Alexa

ঐতিহ্যবাহী খুলনার ১৩৭তম জন্মদিন

ঐতিহ্যবাহী খুলনার ১৩৭তম জন্মদিন

খুলনা শহর, ছবি: বার্তা২৪

শিল্প ও বন্দরনগরী খুলনার ১৩৭তম জন্মদিন বৃহস্পতিবার। দেশের দক্ষিণ-পশ্চিম কোণে বঙ্গোপসাগরের কূলজুড়ে খুলনার অবস্থান। নদ-নদী বিধৌত হযরত খানজাহান আলীর (রহ.) -এর স্মৃতি বিজড়িত শহর, সুন্দরবনের কোল ঘেষা অপরূপ এ জেলাটি লম্বা আকৃতির ও চৌকা ধরনের।

খুলনার ইতিহাস: ১৮৪২ সালে ভৈরব-রূপসা বিধৌত পুণ্যভূমি নয়াবাদ থানা ও কিসমত খুলনাকে কেন্দ্র করে নতুন জেলার সদর দপ্তর স্থাপিত হয় খুলনায়। খুলনা মহকুমা প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর ব্রিটিশদের প্রশাসনিক এলাকা বৃদ্ধি এবং ভৌগলিক অবস্থার কারণে খুলনা গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে। মাত্র ৪০ বছরের ব্যবধানে ৪ হাজার ৬৩০ বর্গমাইল এলাকা, ৪৩ হাজার ৫০০ জনসংখ্যা অধ্যুষিত খুলনা, বাগেরহাট ও সাতক্ষীরাকে নিয়ে ১৮৮২ সালের ২৫ এপ্রিল গেজেট নোটিফিকেশনের মাধ্যমে খুলনা জেলা প্রতিষ্ঠিত হয়। আর সেই পরিসংখ্যান অনুযায়ী খুলনার ১৩৭তম শুভ জন্মদিন আজ। এর আগে খুলনা ছিল যশোর জেলার মহকুমা। ব্রিটিশ শাসক ডাব্লিউ এম ক্লে জেলার প্রথম ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/25/1556148552356.jpg
খুলনা শহর



খুলনার নামকরণ: কোনো স্থানের ইতিহাস ঐতিহ্য-অনুধাবনের ক্ষেত্রে নামকরণের তাৎপর্য নির্ণয় খুবই গুরুত্বপূর্ণ। খুলনাও তার ব্যতিক্রম নয়। 

বিখ্যাত ইতিহাসবিদ ড. সুকুমার সেনের মতে খুলনা এসেছে ‘খুল্লনা’ শব্দ থেকে যার অর্থ ক্ষুদ্র নৌকা ভাসে এমন স্থান। এক্ষেত্রে ভিন্ন ভিন্ন মতে অনেক কিংবদন্তির কথাও প্রচলিত আছে। 

কেউ বলেন, খুলনা নামের উৎস খুল্লনেশ্বরী দেবী, যিনি ধনপতি সওদাগরের স্ত্রী খুল্লনার স্মৃতিরক্ষার্থে ভৈরব নদ তীরের এক মন্দিরে সুপ্রতিষ্ঠিত হয়েছিলেন।

আবার কেউ বলেন, মুসলিম আমলের প্রথমদিকে আরব বণিকেরা এখানে প্রবেশ করে বলতো ‘আদ খোলনা’। এই ‘আদ খোলনা’ শব্দ থেকে খুলনা শব্দের উৎপত্তি।

এছাড়া বিপদাশংকা টের পেলে বনের দেবী বনবিবি বাওয়ালিদের বনে যেতে নিষেধ করে বলতেন ‘নৌকা খুলোনা’। এ ‘খুলোনা’ থেকেই খুলনা শব্দটা এসেছে। এসব কিংবদন্তির সত্যাসত্য আজ আর যাচাই করার উপায় নেই।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/25/1556148601318.jpg
খুলনা শহর



খুলনা শব্দের উৎপত্তির বিষয়ে আরও একটা সূত্র পাওয়া যায় ১৭৬৬ সালে পশুর নদীর দক্ষিণভাগে নিমজ্জিত ‘ফল মাউথ’ নামক জাহাজের নাবিকদের রেকর্ডপত্র থেকে, যেখানে খুলনাকে ‘কুলনিয়া’ বা ‘কলনিয়া’ বলে উল্লেখ করা হয়েছে। 

খুলনার আঞ্চলিক ইতিহাসবিদ ড. শেখ গাউস মিয়ার মতে, বর্তমানে খুলনা একটা জনবহুল জেলা হলেও এক সময় তা ছিল সুন্দরবনের অংশ। বন কেটে আবাদ করা হয়েছে এ অঞ্চলে। যে কারণে বন জঙ্গল সরে গেছে। নতুন আবাদ বলেই খুলনার আর এক নাম নয়াবাদ। এ অঞ্চলের ইতিহাস-ঐতিহ্য সুদূর অতীতে প্রসারিত। সমুদ্রগর্ভ থেকে অপেক্ষাকৃত পরে উত্থিত হলেও উপমহাদেশের অনেক স্থানের মতো এখানেও প্রাচীনকালে জনবসতি স্থাপিত হয়েছিল বলে জানা যায়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/25/1556148636142.jpg
খুলনা শহর



