বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন পালন না করে স্কুলে নিয়মিত পাঠদান

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, খুলনা, বার্তা২৪.কম
এই স্কুলটিতে প্রতিদিনের মতো হয়েছে ক্লাস, হয়নি বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কোন কর্মসূচি, ছবি: বার্তা২৪

এই স্কুলটিতে প্রতিদিনের মতো হয়েছে ক্লাস, হয়নি বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কোন কর্মসূচি, ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবসের কোন কর্মসূচি পালন করেনি খুলনার খালিশপুরের রোটারী স্কুল।

রোববার (১৭ মার্চ) অন্যদিনের ন্যায় পাঠদান কার্যক্রম করেছেন শিক্ষকরা। এতে জাতীয় দিবসটিকে অবজ্ঞা ও নতুন প্রজন্মকে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি সম্পর্কে জানা থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে বলে অভিযোগ অভিভাবকদের।

শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা জানান, স্কুলে জাতীয় শিশু দিবসের কর্মসূচি হবে সেটাই আশা করেছিল শিক্ষার্থীরা। সে জন্য অনেকেই বই-খাতা ছাড়াই স্কুলে আসে। যদিও স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোঃ আশরাফুল ইসলামের বরাত দিয়ে প্রধান শিক্ষক ঘোষণা দিয়েছিলেন যথারীতি ক্লাস হবে। সে অনুযায়ীই স্কুলে কোন ধরনের কর্মসূচি পালন না করেই অন্যদিনের মতোই পাঠদান করেছেন শিক্ষকরা।

১৭ মার্চ মহান স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস যথাযথভাবে পালনের জন্য সরকারি নির্দেশনা রয়েছে। এর প্রেক্ষিতে উপজেলা প্রশাসন, বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে কেক কাটা, আলোচনা সভাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে। কিন্তু এর ব্যতিক্রম ছিল খালিশপুরের রোটারী স্কুলটি।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে রোটারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক লুবনা আরা বলেন, 'জাতীয় শিশু দিবসের কোন কর্মসূচি পালন করতে পারিনি। যথারীতি ক্লাস হয়েছে।' এর বেশি কিছু বলতে অপারগতা প্রকাশ করে স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোঃ আশরাফুল ইসলামের সাথে কথা বলতে বলেন।

এ সম্পর্কে জানতে রোটারী স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও নগর আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ আশরাফুল ইসলামের ব্যবহৃত মোবাইলে একাধিকবার কল করলেও তিনি রিসিভ করেননি।

মাধ্যমিক উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের খুলনা বিভাগীয় পরিচালক প্রফেসর মোঃ হারুনুর রশিদ বলেন, সরকারি নির্দেশনা অনুসারে-একাডেমিক কার্যক্রম বন্ধ রেখে এ দিনটিতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের উপরে আলোচনা সভা, মিলাদ মাহফিল, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা এ ধরণের কর্মসূচি পালন করা বাধ্যতামূলক। রোটারী স্কুলে যদি একাডেমিক কার্যক্রম চালিয়ে থাকেন- তবে তা অবশ্যই ঠিক করেননি। দেখি আমি স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সাথে কথা বলছি। অভিযোগ প্রমাণিত হলে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

আপনার মতামত লিখুন :