Alexa

ভালো লাগা ভালোবাসাময় একদিন..

ভালো লাগা ভালোবাসাময় একদিন..

ভালো লাগা ভালোবাসাময় একদিন / ছবি: বার্তা২৪

উবায়দুল হক, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, ময়মনসিংহ, বার্তা২৪.কম

চেনা বুলির মতোই যেন সবাই আওড়াচ্ছেন ভালোবাসি, ভালোবাসি শব্দটি। প্রেমিক যুগলের হৃদয়ে ভালোবাসার ঝংকার। এতে মনে হয় ভালো লাগা ও ভালোবাসাময় একদিন। কারও হাতে লাল, কারও হাতে হলুদ গোলাপ। তরুণীর খোঁপায় রক্তরাঙা লাল গোলাপ কিংবা মাথায় ফুলের মুকুট। ফতুয়া আর পাঞ্জাবিতে সেজেছে তরুণ।

ময়মনসিংহ নগরীতে বিশ্ব ভালোবাসা দিবস উদযাপনের খানিক চিত্র ছিল এমনই।

বৃহস্পতিবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) সকাল থেকেই প্রেমিক যুগলদের দেখা মিলেছে নগরীর ব্রহ্মপুত্র নদ ছোঁয়া শিল্পাচার্য জয়নুল উদ্যান অথবা বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভোটানিক্যাল গার্ডেনে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Feb/14/1550152731487.jpg

এছাড়া বিপিন পার্কসহ নানান জায়গায় ছিল তরুণ-তরুণীদের ভিড়। ফুলের দোকানগুলোতেও হুমড়ি খেতে দেখা গেছে অনেককেই। তবে ফুল বিক্রির শীর্ষে ছিল গোলাপ ফুল। প্রিয় মানুষকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়ে প্রকারন্তরে ভালোবাসার কথাই যেন বলেছেন সবাই। এরপর যুগলরা হারিয়ে গেছেন নিজেদের মতো করে।

শুধু প্রেমিক যুগলই নয় তরুণ-তরুণী, বয়স্কসহ সব বয়সী মানুষের জন্যই দিনটি ছিল ভালোলাগা ও ভালোবাসাময়। তাইতো বসন্তের মধুর হাওয়ায় বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাস ছিল সংস্কৃতির নগরী ময়মনসিংহে।

ভালোবাসতে বাসতেই গড়িয়েছে দুপুর। এবার আহারের পালা। রিকশায় ঘুরে ছুটেছেন হয় ফাস্টফুড, নয়তো রেস্টুরেন্ট। নগরীর সারিন্দা, পার্ক সারিন্দা, রোম থ্রি, ধানসিঁড়ি, হিমু আড্ডা, বেস্ট বাইট, দারুচিনি ও সিএফসিতে বেশ ভিড় ছিল তরুণ-তরুণীদের।

আবার জয়নুল উদ্যানে দুজন-দুজনার হাত ধরে বসেছেন যুগলরা। মনের কথা বলতে তারা ছিলেন ব্যাকুল। হয়ত হাতে হাত রেখে কানে কানে বলেছেন ‘তোমায় ভালোবাসি বেশ’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Feb/14/1550152750211.jpg

কিংবা হাতে হাত রেখে চলতে চলতে যেন গান ধরছিল কবিগুরুর ভাষায়, ‘...ভালোবাসি পরাণ ভরি...’।

সূর্য হেলে পড়েছে পশ্চিম আকাশে। সারাদিন ভালোবাসা-বাসি শেষে এবার যাওয়ার পালা। প্রেমিক যুগল বিচ্ছিন্ন হচ্ছেন নির্দিষ্ট দূরত্বে। দুজনেরই কানে হয়ত ভেসে আসছে,‘ তোমায় হৃদ মাঝারে রাখব, ছেড়ে দেব না....।’

তবে এ সময়ের ফেসবুক, মেসেঞ্জার, টুইটার ইত্যাদি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থাকতে দূরে যাওয়ার সুযোগ নেই খুব একটা। দিনভর সামনা-সামনি ভালোবাসা শেষে এবার হবে ডিজিটালাইজড ভালোবাসা।

জাতীয় এর আরও খবর