ঘুরে ফিরে আলোচনায় আরিফুল হক চৌধুরী

নূর আহমদ, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, সিলেট, বার্তা২৪.কম
সিলেট সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। ছবি: বার্তা২৪.কম

সিলেট সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

আবারো ঘুরে ফিরে আলোচনায় আরিফুল হক চৌধুরী। সিলেট সিটি করপোরেশনের এই মেয়রের বিরুদ্ধে এবার নগর ভবন নির্মাণ কাজের ১ কোটি ৫৮ লাখ টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ উঠেছে।

যদিও আরিফের বক্তব্য, সরকারের সকল এজেন্সিগুলো লাগিয়ে দিলেও অভিযোগের কোনো সত্যতা মিলবে না। তার মতে, নগর ভবন নির্মাণ কাজ শেষে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান বিধি মোতাবেক তাদের জামানতসহ সকল টাকা নিয়ে গেছে। তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ ‘দুরভিসন্ধিমূলক’।

মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাৎসহ দুর্নীতির অভিযোগ আনেন সঞ্জয় রায় নামের এক ঠিকাদার।

সামাজিক মাধ্যমে অভিযোগের বিষয়টি আলোচিত হলেও সর্বশেষ মঙ্গলবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে। সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে প্রদীপ্ত সিলেটবাসীর ব্যানারে এ বিষয়ে একটি মানববন্ধন পালিত হয়। এরপর থেকেই আরিফের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ এখন মানুষের মুখে মুখে। বিশেষ করে মানববন্ধনে প্রতীকী আত্মাহুতির হুমকিতে আলোচনায় ঝড় ওঠে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Feb/20/1550646528349.jpg

অভিযোগ করা হয়, ‘২০১৪ সালে সিলেট সিটি করপোরেশনে নগর ভবন নির্মাণের জন্য একটি ওয়ার্ক অর্ডার হয়। ১৬ কোটি ৮ লাখ টাকা মূল্যের ওয়ার্ক অর্ডারটি পায় মাহবুব ব্রাদার্স। মাহবুব ব্রাদার্স কাজটি সম্পাদনের জন্য ২০১৪ সালের ২৩ নভেম্বর তার মালিকানাধীন সম্পা-তপা এন্টারপ্রাইজের সঙ্গে চুক্তি করে। কাজ শেষের পর জামানতের ১ কোটি ৫৮ লাখ টাকা মেয়র আরিফ ভয়ভীতি দেখিয়ে আত্মসাৎ করেছেন।

এ বিষয়ে মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, ‘অভিযোগকারী সঞ্জয় রায় নামের ওই ব্যক্তি সিটি করপোরেশনের তালিকাভুক্ত কোনো ঠিকাদার নন। নগর ভবন নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান মাহবুব ব্রাদার্স কাজ শেষ হওয়ার পর তাদের সকল পাওনাসহ সরকারি বিধি অনুসারে জামানতের টাকাও নিয়ে যায়। মূল প্রতিষ্ঠানের কোনো অভিযোগ নেই, কিন্তু তৃতীয় একটি প্রতিষ্ঠানের অভিযোগ থেকেই বোঝা যায় বিষয়টি পরিকল্পিত।’

আরিফুল হক চৌধুরী আরও বলেন, ‘নগরীতে চলমান উন্নয়ন কর্মকাণ্ড বাধাগ্রস্ত করতেই একটি মহল তার ও পরিষদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে।’ এতে বিভ্রান্ত না হওয়ার আহ্বান জানান মেয়র।

উল্লেখ্য, গত বছরে আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী প্রার্থী সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরানকে হারিয়ে ২য় মেয়াদে মেয়র নির্বাচিত হন আরিফুল হক চৌধুরী। বরাবরই আলোচনা-সমালোচনায় সরব থাকেন আরিফ। নতুন মেয়াদে দায়িত্ব নেয়ার পর এবার এই প্রথম টাকা আত্মসাতের অভিযোগ ওঠে তার বিরুদ্ধে।

আপনার মতামত লিখুন :