Barta24

মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০১৯, ৮ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

রাজশাহীর উন্নয়নে ‘পাওয়ার চায়না’র সঙ্গে সমঝোতা স্বাক্ষর

রাজশাহীর উন্নয়নে ‘পাওয়ার চায়না’র সঙ্গে সমঝোতা স্বাক্ষর
সমঝোতা স্মারক / ছবি: বার্তা২৪
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
রাজশাহী


  • Font increase
  • Font Decrease

মাস্টারপ্ল্যান তৈরি করে রাজশাহীর বিভিন্নখাতে ব্যাপক উন্নয়নের লক্ষ্যে রাজশাহী সিটি করপোরেশন ও চায়নার রাষ্ট্রায়াত্ব প্রতিষ্ঠান পাওয়ার চায়না‘র মধ্যে সমঝোতা স্মারক চুক্তি (এমওইউ) স্বাক্ষরিত হয়েছে।

রোববার (১২ মে) দুপুরে নগরভবনের সভাকক্ষে চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে রাজশাহী সিটি করপোরেশনের পক্ষে মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন ও পাওয়ার চায়নার পক্ষে প্রতিষ্ঠানটির বিজনেস ডেভেলপমেন্ট ম্যানেজার মি. হান কুন চুক্তিতে সই করেন।

চুক্তি অনুযায়ী আগামী তিন বছর আটটি খাতকে সামনে রেখে মাস্টারপ্ল্যান তৈরি করবে পাওয়ার চায়না। ৫০ বছর দীর্ঘমেয়াদি মাস্টারপ্ল্যানটি বাস্তবায়ন হতে শুরু করলে পাল্টে যাবে পুরো রাজশাহীর চিত্র।

খাতগুলো হলো- পদ্মা নদীরধারে শহর রক্ষা বাঁধ নির্মাণ করে সেখানে স্যাটেলাইট টাউন গড়ে তোলা, বিশ্বমানের বিশেষায়িত হাসপাতাল স্থাপন, ইকোপার্ক তৈরি, সাইন্স সিটি স্থাপনা, হযরত শাহ মখদুম বিমানবন্দর সম্প্রসারণ এবং অবকাঠামো উন্নয়ন এবং টেকনিক্যাল সুবিধা বাড়ানো, সুয়ারেজ ড্রেনেজ ব্যবস্থা এবং বর্জ্য ব্যবস্থাপনার উন্নয়ন গড়ে তোলা। এছাড়া নগর পরিবহন ব্যবস্থার উন্নয়ন, যার মধ্যে রয়েছে গণপরিবহন, রাস্তা, এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, মেট্রোরেল ও ফ্লাইওভার এবং আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সমৃদ্ধ আবাসিক এলাকা গড়ে তোলা।

 https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/12/1557677535237.jpg

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ‘গত ২৩ জানুয়ারি বাংলাদেশে নিযুক্ত চায়না রাষ্ট্রদূত ঝ্যাং জ্যুয়ো রাজশাহীতে এসে সহযোগিতার আশ্বাস দেন। এরপর তিনি চায়না বৃহত্তর প্রতিষ্ঠান পাওয়ার চায়নাকে রাজশাহীতে পাঠান। রাজশাহীর উন্নয়নে পাওয়ার চায়নাকে মাস্টারপ্ল্যান তৈরি করার অনুরোধ জানান মেয়র। তারা সম্মত হওয়ার পর কয়েক দফা আলাপ-আলোচনা হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে আজ চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠিত হয়।’

অনুষ্ঠানে পাওয়ার চায়নার বিজনেস ডেভেলপমেন্ট ম্যানেজার মি. হান কুন বলেন, ‘পাওয়ার চায়না বাংলাদেশে নতুন নয়। ১৯৯০ সাল থেকে বাংলাদেশে কাজ করছে। অনেকগুলো বড় প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। আমরা রাজশাহীর সঙ্গে কাজ করতে বদ্ধপরিকর।’

রাসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শাওগাতুল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন রাসিকের প্রধান প্রকৌশলী আশরাফুল হক। পাওয়ার চায়নার প্রতিনিধি দলে আরও ছিলেন মি. লে.জি, মি. অ্যান্ডু ও ইয়াং শাও।

আপনার মতামত লিখুন :

সরকার নাগরিকদের সর্বোচ্চ সেবা নিশ্চিতে কাজ করছে

সরকার নাগরিকদের সর্বোচ্চ সেবা নিশ্চিতে কাজ করছে
আলোচনায় সভায় বক্তব্য দেন চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার আবদুল মান্নান, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

সরকার নতুন নতুন পদ সৃষ্টি আর নানান সুযোগ-সুবিধার মধ্যে দিয়ে নাগরিকদের সর্বোচ্চ সেবার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার আবদুল মান্নান।

তিনি বলেছেন, ‘২০০৯ সালের পর থেকে প্রধানমন্ত্রী ছয় লাখ নতুন পদ অনুমোদন দিয়ে ইতোমধ্যে ৬০ হাজার জনকে নিয়োগ দিয়েছেন। ক্রমাগত বেতন ভাতা ও নানান সুযোগ সুবিধা দিয়ে আমাদের বিত্তশালী করছেন। অথচ আমরা নাগরিকদের কাছে সেবা পৌঁছে দিতে পারছি না। এ বিষয় নিয়ে সরকার নতুন পরিকল্পনা করছে, যাতে করে আমাদের সীমাবদ্ধতাগুলো কাটিয়ে উঠতে পারি।’

