Alexa

রেজিস্ট্রি অফিসে দুর্নীতি চক্র ভেঙে দেওয়ার নির্দেশ আইনমন্ত্রীর

রেজিস্ট্রি অফিসে দুর্নীতি চক্র ভেঙে দেওয়ার নির্দেশ আইনমন্ত্রীর

মতবিনিময় সভায় বক্তব্য দেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক / ছবি: বার্তা২৪

সাব-রেজিস্ট্রি ও জেলা রেজিস্ট্রি অফিসগুলোতে দুর্নীতির দুষ্ট চক্র ভেঙে ফেলার নির্দেশ দিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

তিনি বলেছেন, ‘আপনারা মাঠ পর্যায়ে চাকরি করেন। আমি সেখানে চাকরি করি না। তাই দুর্নীতির সিন্ডিকেট ভাঙতে অবশ্যই আপনাদেরকে পদক্ষেপ নিতে হবে। এতে প্রতিবন্ধকতা এলে আমি সহযোগিতা করব।’

রোববার (৩ মার্চ) রাজধানীতে বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে নিবন্ধন অধিদফতরে আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন। স্বচ্ছতা ও জনবান্ধব পরিসেবা নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে এ মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়।
আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা কেন এই মানষিকতা তৈরি করতে পারব না যে, আমরা ঘুষ খাব না, আমরা সততার সঙ্গে কাজ করব এবং জনগণকে যথার্থ সেবা দিব। এটি কঠিন কাজ নয়। আপনারা আমাকে এ কাজ করে দেখান আমি আপনাদের আনুষঙ্গিক প্রটেকশন এবং প্রিভিলেজ দিব।’

তিনি বলেন, ‘জনগণের দাবি দুর্নীতির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। এ দাবী কেন? ২৬ বছর জিয়াউর রহমান, এরশাদ ও খালেদা জিয়া এই দেশ চালিয়েছেন। জনগণের অবস্থা হয়েছিল গরীব থেকে গরীবতর। তখন যারা সরকার চালিয়েছে তারা ছেড়া গেঞ্জি থেকে রাজ প্রাসাদ বানিয়েছে। কিন্তু শেখ হাসিনার সরকার যে উন্নয়ন করেছে সেটা সব মানুষের কাছে পৌঁছিয়েছি। এই পৌঁছানোর কারণে আজকে মানুষের প্রয়োজন একটা সুস্থ সমাজ। সুস্থ সমাজ করতে গেলে যেটা হয়, সেটা হচ্ছে দুর্নীতিমুক্ত সমাজ। সে জন্যই সাব-রেজিস্ট্রি অফিস থেকে মানুষের চাহিদা অনেক বেড়ে গেছে।’

আনিসুল হক বলেন, ‘আপনাদের সম্মান যত বৃদ্ধি করা হবে মানুষের চাহিদা কিন্তু ততই বাড়বে। এই চাহিদা পূরণ করা এবং এই সম্মান বজায় রাখতে গেলে আপনাদের সকলকে দুর্নীতিমুক্ত হতেই হবে। আর আপনারা সৎ ও দুর্নীতিমুক্ত থাকলে কেউ আপনাদের হয়রানি করতে পারবে না।’

সাব-রেজিস্ট্রারদের ও জেলা রেজিস্ট্রারদের সৎ থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘জননেত্রী শেখ হাসিনা আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করতে চান। তিনি তাঁর বাবা-মা ও ভাইদের হত্যাকাণ্ডের পর ২১ বছর বিচার পাননি। ১৪ বছর মামলা চালিয়ে সেই বিচার আদায় করেছেন।’

মন্ত্রী বলেন, ‘নিবন্ধন পরিদফতরকে অধিদফতরে উন্নীত করা হয়েছে। জেলা রেজিস্ট্রারদের গাড়ি প্রদানের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে, নতুন সাব-রেজিস্ট্রি অফিস ভবন নির্মাণ করা হয়েছে। অফিসগুলোর ক্যাটাগরি পুনর্বিন্যাশ করা হয়েছে। বদলির ক্ষেত্রে শৃঙ্খলা ফিরে আনা হয়েছে। কর্মচারীদের বেতন-ভাতা প্রায় শতভাগ বৃদ্ধি করা হয়েছে। নকল নবীশদের পারিশ্রমিক বৃদ্ধি করা হয়েছে প্রয়োজনে আরও বৃদ্ধি করা হবে। তারা যাতে প্রতিমাসে পারিশ্রমিক পান সে ব্যবস্থাও করা হয়েছে। শূন্যপদে ১৫০জন সাব-রেজিস্ট্রার নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।’

নিবন্ধন অধিদফতরের মহাপরিদর্শক খান মো. আব্দুল মান্নানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন- লজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগের সিনিয়র সচিব মোহাম্মদ শহিদুল হক, আইন ও বিচার বিভাগের সচিব আবু সালেহ শেখ মো. জহিরুল হক, যুগ্ম সচিব বিকাশ কুমার সাহা।

আপনার মতামত লিখুন :