Alexa

পাকিস্তানের কাশ্মীরে হামলা জরুরি ছিল: ভারত

পাকিস্তানের কাশ্মীরে হামলা জরুরি ছিল: ভারত

ছবি: সংগৃহীত

পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের ‘জঙ্গি ঘাঁটি’তে হামলা চালানো অত্যন্ত প্রয়োজনীয় ছিল বলে দাবি করেছে ভারত। বাংলাদেশে অবস্থিত ভারতীয় হাইকমিশন থেকে মঙ্গলবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় গণমাধ্যমে পাঠানো দেশটির পররাষ্ট্র সচিবের এক বিবৃতিতে এমন মন্তব্য করা হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, গোয়েন্দা তথ্যে বলা হয়েছিল, জৈইশ ই মোহাম্মদ (জেইএম)-এর জঙ্গিরা ভারতের বিভিন্ন স্থানে আবারও আত্মঘাতী হামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে। এ লক্ষ্যে জঙ্গিরা প্রশিক্ষণও নিচ্ছে। এ অবস্থায় আসন্ন বিপদ মোকাবেলায় ভারতের ওই হামলা অত্যন্ত প্রয়োজনীয় হয়ে পড়েছিল।

‘ভারতের গোয়েন্দা সংস্থার নেতৃত্বে মঙ্গলবার ভোররাতে পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে জেইএম-এর সবচেয়ে বড় প্রশিক্ষণ ক্যাম্প বালাকোটে হামলা চালানো হয়। এতে সংগঠনটির অসংখ্য প্রশিক্ষক, জিহাদী, সিনিয়র কমান্ডার, সন্ত্রাসী ও প্রশিক্ষণার্থী হতাহত হয়। এই প্রশিক্ষণ ক্যাম্প মাওলানা ইউসুফ আজহার ওরফে ওস্তাদ ঘৌরী এবং তার শ্যালক জেইএম-এর প্রধান মাসুদ আজহার পরিচালনা করতো।’

জাতিসংঘের দ্বারা নিষিদ্ধ ঘোষিত এই সংগঠন অনেকগুলো ভয়াবহ সিরিজ হামলা চালিয়েছে উল্লেখ করে বিবৃতিতে বলা হয়, এই সংগঠনের ব্যাপারে পাকিস্তানকে বারবার সতর্ক করা হলেও দেশটির সরকার কর্ণপাত করেনি। বরং জেইএম-এর অস্তিত্বকে অস্বীকার করেছে পাকিস্তান। দেশটির সরকারকে পাশ কাটিয়ে এত বিপুল পরিমাণ জঙ্গি তৎপরতা চালানো সম্ভব নয়। ভারত এ ব্যাপারে পাকিস্তানকে বারবার সতর্ক করে আসলেও পাক সরকার কার্যকর কোনো উদ্যোগ নেয়নি।

সন্ত্রাস দমনে ভারতের সরকার কঠোর ও দৃঢ়ভাবে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ উল্লেখ করে বিবৃতিতে বলা হয়, অসামরিক এই হামলা জেইএম ক্যাম্পকে লক্ষ্য করে চালানো হয়। এই হামলা বেসামরিক মানুষকে রক্ষা করেই চালানো হয়। স্থানীয় ঘন বন ও পাহাড়ের চূড়া, যেখানে সাধারণ মানুষের বসবাস ছিল না, সেখানেই হামলা চালানো হয়।

বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, ভারতের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী তৎপরতা নিয়ন্ত্রণে ২০০৪ সালের জানুয়ারিতে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিজ্ঞা করেছিল পাকিস্তান। আমরা আশা করছি, সেই প্রতিশ্রুতি রক্ষা করে, জেইএমসহ অন্য সন্ত্রাসী বাহিনী ধ্বংস করতে পরবর্তী পদক্ষেপ নেবে পাকিস্তান।

আপনার মতামত লিখুন :