Alexa

মৃত্যুর আগে বন্ধুকে জমি-বাড়ি করে দেন সৌদি নাগরিক

মৃত্যুর আগে বন্ধুকে জমি-বাড়ি করে দেন সৌদি নাগরিক

সৌদি নাগরিক ও তার বন্ধু সানী, ছবি: সংগৃহীত

উপজেলা করেসপন্ডেন্ট, গৌরীপুর, বার্তা২৪.কম

মৃত্যুর ৩/৪ বছর আগে সৌদি নাগরিক আবু নাছের আল দুসারী (৪৫) বন্ধু লালন সাধক আবু সাইদ সানীকে (৩৮) তার গ্রামের বাড়ি ময়মনসিংহের গৌরীপুরের ডৌহাখলা ইউনিয়নের ডৌহাখলা গ্রামে জমি কিনে পাকা বাড়ি করে দেন। সানীর জীবিকা নির্বাহের জন্য ওই গ্রামে জমি কিনে মাছের ফিসারীও করে দেন সৌদি নাগরিক।

অপরদিকে বাড়ি নির্মাণের পর সৌদি নাগরিক আবু নাসের প্রায়ই ডৌহাখলা ওই গ্রামের বাড়িতে দীর্ঘদিনের জন্য বেড়াতে আসত। প্রতি রাতে বন্ধু সানীকে নিয়ে মদ-গাঁজার আসর বসাতেন। গত ৭ই ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার রাতে সানীর ওই বাড়ি থেকে সৌদি নাগরিক আবু নাছেরের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে মাদক মামলায় সানীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এরপর থেকে সানীর ওই বাড়িটি তালাবন্ধ রয়েছে।

সোমবার (১১ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে ডৌহাখলা গ্রামে গিয়ে এলাকাবাসী ও সানীর পরিবারের সাথে কথা বলে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, ডৌহাখলা ইউনিয়নের ডৌহাখলা গ্রামের দরিদ্র কৃষক করম আলীর ছেলে আবু সাইদ সানী। অভাব-অনটনের সংসারে ২২ বছর পূর্বে সে নবম শ্রেণিতে অধ্যয়নের সময় বাড়ি ছেড়ে ঢাকা গিয়ে হোটেলে কাজ নেয়। কয়েক বছর পর ঢাকার গুলশানের একটি হোটেলে ভিসা ব্যবসায়ী সৌদি নাগরিক আবু নাছেরের সাথে সানীর পরিচয় হয়। তারপর দুজনের মধ্যে গড়ে ওঠে বন্ধুত্ব। এরপর সৌদি নাগরিকের টাকায় অভাবী সানীর ভাগ্য পরিবর্তন হতে থাকে। মদ-গাঁজার আসর বসিয়ে দুহাতে সৌদি নাগরিকের টাকা উড়াতে থাকে সানী।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Feb/11/1549893041253.jpg

সানীর বড় ভাই আব্দুর রাশিদ বলেন, 'সানী ও সৌদি নাগরিক দুজনেই প্রচুর পরিমাণে মদ পান করত। প্রথমদিকে তারা দুজন ময়মনসিংহ শহরের বিভিন্ন নামি-দামি হোটেলে মাসের পর মাস এক সাথে থেকে মদ-পান করত। প্রতিদিন তারা হাজার হাজার টাকা দামের মদ ও বিয়ার পান করত। কিন্তু হোটেলে থাকা-খাওয়া বেশি টাকা বেশি খরচ হয় বলে চার বছর পূর্বে সৌদি নাগরিক সানী ভাইকে জমি কিনে গ্রামে পাকা বাড়ি করে দেন। এরপর থেকে সৌদি নাগরিক এই বাড়িতে বেড়াতে এসে নিয়মিত সানী ভাইয়ের সাথে মদের আসর বসাতেন। প্রতিদিন কমপক্ষে তাদের ১০ হাজার টাকার মদ লাগত।'

সানীর বাবা করম আলী বলেন, 'সানী নেশার জগতে ঢুকে পড়ার পর থেকে আমাদের সাথে তার কোনো সম্পর্ক ছিল না। গৌরীপুর থাকলে সানী প্রায়ই আমার বাড়িতে এসে টাকার জন্য উৎপাত করত। কয়েকদিন আগেও সে বাড়িতে এসে আমার ঘরে ভাঙচুর করেছে।'

গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, 'সৌদি নাগরিক আবু নাছেরের মরদেহ রোববার সৌদি দূতাবাসের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। তার মৃত্যুর ঘটনায় লালন সাধক সানীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে সানী পুলিশকে জানিয়েছেন সৌদি নাগরিকের টাকায় সে জমি কিনে বাড়ি করেছে। বাড়ি নির্মাণের পর থেকে সৌদি নাগরিক প্রায়ই তার বাড়িতে বেড়াতে এসে মদ্যপান করত।'

গৌরীপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাখের হোসেন সিদ্দীকী বলেন, 'সৌদি নাগরিক আবু নাছেরর মৃত্যুর ঘটনায় অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে। তার বন্ধু সানীর বিরুদ্ধেও একটি মাদক মামলা হয়েছে। প্রাথমিক তদন্তে চিকিৎসক আমাদের জানিয়েছেন আবু নাছেরের মরদেহে অ্যালকোহলে সেবনের সিম্পটম ছিল। তবে ময়নাতদন্ত রিপোর্ট না পাওয়া পর্যন্ত আমরা নিশ্চিত হয়ে কোনো কিছুই বলতে পারছি না।'

জাতীয় এর আরও খবর