ইতিহাস: পাল আমলে পূর্ববঙ্গে অন্যান্য জনগোষ্ঠীর মতো খুলনার জনসমাজও বৌদ্ধধর্ম দ্বারা প্রভাবিত হয়। সেন আমলে তাদের প্রতিনিধি এ অঞ্চল তথা বুড়নদ্বীপ শাসন করতো।

মুসলিম আমলে আসেন হযরত উলুঘ খান, এ আজম খানজাহান তথা খানজাহান আলী (রহ.)। এ অঞ্চল আবাদ ও ইসলাম প্রচারের ক্ষেত্রে যার কৃতিত্ব সুবিদিত। এরপর নানা রাজনৈতিক পালাবদলের মধ্য দিয়ে শাসনক্ষমতা চলে যায় বিদেশিদের হাতে। তাদের দ্বারাই সারা দেশের মতো এখানেও আধুনিক প্রশাসন ব্যবস্থার প্রচলন ঘটে। খুলনা জেলার কেন্দ্রবিন্দু খুলনা। এখন যেখানে মূল শহর এক সময় সে স্থান ছিল ক্ষুদ্র একটি নৌবন্দর মাত্র।

পূর্ববঙ্গ ও আসাম থেকে কলকাতার মধ্যে যাতায়াতের একটা সহজ পথ ছিল খুলনা। ১৮০১ সালে মি. চার্লস নামে শ্বেতাঙ্গ নীলকর কর্তৃক এখানে একটা নীলকুঠি স্থাপিত হয়। তিনি তার কুঠির পাশে একটা বাজার বসান যা বর্তমানে ‘বড়বাজার’ নামে পরিচিত। ১৭৮১ সালে তা একটা থানায় রূপান্তরিত করা হয় নয়াবাদ থানা। এ নয়াবাদ অবস্থিত ছিল রূপসা নদীর ওপার। ১৭৮৬ সালে টিলম্যান হেঙ্কেলের সুপারিশ অনুসারে যশোরকে একটা জেলায় রূপান্তরিত করা হয়। এটিই বাংলাদেশের প্রথম জেলা। তখন খুলনা ছিল এ জেলার অন্যতম থানা। ১৮৪২ সালে খুলনা মহকুমায় রূপ লাভ করে। বলা হয় শ্বেতাঙ্গ অত্যাচারি জমিদার রেণীকে ইংরেজ শাসনাধীনে আনাই ছিল এ মহকুমা স্থাপনের উদ্দেশ্য।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/25/1556148666019.jpg
খুলনা শহর



কর্মসূচি: ইতিহাস ও ঐতিহ্যের খুলনার ১৩৭ বছর পূর্তিতে দিবসটি পালনে চার দিনের কর্মসূচি হাতে নিয়েছে বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটি। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে ২৫ এপ্রিল (বৃহস্পতিবার) উন্নয়ন ভবন মাঠে চার দিনব্যাপী ‘খুলনা দিবস মেলা-২০১৯’ -এর উদ্বোধন, ২৭ এপ্রিল সকাল ৯টায় বর্ণিল আয়োজনে খুলনার ইতিহাস-ঐতিহ্য ও প্রাকৃতিক দৃশ্য সম্বলিত বর্ণাঢ্য র‌্যালি এবং সন্ধ্যায় নগরীর শহিদ হাদিস পার্কে আলোচনা ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে।

উল্লেখ্য, জন্মলগ্ন থেকেই এ দীর্ঘ পথ পরিক্রমায় দেশের অন্যান্য অঞ্চলের তুলনায় দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল তথা খুলনা উন্নয়নের দিক থেকে অনেক অনেক গুণ পিছিয়ে বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন খুলনার উন্নয়ন কর্মীরা। সম্প্রতি খুলনায় গ্যাস সরবরাহ করার জন্য যে পাইপ লাইন বসানো হয়েছিল, সে প্রকল্পটি সম্পূর্ণ রূপে বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

এছাড়াও খুলনায় বিমানবন্দর দ্রুত বাস্তবায়ন, খুলনা মেডিকেল কলেজকে ১০০০ বেডে উন্নীতকরণসহ মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় ঘোষণা, শহর রক্ষা বাঁধসহ রূপসা ও ভৈরব নদীর তীর ঘেঁষে রিভারভিউ রোড ও পার্ক নির্মাণ, খুলনায় স্টেডিয়ামগুলোর অবকাঠামোগত উন্নয়ন, মেরিন একাডেমী, ক্যাডেট কলেজ, বয়রা মেইন রোড সম্প্রসারণসহ খুলনা টেক্সটাইল পল্লী দ্রুত বাস্তবায়ন, মংলা সমুদ্রবন্দর ও ভোমরা স্থল বন্দরের আধুনিকায়ন, ভৈরব নদীতে আধুনিক ঝুলন্ত সেতু নির্মাণ এবং ভৈরব নদীর তলদেশে ট্যানেল নির্মাণ, আধুনিক পাবলিক হল নির্মাণ, খুলনায় শিক্ষা ব্যবস্থা উন্নয়ন, স্বাস্থ্য সেবার মান উন্নয়ন, সুন্দরবনকে ঘিরে পর্যটন শিল্পের প্রসারসহ খুলনার ১৩৭ তম জন্মদিনে বিভিন্ন দাবি জানিয়েছেন খুলনার উন্নয়ন কর্মীরা।

আপনার মতামত লিখুন :