Barta24

বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯, ১২ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

‘ইনোভেশন মানে ডিজিটালে আটকে যাবেন না’

‘ইনোভেশন মানে ডিজিটালে আটকে যাবেন না’
ছবি: বার্তা২৪
স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ ও জ্বালানি বিষয়ক উপদেষ্টা তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী বলেছেন, ‘ইনোভেশন মানে ডিজিটালে আটকে যাবেন না। কতগুলো গেজেটের ব্যবহার বাড়ালেই চলবে না। মানুষের কল্যাণে যদি না আসে সেই উদ্ভাবনের প্রয়োজন নেই।’

বুধবার (১০ এপ্রিল) বিদ্যুৎ ভবনে ইনোভেশন শোকেসিং-২০১৯ এর সমাপনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর সমস্ত ফোকাস কিন্তু সাধারণ জনগণের কল্যাণে। এমন কোনো উদ্ভাবনের প্রয়োজন নেই যাতে মানুষের কল্যাণ নেই।’

বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, ‘প্রযুক্তি মানে কি, সেভ এনার্জি, সেভ মানি। প্রযুক্তি কিন্তু থেমে নেই, প্রতিমুহূর্তে এগিয়ে যাচ্ছে। আমাদেরকে প্রযুক্তির সঙ্গে মানিয়ে নিতে হবে। না হলে পিছিয়ে পড়ব।’

তিনি বলেন, ‘আমি দেখতে চাই তেল যখন ঢুকল তখন কত দাম পড়ছে। কতজন বিদ্যুতের সংযোগ চেয়ে বসে আছে ড্যাশবোর্ডে দেখতে চাই। অনলাইনে আবেদন করে পরে অফলাইন হয়ে যায়। পরে আবেদন হারিয়ে যায়। অনলাইন মানে পুরোপুরি অনলাইন হতে হবে।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘একমাত্র বিদ্যুৎ বিভাগ কয়েক বছর ধরে ইনোভেশিং নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। আপনারা ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে পড়েছেন। আপনাদের আরও ভালো আইডিয়া থাকতে হবে। ভবিষ্যতে আরও দ্রুত কিছু কাজ পেপার লেস করার চেষ্টা করতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘রাজধানীর বিদ্যুতের খুঁটিতে দুনিয়ার তার ঝুলছে। দুই-তিন বছর আগে আমরা কাজ শুরু করি। একটি অপটিক্যাল ফাইবার করার জন্য। অলরেডি আন্ডারগ্রাউন্ড হয়ে গেছে। বিতরণ কোম্পানিগুলো যদি বলত তাহলে কিন্তু এসব তার ঝুলত না। আইসিটি একটি উদ্যোগ নিয়েছে, তারা সারাদেশে ইন্টারনেট সেবা সম্প্রসারণ করবে। তার কাটা পড়বে কতোকিছু হবে। এখানে আরইবির সঙ্গে কাজ করতে পারে। তাহলে আরইবির খুঁটি দিয়ে প্রতি ঘরে ঘরে নেটের সেবা পৌঁছে দিতে পারে। এতে আরইবির বাড়তি আয় হলো। আবার আইসিটির সেবা নিরাপদ হলো। এটা আরইবির লোকজন ভেবে দেখতে পারে।’

বিদ্যুৎ বিভাগের সিনিয়র সচিব ড. আহমেদ কায়কাউস বলেন, ‘গ্লোবালি একটা পারসেপশন রয়েছে ইনোভেশন মানেই আইসিটি। আমার মনে হচ্ছে বাস্তব জীবনের সমস্যা সমাধানে নতুন নতুন কৌশলের প্রয়োগও বড় উদ্ভাবন। ঢাকা শহরে উবার নাকি পাঠাও বেশি চলে? আমার মনে হয় পাঠাও বেশি চলে। কারণ এটা বাস্তবতার নিরিখে খুবই যুক্তিসঙ্গত। দ্রুত সময়ে পৌঁছে দিচ্ছে। সে কারণে সবকিছু বাস্তবতার নিরিখে হতে হবে।’

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সিনিয়র সচিব ( সমন্বয় ও সংস্কার) ড. মো. শামসুল আরেফিন বলেন, ‘এক সময় মানুষ নানা ভোগান্তির শিকার হতো। এখন মানুষ ঘরে বসেই সেবা পাচ্ছে। আরও কিভাবে সেবা সহজলভ্য করা যায় সে বিষয়ে সবার উদ্ভাবনী মনোভাব থাকতে হবে।’

এটুআই প্রকল্পের পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘উদ্ভাবনী কাজের জন্য এখন আর কোনো আর্থিক সংকট নেই। অনেক অর্থ পড়ে আছে চাওয়ার লোক নেই। আমার মনে হয় মন্ত্রণালয়গুলো টাকা চাইলেই তাদের উদ্ভাবনী চিন্তার বিকাশে সহায়তা পেতে পারেন।’