মঙ্গলবার (২৩জুলাই) দুপুরে চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে জাতীয় পাবলিক সার্ভিস দিবস উপলক্ষে এক আলোচনায় সভায় তিনি এসব কথা বলন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/23/1563873352588.jpg

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আবদুল মান্নান বলেন, ‘১৮ কোটি মানুষের দেশে রাজস্ব খাতে সরকারি কর্মকর্তা রয়েছেন ১৮ লাখ। এর পাশাপাশি সরকারি-বেসরকারি, আধা সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, বিভিন্ন এমপিভুক্ত স্কুল- কলেজ মাদরাসায় রয়েছেন ১৮ থেকে ১৯ লাখ কর্মচারী। পুলিশে রয়েছে লাখের মতো।’

তিনি আরও বলেন, ‘বিসিএস পরীক্ষায় আগের তুলনায় এখনকার মেধাবীরা অ্যাডমিন ক্যাডার পছন্দ করে পুলিশের উচ্চ পর্যায়ের দায়িত্ব পালন করছেন। সবশেষ গত তিন বছরে সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করায় জনপ্রশাসন বিভাগের ১০৪ জন কর্মকর্তাকে পদক দেওয়া হয়েছে।’

বক্তেব্যের শেষে বিভাগীয় কমিশনার নিজ নিজ অবস্থান থেকে দেরশের জন্য কাজ করার জন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে অনুরোধ জানান।

চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার শংকর রঞ্জন সাহা আলোচনা সভার সভাপতিত্ব করেন।

অনুষ্ঠানে মুখ্য আলোচক হিসেবে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালেয়ের শিক্ষক সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. কাজী এস. এম খসরুল আলম কুদ্দসী বক্তব্য দেন। এছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক, চট্টগ্রাম পুলিশ সুপার নুরে আলম মিনা, সিভিল সার্জন আজিজুর রহমান সিদ্দিকী উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে দিনটি উপলক্ষে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি নগরীর বেশ কিছু এলাকা প্রদর্শন করে সার্কিট হাউসে এসে শেষ হয়।

গণপিটুনিতে নিহত প্রতিবন্ধীর পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেয়ার দাবি

গণপিটুনিতে নিহত প্রতিবন্ধীর পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেয়ার দাবি
জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের উপর নির্যাতন ও সহিংসতার প্রতিবাদে আয়োজিত মানববন্ধন/ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

গণপিটুনিতে নিহত প্রতিবন্ধী ব্যক্তির পরিবারকে ৫০ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ ও আহতদের চিকিৎসা দেওয়ার দাবি জানিয়েছে প্রতিবন্ধী নাগরিক ঐক্য।

মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের উপর নির্যাতন ও সহিংসতার প্রতিবাদে আয়োজিত এক মানববন্ধনে এসব দাবি জানানো হয়।

মানববন্ধনে উপস্থিত বক্তারা দাবি করেন, 'তথাকথিত 'ছেলেধরা' সন্দেহে ঢাকাসহ ৮ জেলায় মোট ১৫ জন প্রতিবন্ধী ব্যক্তিকে পিটিয়ে গুরুতর জখম করা হয়েছে। এর মধ্যে দুজন নিহত হন। হতাহত প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের মাঝে ৮ জন পুরুষ, ৭ জন নারী প্রতিবন্ধী। ১৫ জন প্রতিবন্ধীর মধ্যে ১৪ জন মানসিকভাবে অসুস্থ, একজন বাক ও শ্রবণ প্রতিবন্ধী ছিলেন।

বক্তারা বলেন, দেশে মোট জনসংখ্যার ১৬ ভাগ প্রতিবন্ধী ব্যক্তি। কিন্তু সুযোগ সুবিধার ক্ষেত্রে দশমিক এক ভাগও পায় না। কিন্তু গত কয়েকদিনে গণপিটুনির নামে হতাহত জনসংখ্যা ৬০ ভাগ এর অধিক ভিকটিম হলাম আমরা। আমাদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা অত্যন্ত করুণ। আমাদের প্রতিরোধ ক্ষমতা নেই বলেই এত নির্যাতনের শিকার হতে হচ্ছে।

গণপিটুনিতে নিহত ব্যক্তির পরিবারকে ৫০ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। এবং আহত ব্যক্তিদের চিকিৎসা প্রদান ও প্রত্যেককে ২০ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। হামলাকারীদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থাগ্রহণ ও দ্রুত নিষ্পত্তির মাধ্যমে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান করতে হবে। যেহেতু প্রতিবন্ধী ব্যক্তিগণ সহজে আক্রমণের শিকার হয়ে থাকেন সেহেতু তাদের সুরক্ষার জন্য নির্যাতন বিরোধী কোনও আইন প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করতে হবে।

মানববন্ধনে দেশের বিভিন্ন জেলার প্রায় ৫০ জন প্রতিবন্ধীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ অংশগ্রহণ করেন।

 

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র