গ্রেফতার মামুনুর রশিদের বগুড়ার বাসায় জঙ্গি শীর্ষ নেতা সারোয়ার জাহান ও তামিম চৌধুরী এক হন। তাদের এই এক হওয়ার পেছনে বিশেষ ভূমিকা রাখেন শরিফুল ইসলাম। ওই দিন তাদের একটি মিটিং হয়। সেই মিটিংয়ে জেএমবি মিডিয়া শাখায় অন্তর্ভুক্ত করা হয় শরিফুলকে।

র‍্যাবের এই মুখপাত্র জানান, মূলত কোনো অভিযানে যাওয়ার আগে কয়জন জঙ্গি আর কে কে অংশগ্রহণ করবে সেই বিষয়টি দেখতেন শরিফুল।

মুফতি মাহমুদ খান আরও জানান, ওই মিটিংয়ে দেশের গুণী ব্যক্তিদের টার্গেট কিলিংয়ের জন্য একটি তালিকা করা হয়। তার ধারাবাহিকতায় গত ২৩ এপ্রিল ২০১৬ সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক রেজাউল করিমকে হত্যায় অংশ নেন এ জঙ্গি সংগঠনের সদস্যরা। তারপর থেকেই আত্মগোপনে চলে যান শরিফুল ইসলাম।

অন্যদিকে হলি আর্টিজান হামলায় শরিফুলের ভূমিকা সম্পর্কে মুফতি মাহমুদ খান জানান, হলি আর্টিজান হামলার পূর্বে মামুনুর রশিদ রিপন যে ৩৯ লাখ টাকা দিয়েছিল, ওই টাকা সংগ্রহে কাজ করেছেন তিনি। টাকাগুলো আসে মধ্যপ্রাচ্য থেকে।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার (২৫ জানুয়ারি) চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল থেকে হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর রেজাউল করিম হত্যা মামলার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি শরিফুল জঙ্গিকে গ্রেফতার করে র‍্যাব-৫।

আপনার মতামত লিখুন :

ডিআইজি মিজান সাময়িক বরখাস্ত

ডিআইজি মিজান সাময়িক বরখাস্ত
ডিআইজি মিজানুর রহমান, ছবি: সংগৃহীত

পুলিশের বিতর্কিত ও সমালোচিত উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মিজানুর রহমানকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

মঙ্গলবার (২৫ জুন) স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নিরাপত্তা বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি হয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বার্তা২৪.কমকে জারি হওয়া প্রজ্ঞাপনের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

সম্প্রতি দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) এক অভিযোগ থেকে রেহাই পেতে দুদকের এক কর্মকর্তাকে ৪০ লাখ টাকা ঘুষ দেন ডিআইজি মিজান। বিষয়টি জানাজানি হলে সব মহলে সমালোচনার ঝড় ওঠে।

ঘুষ দাতা ও গ্রহীতার বিচারের দাবিতে সোচ্চার হয় ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশসহ (টিআইবি) বিভিন্ন সংস্থা ও সর্বস্তরের মানুষ। ডিআইজি মিজানুর রহমানের ঘুষের অর্থ অনুসন্ধানে নামে পুলিশ।

এজন্য সোমবার (১৭ জুন) তিন সদস্যের উচ্চ পর্যায়ের একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করে পুলিশ সদর দফতর। কমিটির প্রধান করা হয় অতিরিক্ত পুলিশ মহাপরিদর্শক ড. মইনুর রহমান চৌধুরীকে (অ্যাডমিন অ্যান্ড অপারেশন)।

তদন্ত কমিটির বাকি দুই সদস্য হলেন অতিরিক্ত পুলিশ মহাপরিদর্শক (ফিন্যান্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট) শাহাবুদ্দীন কোরেশী ও পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) পুলিশ সুপার মিয়া মাসুদ হোসেন।

ডিআইজি মিজানের ঘুষের অর্থ কোথায় আছে এবং এ ঘুষের উৎস কী তা জানতে অনুসন্ধান শুরু করে কমিটি। কমিটির দেওয়া তদন্ত প্রতিবেদনের ওপর ভিত্তি করেই ডিআইজি মিজানের ব্যাপারে পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।

চারঘাটে ৫ প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে বিএসটিআই’র মামলা

চারঘাটে ৫ প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে বিএসটিআই’র মামলা
ছবি: সংগৃহীত

ওজনে কম দেওয়ার অভিযোগে রাজশাহীর চারঘাট উপজেলায় পাঁচটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইন্সটিটিউশন (বিএসটিআই)। মঙ্গলবার (২৫ জুন) বিকালে বিএসটিআই’র একটি সার্ভিল্যান্স অভিযান পরিচালনা করে এ মামলা দায়ের করা হয়।

প্রতিষ্ঠানগুলো হলো- চারঘাট বাজারের মেসার্স শ্রী কৃষ্ণ মিষ্টান্ন ভাণ্ডার অ্যান্ড হোটেল, আদর্শ ফিলিং স্টেশন, চারঘাট বস্ত্র বিতান, মেসার্স বস্ত্র বিতান ও সোনার বাংলা বস্ত্র বিতান।

বিএসটিআই’র আঞ্চলিক কার্যালয়ের উপ-পরিচালক ও বিভাগীয় অফিস প্রধান খাইরুল ইসলাম বার্তা২৪.কম-কে তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, ‘ওজন ও পরিমাপ মানদণ্ড আইন-২০১৮’ এর সংশ্লিষ্ট ধারা লঙ্ঘনের দায়ে পাঁচটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র