দ্বিতীয়বারের মতো অনুষ্ঠিত হওয়া ইনোভেশন শোকেসিং-২০১৯ এ বিদ্যুৎ খাতের ১১টি প্রতিষ্ঠানের ২৫টি আইডিয়া প্রদর্শিত হয়। এই আয়োজনের প্রধান উদ্দেশ্য হচ্ছে কোম্পানিগুলোকে আরও উদ্ভাবনী ভাবনায় পরিচালিত করা। এতে পুরস্কারের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে যাতে করে কোম্পানিগুলোর মধ্যে প্রতিযোগিতার মনোভাব সৃষ্টির মাধ্যমে উৎসাহি হয়। একই সঙ্গে সবাইকে একই ছাদের নিচে এনে শেয়ারিংয়ের মাধ্যমে একে অপরকে সমৃদ্ধ করা। ২০১৮ সালে প্রথমবার এমন আয়োজন করা হয়।

আপনার মতামত লিখুন :

টাইপিং মিসটেকে ভুল চিঠি দেয়া হয়েছে: দুদক প‌রিচালক

টাইপিং মিসটেকে ভুল চিঠি দেয়া হয়েছে: দুদক প‌রিচালক
দুদক প‌রিচালক ফানাফিল্যার সাংবাদিকদের সঙ্গে ব্রিফিংয়ের সময়কার ছবি

বরখাস্ত হওয়া পুলিশের ডিআইজি মিজানুর রহমান মিজান ও বরখাস্ত হওয়া দুদকের পরিচালক খন্দকার এনামুল বাছিরের সঙ্গে ফোনালাপের ঘটনা তদন্তে সাক্ষ্যগ্রহণে দুই সাংবা‌দিক‌কে সাক্ষী ও দু'ধর‌নের ‌নো‌টিশ দেওয়ার বিষ‌য়ে জান‌তে চাই‌ল দুর্নী‌তি দমন ক‌মিশন (দুদক) প‌রিচালক শেখ মো. ফানাফিল্যাকে বার্তা২৪.কম‌কে ব‌লে‌ছেন, আমরা দুজন সাংবা‌দিক‌কে দুধর‌নের চি‌ঠি দি‌য়ে‌ছি। টাই‌পিং মি‌স্টে‌কের কার‌ণে চি‌ঠি দু রকম হ‌য়ে‌ছে। দিপু সা‌রোয়ার‌কে পাঠা‌নো নো‌টিশ‌টিই স‌ঠিক।’

বুধবার (২৬ জুন) ‌ফো‌নে বার্তা২৪.কম‌কে এসব কথা ব‌লেন তি‌নি।

‌তি‌নি ব‌লেন, ‘তি‌নি‌তো (সাংবা‌দিকরা) অভি‌যোগকারী না, সাক্ষী। তাকে স্বাক্ষ্য দেওয়ার জন্য ডাকা হ‌য়ে‌ছে। তিনি শুধু বল‌বেন, হ্যাঁ আমি রি‌পোর্টটা ক‌রে‌ছি। তাছাড়া আমা‌দের আর কোনো তথ্য জানার থাক‌লে তার কা‌ছে জান‌তে চাইব। তি‌নি য‌দি না আসেন তাহ‌লে তার কিছুই হ‌বে না। কতজন সাক্ষী আমরা ডে‌কে থা‌কি। তারাতো সবাই আসেন না। তা‌দের বিরু‌দ্ধে কী কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হ‌য়ে‌ছে কখনও? না আস‌লে স‌র্বোচ্চ আমরা তার অথোরি‌টি‌কে জানা‌তে পা‌রি যে, তা‌কে ডে‌কে ছিলাম সে আসেন নাই। এ ছাড়া আর কিছু না। আইনানুক ব্যবস্থা নেওয়ার বিষয়টা শুধুই ফরমালি‌টি।’

আরও পড়ুন: সাংবা‌দিক‌কে নো‌টিশ পাঠা‌নো দুদক কর্মকর্তা‌কে শোকজ

চি‌ঠিদু‌টো থে‌কে জানা যায়, সাংবা‌দিক‌দের কা‌ছে পাঠা‌নো চি‌ঠি‌তে দুদক বানানটিও ভুল লিখে‌ছেন তারা। চি‌ঠি‌তে দুদককে 'দদক' বা‌নি‌য়ে 'দর্নী‌তি দমন ক‌মিশন' হি‌সে‌বে লে‌খা হ‌য়ে‌ছে।

দুদক সূত্রে জানা যায়, দুদক প‌রিচালক শেখ ফানাফিল্যার নেতৃ‌ত্বে গ‌ঠিত ডিআইজি মিজান ও দুদক প‌রিচাল‌ক এনামুল বা‌ছি‌রের ঘুষ লেন‌দেনের ঘটনায় গ‌ঠিত তিন সদস্যের টিমটি‌তে অনুসন্ধানের দায়িত্ব পালনকারী অপর সদস্যরা হ‌লেন দুদকের সহকারী পরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধান ও সালাহউদ্দিন আহমেদ।

