Barta24

বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯, ৬ ভাদ্র ১৪২৬

English

শিক্ষক থাকা সত্ত্বেও নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

শিক্ষক থাকা সত্ত্বেও নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ
পাঠক শিকড় বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। ছবি: বার্তা২৪.কম
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
রংপুর
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

সহকারী প্রধান শিক্ষক থাকার পরও নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে বিতর্কের জন্ম দিয়েছে রংপুরের একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির কারো সঙ্গে আলোচনা না করেই গোপনে এই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেন।

এ ঘটনায় সাধারণ শিক্ষকদের পাশাপাশি ক্ষোভ ও বিস্ময় প্রকাশ করেছেন ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি। ব্যক্তিগত স্বার্থে এ ধরনের কাজ গোপনে করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে।

রংপুরের পীরগাছা উপজেলার পাঠক শিকড় বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে এ ঘটনাটি ঘটেছে। নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের বিষয়টি এতো দিন চাপা থাকলেও সোমবার (২২ এপ্রিল) সকালে তা ফাঁস হয়ে যায়।

অভিযোগ পাওয়া গেছে, পাঠক শিকড় বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে সহকারী প্রধান শিক্ষক নিয়োগের জন্য গত ১২ এপ্রিল একটি দৈনিকে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। সাধারণত শিক্ষক নিয়োগের বিষয়ে ম্যানেজিং কমিটির সিদ্ধান্তক্রমে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। কিন্তু ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিধান চন্দ্র রায় কারও সঙ্গে আলোচনা করেননি।

এরআগে প্রধান শিক্ষক বিধান চন্দ্র রায় ম্যানেজিং কমিটিকে না জানিয়ে কম্পিউটার বিষয়ে বিপুল চন্দ্র নামে একজনকে সহকারী শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেন। সর্বশেষ এমপিওর তালিকা দেখে নিয়োগের বিষয়টি নজরে আসে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতিসহ সকলের। বর্তমানে অবৈধভাবে নিয়োগ হওয়ায় ওই শিক্ষকের বেতন ভাতা বন্ধ রয়েছে।

এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি এমদাদুল হক বলেন, ‘প্রধান শিক্ষক ম্যানেজিং কমিটি ছাড়াই অবৈধভাবে একজন শিক্ষক নিয়োগ দিয়েছেন। আমি সংশ্লিষ্ট একাধিক দপ্তরে তিন মাস আগে অভিযোগ করেছি। কিন্তু কর্তৃপক্ষ এখনো অভিযোগের তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। এরই মধ্যে প্রধান শিক্ষক আবারো সহকারী প্রধান শিক্ষক থাকা সত্ত্বেও ওই পদে শিক্ষক নিয়োগের জন্য গোপনে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘কম্পিউটার বিষয়ে ম্যানেজিং কমিটি ছাড়াই অবৈধভাবে শিক্ষক নিয়োগের বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হলে প্রধান শিক্ষক নতুন করে অনিয়ম করার সুযোগ পেতেন না। আমরা তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি। অন্যথায় বিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম বিঘ্নিত হতে পারে।’

এদিকে প্রধান শিক্ষক বিধান চন্দ্র রায়ের সঙ্গে কথা বলার জন্য তার মোবাইলে কয়েকবার ফোন করেও পাওয়া যায়নি।

এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সৈয়দ সুজা মিয়া জানান, নিয়ম বহির্ভূতভাবে শিক্ষক নিয়োগ ও বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

আপনার মতামত লিখুন :

গ্রেনেড হামলার মাস্টার মাইন্ডদের সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি

গ্রেনেড হামলার মাস্টার মাইন্ডদের সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি
গ্রেনেড হামলায় আত্মার মাগফেরাত ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু কামনায় দোয়া, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার ঘটনায় জড়িতদের ফাঁসির রায় দ্রুত কার্যকর এবং মাস্টার মাইন্ডদের বিচারের আওতায় এনে সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানিয়েছেন ময়মনসিংহ মহানগর আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা।

বুধবার (২১ আগস্ট) সন্ধ্যায় নগরীর শিববাড়ি রোডস্থ দলীয় কার্যালয়ে মহানগর আওয়ামী লীগের আয়োজনে এক প্রতিবাদ সভায় এ দাবি জানানো হয়।

ময়মনসিংহ মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নাজমা ইসলামের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মোহিত-উর-রহমান শান্ত'র সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন- ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনের মেয়র ও মহানগর আ'লীগের সহ-সভাপতি মো. ইকরামুল হক টিটু।

