Barta24

মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯, ৩১ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

তিন কোটি টাকার স্বর্ণসহ দুই চীনা আটক

তিন কোটি টাকার স্বর্ণসহ দুই চীনা আটক
রাজধানীর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর। ছবি: সংগৃহীত
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
ঢাকা
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

রাজধানীর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে দুই চীনা যাত্রীর কাছে থেকে তিন কোটি টাকা মূল্যের মোট ৪৮টি স্বর্ণের বার উদ্ধার করেছে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর।

বুধবার (১৩ মার্চ) ঢাকা কাস্টমস হাউজের কমিশনার অথেলা চৌধুরী বার্তা২৪.কমকে এ বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, সকাল ৯টার দিকে শারজাহ থেকে আগত ফ্লাইট নং-জি ৯৫১৭ এর চীনের দুই যাত্রীকে গোপনে অনুসরণ করেন প্রিভেন্টিভ দলের সদস্যরা। পরবর্তীতে গ্রিন চ্যানেল অতিক্রমের পরে তাদের কাছে শুল্ক-কর আরোপযোগ্য কোনো পণ্য থাকার বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে তারা অস্বীকার করেন।

পরে, ওই দুই যাত্রীর সঙ্গে থাকা লাগেজগুলো স্ক্যানে দেওয়া হলে তার মধ্যে ধাতব পদার্থের ইমেজ পাওয়া যায়। এ সময় তাদের ব্যাগ খুলে একই ধরনের এবং ‘জিপাস’ ব্র্যান্ডের দুটি ‘সোলার হোম সিস্টেম’ পাওয়া যায়। এগুলোর মধ্যে থাকা ব্যাটারি খুলে ১০ তোলা ওজনের ২৪টি করে মোট ৪৮টি স্বর্ণের বার পাওয়া যায়। যার দাম ২ কোটি ৭৯ লাখ টাকা।

এ সময় চীনের এই দুই নাগরিককে আটক করা হয়। তারা হলেন- হুবাইয়ের মিস্টার সিন জিফা (২৯) ও মিস্টার ডিং শোসিনগ (৩৫)।

এ ঘটনায় দ্য কাস্টমস অ্যাক্ট, ১৯৬৯ ও স্পেশাল পাওয়ার অ্যাক্ট ১৯৭৪ অনুযায়ী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করে উভয় যাত্রীকে বিমানবন্দর থানায় সোপর্দ করা হয়েছে বলেও জানান অথেলা চৌধুরী।

আপনার মতামত লিখুন :

রংপুরেই এরশাদের দাফন চান সাবেক স্ত্রী বিদিশা

রংপুরেই এরশাদের দাফন চান সাবেক স্ত্রী বিদিশা
হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সাবেক স্ত্রী বিদিশা সিদ্দিক, ছবি: সংগৃহীত

রংপুরবাসীর মতো সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের দাফন রংপুরেই চান তার সাবেক স্ত্রী বিদিশা সিদ্দিক।

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) ফেসবুক স্ট্যাটাসে তিনি এ মন্তব্য করেন।

ফেসবুক স্ট্যাটাসে তিনি লেখেন, 'আমিও তাই চাই, লাখ লাখ নেতাকর্মীদের মতো রংপুরের মাটি যেন হয় এরশাদের শেষ ঠিকানা। সহধর্মিণী থাকতে বহুবার পল্লী নিবাসের বারান্দায় ছেলে এরিককে কোলে বসিয়ে উনি আমাকে বলেছিলেন, তুমি আমার ছোট, দেখ আমার মৃত্যু ও যেন আমার ছেলের কাছে থেকে দূরে না রাখে। আমার কবর আমি এই পল্লী নিবাসে চাই। রংপুরের মানুষের ভালোবাসা প্রতিদান আমি দিতে পারিনি আজও। রংপুরের মানুষ আমার কবরে এসে দোয়া করবে এটাই আমার চাওয়া। প্রতিবার এই কথাটি বলতেন তিনি এরিকের দিকে তাকিয়ে, ভিজে চোখে।'