জানা যায়, দুদক পরিচালক ফানাফিল্যার স্বাক্ষরিত চিঠিতে এটিএন নিউজের প্রতিবেদক আরিফ সুমন এবং বাংলা ট্রিবিউনের বিশেষ প্রতিনিধি দিপু সারোয়ারকে দুদকে হাজির হয়ে সাক্ষী দি‌তে বলা হয়েছে। দিপু সারোয়ারের কা‌ছে দুদকের পাঠা‌নো চিঠিতে বলা হয়েছে, ‘সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য দুদকে হাজির না হলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।’ যা অপর সাংবা‌দি‌কের কা‌ছে পাঠা‌নো চি‌ঠি‌তে উল্লেখ নেই।

আরও পড়ুন: দুদক কার্যালয়ের সামনে সাংবাদিকদের বিক্ষোভ

এ বিষ‌য়ে  সাংবা‌দিক দিপু সা‌রোয়ার সাংবা‌দিক‌দের ব‌লেন, ‘আমার অনুসন্ধা‌নি প্র‌তি‌বেদ‌নে ‌কোনো ধর‌ণের মিথ্যা বা উদ্দেশ্যমূলক কিছু নেই। য‌দি এ ধর‌নের কোনো তথ্য থা‌কে তাহ‌লে যার বিরু‌দ্ধে অভিযোগ বা যা‌কে নি‌য়ে অভিযোগ সে প্রথমে আমার প‌ত্রিকায় প্র‌তিবাদ পাঠা‌তে পা‌রেন। কিন্তু তারা এটা না ক‌রে আমার বিরু‌দ্ধে সরাস‌রি আইনি ব্যবস্থা নে‌বে এমন কথা ব‌লে‌ছে। যে তথ্য প্রমাণ পে‌য়ে পু‌লিশ ও দুদ‌কের দুই কর্মকর্তা‌কে বরখাস্ত করা হ‌লো সে তথ্য দেওয়ার কার‌ণে একজন রি‌পোর্টারকে আইনের আওতায় আনার অধিকার তারা রা‌খেন না। তা‌দের চি‌ঠি দে‌খে ম‌নে হ‌চ্ছে তারা আমার প্র‌তি সমন জা‌রি ক‌রে‌ছে। আমি কী তাহ‌লে দুর্নী‌তি তু‌লে ধ‌রে ভুল ক‌রে‌ছি?’

এটিএন নিউজ এর সাংবা‌দিক ইমরান হো‌সেন সুমন বার্তা২৪.কম‌কে ব‌লেন, ‘আমি তা‌দের‌কে কী সাক্ষী দেবো? আমার সাক্ষী আমার প্র‌তি‌বেদ‌নে ‌দেওয়া আছে। তারা আমার কা‌ছে সহ‌যো‌গিতা চাইতে পা‌রে। আমি তা‌দের কা‌ছে যে‌তে বাধ্য নই।’

এদিকে, সাংবা‌দিক‌দের বিরু‌দ্ধে এমন বি‌ত‌র্কিত বক্তব্যে ক্ষে‌পে উঠেছে সাংবা‌দিক সমাজ। প্র‌তিবা‌দে দুদ‌কের সাম‌নে প্র‌তিবাদ ও বি‌ক্ষোভ সমা‌বেশ ক‌রে‌ছেন বি‌ভিন্ন গণমাধ্যমকর্মীরা।

'মাদকাসক্তি দূর করতে পরিবারকে সচেতন হতে হবে'

'মাদকাসক্তি দূর করতে পরিবারকে সচেতন হতে হবে'
ছবি: বার্তা২৪.কম

মাদকমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে সকলকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন ময়মনসিংহের বিভাগীয় কমিশনার মাহমুদ হাসান।

তিনি বলেন, ‘সমাজ ধ্বংসের জন্য একজন মাদকাসক্ত ব্যক্তিই যথেষ্ট। মাদকাসক্তি দূর করতে হলে পরিবারকে সচেতন হতে হবে। পাশাপাশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদেরও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে হবে।’

বুধবার (২৬ জুন) দুপুরে মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচার বিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন বিভাগীয় কমিশনার।

দিবসটি উপলক্ষে নগরীর টাউনহলস্থ অ্যাডভোকেট তারেক স্মৃতি অডিটোরিয়ামে জেলা প্রশাসন ও জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের আয়োজনে এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- ময়মনসিংহ রেঞ্জ ডিআইজি নিবাস চন্দ্র মাঝি, র‍্যাব-১৪'র সিইও লে. কর্নেল এফতেখার উদ্দিন, আনন্দমোহন কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর নারায়ণ চন্দ্র ভৌমিক প্রমুখ।

আলোচনা সভায় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকেরা অংশ নেন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র