এতে সংগঠনের সহ-সভাপতি হোসাইন জিল্লু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হোসাইন জাহাঙ্গীর বাবুসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা বক্তব্য রাখেন।

প্রতিবাদ সভায় বক্তারা বলেন, 'বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে হত্যার মাধ্যমে আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বশূন্য করতেই দানবীয় এ হত্যাযজ্ঞ চালানো হয়েছিল। তবে আল্লাহর অশেষ রহমতে পরিকল্পিত সে হামলায় মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে এসেছিলেন শেখ হাসিনা। ইতোমধ্যে এই গ্রেনেড হামলার যে রায় হয়েছে সেটি দ্রুত সময়ের মধ্যেই বাস্তবায়ন করতে হবে।'

প্রতিবাদ সভা শেষে শহীদদের আত্মার মাগফেরাত ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু কামনা করে দোয়া মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।

মন্ত্রী-মেয়র ব্যস্ত বক্তৃতায়, সচিবের আয়েশি ঘুম

মন্ত্রী-মেয়র ব্যস্ত বক্তৃতায়, সচিবের আয়েশি ঘুম
মশক নিধন এবং পরিচ্ছন্নতা বিষয়ক পর্যালোচনা সভায় স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদের আয়েশি ঘুম/ছবি: শাহরিয়ার তামিম

রাজধানীর স্পেকট্রা কনভেনশন সেন্টারে মশক নিধন এবং পরিচ্ছন্নতা বিষয়ক পর্যালোচনা সভা চলছে। ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের দিক-নির্দেশনা দিচ্ছেন স্থানীয়, সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র সভায় ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলায় ব্যস্ত। তবে অনুষ্ঠানের এ মঞ্চে দুশ্চিন্তামুক্ত ছিলেন একজন। আর তিনি হলেন স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ।

অনুষ্ঠানের শুরু থেকে তিনি দফায় দফায় ঘুম দিচ্ছেন। কখনও ঘুমে দুলুনি খাচ্ছেন, কখনও আবার হঠাৎ চমকে উঠছেন। কোনো কোনো সময় মুখ হা করে বিরাট হাই তুলছেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/21/1566400999878.jpg

বুধবার (২১ আগস্ট) বিকেলে রাজধানীর স্পেকট্রা কনভেনশন সেন্টারে আয়োজিত সভায় এমন আয়েশি ভঙ্গিতে ধরা পড়লেন সচিব হেলালুদ্দীন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। মেয়র আতিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন ডিএনসিসি’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল হাইসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও বিভিন্ন ওয়ার্ডের কাউন্সিলররা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/21/1566401016016.jpg

মন্ত্রীর কারণে বিকেল ৪টায় অনুষ্ঠান শুরু হওয়ার কথা থাকলেও শুরু হয় আরও দেরিতে। এরপর মন্ত্রীর ডান পাশের চেয়ারে বসেন সচিব হেলালুদ্দীন আর বাম পাশে বসেন মেয়র আতিকুল ইসলাম।

সভার শুরুতে মেয়র কথা বলার পর বক্তব্য শুরু করেন মন্ত্রী। তার বক্তৃতার পুরো সময় সচিব কখনো হাই তুলেছেন, আবার কখনো দুই হাত বুকের ওপর রেখে ভঙ্গিতে ঘুম দিয়েছেন। মাঝে মাঝে দুই চোখ খুললেও আবার চোখ বন্ধ করে ফেলেন। মন্ত্রী যখন বক্তৃতা করছিলেন তখন মাঝে মাঝেই সচিব চেয়ারে হেলান দিয়ে ঘুমাচ্ছিলেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/21/1566401037611.jpg

সম্প্রতি দেশের ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ে সরকার, সিটি করপোরেশন ও প্রশাসন কর্মকর্তারা বেশ দৌড়ের ওপর রয়েছেন। ডেঙ্গু মৌসুমের শুরুতে পদক্ষেপ না নেওয়ায় সমালোচনাও সইতে হচ্ছে সংশ্লিষ্ট মহলকে। এর মধ্যে এমন জনগুরুত্বপূর্ণ একটি অনুষ্ঠানে সরকারের একজন আমলার এভাবে ঘুমানোকে বেমানান বলছেন সভায় উপস্থিত ব্যক্তিরা।

আরও পড়ুন:  রোববার থেকে চিরুনি অভিযান, লার্ভা পেলে সর্বোচ্চ ৬ মাসের..

ডেঙ্গু আক্রান্তদের জন্য স্থানীয় সরকার মন্ত্রীর দুঃখ..

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র