প্রকল্পের ধীর গতি মেনে নেব না: গণপূর্ত মন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, চট্টগ্রাম, বার্তা২৪.কম
সিডিএ’র সভায় বক্তব্য দিচ্ছেন গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ. ম. রেজাউল করিম, ছবি: বার্তা২৪

সিডিএ’র সভায় বক্তব্য দিচ্ছেন গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ. ম. রেজাউল করিম, ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ. ম. রেজাউল করিম বলেছেন, সিডিএ’র (চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ) কর্মকাণ্ড নিয়ে আমার ধারণা আছে। কাজের গতি বাড়াতে হবে। প্রকল্পের ধীর গতি আমি মেনে নেব না। চট্টগ্রামের উন্নয়ন আরো দ্রুত হতে হবে। চট্টগ্রামের উন্নয়নে আবহেলা করা যাবে না।

শনিবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) কর্মকর্তা ও কর্মচারীদর সাথে মতবিনিময়কালে তিনি এসব কথা বলেন।

গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী বলেন, দেশের উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গভীর পরিশ্রম করছেন। বড় প্রজেক্ট নিয়ে এলাকার উন্নয়ন করছেন। তিনি চট্টগ্রামকে আলাদাভাবে গুরুত্ব দিচ্ছেন। ঢাকার চেয়েও বেশি ফান্ড বরাদ্দ দিচ্ছেন চট্টগ্রামের জন্য।

শ. ম. রেজাউল করিম বলেন, সমন্বয় করে কাজ করার জন্য নির্দেশনা দেওয়া আছে। সবার চিন্তা করতে হবে- সবার আগে উন্নয়ন। আমরা সবাই সরকারের অংশ। আত্মশুদ্ধির মাধ্যমে নিজেদের সংশোধন করতে হবে, মানসিকতার পরিবর্তন করতে হবে। যার যে দায়িত্ব, নিষ্ঠার সাথে, সততার সাথে তা পালন করতে হবে।

মন্ত্রী বলেন, চট্টগ্রামের উন্নয়ন দেখে আমি খুশি হয়েছি। চট্টগ্রামের মানুষ অনেক পরিশ্রমী। আমার সে বিশ্বাস আরো কাছ থেকে দেখতে চাই। নগর ও গ্রামে কোনো পার্থক্য থাকবে না।

বিএনপি’র সমালোচনা করে রেজাউল করিম বলেন, স্বামী হত্যার বিচার করেননি খালেদা জিয়া। মেজর জিয়াউর রহমান হত্যার পর একটি মামলা হয়েছিল। সে মামলার চার্জশিটে পুলিশ আসামি খুঁজে পায়নি বলে উল্লেখ করা হয়েছিল। কিন্তু সেটিই গ্রহণ করেছেন খালেদা জিয়া। পক্ষান্তরে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার চার্জশিট আমরা নারাজি দিয়েছি, বিচার করেছি।

সভায়, চট্টগ্রামের জলবদ্ধতা দূর করতে চলমান প্রকল্পগুলো আগে বাস্তবায়ন করার দাবি জানান কাউন্সিলর হাসান মুরাদ বিল্পব।

এ সময় সিডিএ চেয়ারম্যন আবদুচ ছালাম বলেন, চট্টগ্রামকে বাণিজ্যিক রাজধানী করার জন্য মহাপরিকল্পনা করেছি। প্রধানমন্ত্রী সব পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করছেন। চট্টগ্রামে ৫৭টি খাল রয়েছে। এর মধ্যে ৩৬টি খাল খননের পরিকল্পনা করেছি। ১১ খালের কাজ চলছে। ধীরে ধীরে সব খাল খনন করা হবে।

চট্টগ্রামের উন্নয়নে মহাপরিকল্পনার অংশ হিসেবে কয়েক হাজার কোটি টাকার কাজ হচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, জলবদ্ধতার অধিকাংশই মানবসৃষ্ট। মানুষকে সচেতন হতে হবে। যানজটমুক্ত চট্টগ্রাম করতে পরিকল্পনা করা হয়েছে। আগামীতে এর সফলতা আমরা পাব।

সিডিএ চেয়ারম্যানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল হক আমিন, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত সচিব শহিদুল্লাহ খন্দকার, সিডিএ সচিব তাহেরা ফেরদৌস, সিডিএ বোর্ড মেম্বার জসিম উদ্দিন, হাসান মুরাদ বিপ্লব, মো. শাহজাহান, মোস্তাফা জামাল প্রমুখ।