এর আগে রোববার ১৪ জুলাই রোববার হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের মৃত্যুর পর আজমির শরিফে থাকা বিদিশা এরশাদ ফেসবুকে আবেগঘন এক স্ট্যাটাস দেন। সেখানে বিদিশা এরশাদ লিখেছেন, 'এ জন্মে আর দেখা হলো না। আমিও আজমির শরিফ আসলাম, আর তুমিও চলে গেলে। এত কষ্ট পাওয়ার থেকে মনে হয় এই ভালো ছিল। আবার দেখা হবে হয়তো অন্য এক দুনিয়াতে, যেখানে থাকবে না কোনো রাজনীতি।'

সাবেক সেনা প্রধান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সাবেক স্ত্রী বিদিশা আজ সকালে আজমির শরিফ থেকে দেশে ফিরেন। তিনি সকালে এরশাদের মরদেহ দেখতে এবং ছেলে এরিকের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে প্রেসিডেন্ট পার্কে গিয়ে বাধার মুখে বাসার গেট থেকে ফিরে আসেন বলে অভিযোগ করেছেন।

উল্লেখ্য, রোববার (১৪ জুলাই) সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদের মৃত্যুর পর তার মরদেহ দাফন জটিলতা তৈরি হয়। ঢাকার নেতারা চাইছেন এরশাদের দাফন হোক সেনা কবরস্থানে। বিপরীতে রংপুরের নেতাকর্মীরা চাইছেন, রংপুরেই হোক এরশাদের শেষ সমাধি।

ফকিরাপুল থেকে বায়িং হাউজের কর্মকর্তা নিখোঁজ

ফকিরাপুল থেকে বায়িং হাউজের কর্মকর্তা নিখোঁজ
নিখোঁজ আব্দুল ছবুর খান

রাজধানীর ফকিরাপুল থেকে আব্দুল ছবুর খান (৩২) নামে বায়িং হাউজের এক কর্মকর্তা নিখোঁজ হয়েছেন। এ ব্যাপারে সোমবার (১৫ জুলাই) মতিঝিল থানায় আব্দুল ছবুর খানের পরিবারের পক্ষ থেকে সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়ছে।

নিখোঁজ ব্যক্তির চাচাতো ভাই ইমদাদুল হক জানান, বায়িং হাউজে চাকরির কারণে বিভিন্ন জায়গায় যাতায়াত করতেন ছবুর খান। গত ১৪ জুলাই দুপুরের খাবার শেষে বাসা থেকে ফকিরাপুলের উদ্দেশে বের হন তিনি। ওই দিন রাত সাড়ে ১০টার দিকে তার স্ত্রীর সঙ্গে সবশেষ কথা হয়। তারপর থেকে তার ফোন বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করেও ছবুর খানের কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি।

ছবুর খানের গায়ের রং শ্যামলা, উচ্চতা ৫ ফিট ৩ ইঞ্চি, মাথার চুল ছোট করে ছাঁটা। হারিয়ে যাওয়ার সময় তার পরনে ছিল ফুল হাতার চেক শার্ট, জিন্স প্যান্ট ও সাদাকালো জুতা। তার কপালে হালকা দাগ রয়েছে বলে জানান ইমদাদুল হক।

নিখোঁজ আব্দুল ছবুর খান (৩৬) ঝিনাইদহ জেলার কোটচাঁদপুরের লক্ষ্মীকুণ্ডের মৃত আব্দুল খালেক খানের পুত্র। তিনি পরিবারের সঙ্গে মিরপুরের পল্লবীর কালশীর ‘বি’ ব্লকে ৪ নম্বর রোডের ৬১/১ নম্বর বাসায় থাকতেন।

জিডির বিষয়টি নিশ্চিত করে মতিঝিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওমর ফারুক বলেন, আমরা বিষয়টি তদন্ত করে দেখছি। নিখোঁজ ব্যক্তিকে খুঁজে পাওয়ার জন্য কাজ করছি।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র