মেয়রের উদ্যোগে পাল্টে গেল রামেক হাসপাতালের চেহারা

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, রাজশাহী, বার্তা২৪
আগাছা পরিষ্কার করা হচ্ছে, ছবি: বার্তা২৪

আগাছা পরিষ্কার করা হচ্ছে, ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের (রাসিক) মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের উদ্যোগে বিশেষ ক্রাশ প্রোগ্রাম শুরুর তিন দিনেই পাল্টে গেছে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) ও হাসপাতালের চিত্র।

চারপাশে আগাছা ও ময়লা-আবর্জনার স্তূপ। কলেজ ও হাসপাতাল চত্বর এবং ভবনগুলোর সামনে ছিল বিভিন্ন প্রকারের আগাছা। তবে মেয়রের উদ্যোগেই পাল্টে গেল হাসপাতালের চেহারা। হাসপাতালের ভেতরে এবং বাইরে এখন পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন ও ঝকঝকে পরিবেশ বিরাজ করছে। রামেক চত্বরও পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করা হয়েছে। সিটি মেয়রের এমন উদ্যোগে খুশি হাসপাতালে থাকা রোগী ও শিক্ষার্থীরা।

রাসিক প্যানেল মেয়র ১ ও ১২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এবং বর্জ্য ব্যবস্থাপনা স্থায়ী কমিটির সভাপতি সরিফুল ইসলাম বাবু জানান, সিটি করপোরেশনের ১শ ৭০ জন শ্রমিক টানা তিনদিন মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পরিচ্ছন্নতার কাজ করেছেন।

তিনি আরও জানান ‘শ্রমিকরা হাসপাতাল ও কলেজের সামনের চত্বর, হাসপাতালের আউটডোর, সব ওয়ার্ডের ভেতরে ও বাইরে, বিভিন্ন ভবনের আশপাশে, ছাত্রী হোস্টেলের ভেতরে ও সামনে ও পাশের চত্বরসহ সব চত্বর পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করেছেন। এতে করে একদিকে সৌন্দর্য্য বৃদ্ধি পেয়েছে, অন্যদিকে মশার বংশ বৃদ্ধি হ্রাস হচ্ছে।’

হাসপাতাল পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতায় স্বস্তি প্রকাশ করেছেন মেডিকেলে চিকিৎসা নিতে আসা রোগী ও তাদের স্বজনরা। তারা বলছেন, ‘দুই-তিন দিনের মধ্যেই হাসপাতালের দৃশ্যপটে আমূল পরিবর্তন হয়েছে। সিটি করপোরেশন হাসপাতালকে যে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন ও ঝকঝকে করেছে, তা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে ধরে রাখার আহ্বান জানিয়েছেন তারা।’

জানা যায়, ‘আসুন আমরা সবাই মিলে সবুজ, পরিচ্ছন্ন, পরিবেশবান্ধব ও বসবাসযোগ্য নগরী গড়ি’ স্লোগানকে সামনে রেখে গত ২৩ ফেব্রুয়ারি নগরী পরিচ্ছন্নকরণ ও মশা নিয়ন্ত্রণে ১৫ দিনব্যাপী বিশেষ ক্রাশ প্রোগ্রামের উদ্বোধন করেন রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। মহানগরীর ৩০টি ওয়ার্ডে এ কর্মসূচি চলমান রয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :