Barta24

সোমবার, ২২ জুলাই ২০১৯, ৭ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

রাজশাহীতে প্রাণ-তীর-ড্যানিশসহ নিষিদ্ধ ৫২ পণ্যের ছড়াছড়ি

রাজশাহীতে প্রাণ-তীর-ড্যানিশসহ নিষিদ্ধ ৫২ পণ্যের ছড়াছড়ি
আদালত কর্তৃক নিষিদ্ধ পণ্যের কয়েকটি, ছবি: সংগৃহীত
হাসান আদিব
স্টাফ করেসপন্ডেট
বার্তা২৪.কম
রাজশাহী


  • Font increase
  • Font Decrease

হাইকোর্ট কর্তৃক 'নিষিদ্ধ' ঘোষিত ৫২ ভেজাল পণ্যের ছড়াছড়ি রাজশাহীর দোকানগুলোতে। গত ১২ মে বাজার থেকে ১০ দিনের মধ্যে এসব পণ্য প্রত্যাহারের নির্দেশনা দেওয়া হলেও এখনো দোকানগুলোতে মজুদ রয়েছে, চলছে বিক্রিও।

বুধবার (১৫ মে) দুপুর সাড়ে ১২টা। রাজশাহীর সাহেব বাজার ১নং গদির মোশাররফ হোসেনের দোকানে কেনাকাটা করতে এসেছেন সাগরপাড়া এলাকার মিলি বেগম। তিনি প্রাণের হলুদের গুঁড়া, কারি পাউডার, লাচ্ছা সেমাই, রূপচাঁদার সরিষার তেল ও মোল্লা সল্টের লবণ কিনে ব্যাগে ভরে রেখেছেন।

ভেজাল পণ্য

নিম্নমান ও ভেজাল হওয়ায় এসব পণ্য নিষিদ্ধ, তবুও কিনছেন কেন? এমন প্রশ্নে মিলি বেগম যেন আকাশ থেকে পড়েছেন! তিনি জানেনই না এসব পণ্য আদালত থেকে নিষিদ্ধ। সামনে দাঁড়ানো দোকান মালিক মোশাররফ হোসেনও দাবি করলেন, তিনি জানেন না কোন কোন পণ্য নিষিদ্ধ। ফলে আদালতের নির্দেশনার পরও দোকান থেকে সেগুলো সরানো হয়নি।

শুধু নগরীর সাহেব বাজারে নয়, নিউমার্কেট, লক্ষ্মীপুর, কোর্ট কাঁচাবাজার, বিনোদপুর, কাজলা, হড়গ্রাম বাজার ঘুরেও দেখা গেছে ভেজাল পণ্যের ছড়াছড়ি। অধিকাংশ ক্রেতা পণ্যগুলো সম্পর্কে জানেন না। অনেক বিক্রেতারও দাবি- তারা পণ্য নিষিদ্ধ হওয়ার বিষয়টি শুনেছেন, তবে সেটা কোন কোন পণ্য তা জানেন না। আবার অনেকে জানলেও লোকসানের ভয়ে ক্রেতাদের ধোঁকা দিয়ে নিম্নমানের নিষিদ্ধ পণ্য বিক্রি করছেন।

প্রাণ-তীর-ড্যানিশসহ রাজশাহীর বাজারে নিষিদ্ধ ৫২ পণ্যের ছড়াছড়ি

নগরীর বড় বাজারগুলো ঘুরে দেখা গেছে, ভেজাল ও নিম্নমান হওয়ায় আদালতে নিষিদ্ধ ৫২টি পণ্য দেদারছে বিক্রি করছেন দোকানিরা। প্রকাশ্যেই পণ্যগুলো দোকানে সাজিয়ে রেখেছেন।

পণ্যগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- ড্যানিশের হলুদের গুঁড়া, প্রাণের হলুদের গুঁড়া, তানভির ফুডের ফ্রেশের হলুদের গুঁড়া, এসিআইয়ের ধনিয়ার গুঁড়া, প্রাণের কারি পাউডার, ড্যানিশের কারি পাউডার, সিটি ওয়েলের তীর সরিষার তেল, গ্রিন ব্লিচিংয়ের জিবি সরিষার তেল, শবনমের পুষ্টি সরিষার তেল, বাংলাদেশ এডিবল ওয়েলের রূপচাঁদা সরিষার তেল, প্রাণের লাচ্ছা সেমাই ও মোল্লা সল্টের আয়োডিনযুক্ত লবণ।

প্রাণ-তীর-ড্যানিশসহ রাজশাহীর বাজারে নিষিদ্ধ ৫২ পণ্যের ছড়াছড়ি

নগরীর কাদিরগঞ্জ এলাকা থেকে সাহেব বাজারে কেনাকাটা করতে আসা তাশফিয়া আক্তার বলেন, 'এগুলো দীর্ঘদিন ধরে কিনছি। এখন শুনছি, পণ্যগুলো ভেজাল। তাহলে কিনব কোনটা? নামিদামি কোম্পানির পণ্য যদি ভেজাল হয়, তবে নাম না জানা কোম্পানির পণ্য কিনে কী ভালো মনে খাওয়া যাবে?'

শফিকুল ইসলাম নামে আরেক ক্রেতা বলেন, ভেজাল হওয়ায় পণ্য নিষিদ্ধের বিষয়টি জেনেছি। তবে দোকানে আসলে কেনার সময় ভুলে যেতে হচ্ছে। আমি গতকালও রূপচাঁদার সরিষার তেল কিনে নিয়ে গিয়েছিলাম। বাড়ি থেকে বলল, এটা ভেজালের কারণে নিষিদ্ধ। পরে সেটা বাদ দিয়ে স্থানীয় ব্রান্ডের একটি সরিষার তেল কিনে নিয়ে গেছি।'

ভেজাল পণ্য

রাজশাহীর বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, পত্র-পত্রিকা ও টিভিতে তারা দেখেছেন, ৫২টি পণ্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে। সেগুলো আগামী ১০ দিনের মধ্যে বাজার থেকে সরিয়ে ফেলতে নির্দেশ দিয়েছে। তবে কোন কোম্পানির, কি কি পণ্য তা পরিষ্কার করে কিছু জানেন না। সরকার বা কোম্পানির পক্ষ থেকেও তাদেরকে কিছু জানানো হয়নি। তাই তারা বিক্রি বন্ধও করেননি।

নগরীর ‘শাহ আলম অ্যান্ড সন্স’ এর মালিক মো. শরিফুল ইসলাম বলেন, ‘৫২টি পণ্য আদালত বাতিল করছেন, তা আমরা শুনেছি। তবে পরিষ্কার কোনো নির্দেশনা আমরা এখনও পাইনি। তাই কোন সিদ্ধান্ত নিতে পারিনি।’

প্রাণ-তীর-ড্যানিশসহ রাজশাহীর বাজারে নিষিদ্ধ ৫২ পণ্যের ছড়াছড়ি

পিএনপি টেডার্সের মালিক বিদ্যা প্রসাদ বলেন, 'বিষয়টি আমরা জানতে পেরেছি। তবে নামিদামি কোম্পানির পণ্য যে ভেজাল, তা আমাদের অবাক করেছে। বুঝে উঠতে পারছি না, এগুলো বাতিল হবে নাকি আবার সবাই বেচতে পারবে। যদি কদিন বাদে সব ঠিকঠাক হয়ে যায়, তবে আমার কেনা পণ্য সরিয়ে ফেললে আমিই লোকসানে পড়ব। তাই এখনও সিদ্ধান্ত নেয়নি।'

নগরীর হড়গ্রামের শামীম ভ্যারাইটি স্টোরের মালিক সাজেদুর রহমান বলেন, ‘কতকিছুই তো নিষিদ্ধ হয়, পরে আবার ঠিক হয়ে যায়। এবারও তাই হবে। টাকা দিয়ে কোম্পানির কাছ থেকে পণ্য কিনেছি। ফেলে দিলে তো আমারই লস (ক্ষতি)। দেখা যাক শেষ পর্যন্ত কী হয়!’

বিনোদপুর বাজারের রহমান সন্স মালিক আব্দুর রহমান বলেন, 'যে ৫২টি পণ্য আদালত নিষিদ্ধ করেছে, রাজশাহীর বাজারে তার ২০/২২টি চলে। অন্যগুলো বাজারে নেই বললেই চলে। কেউ কিনতেও চাই না। মূলত প্রাণ, রূপচাঁদা, এসিআই, পুষ্টি, ফ্রেস ও ড্যানিশের পণ্যগুলো বাজারে চলত। সেগুলো সরিয়ে ফেলতে হবে। আমি দ্রুত সেগুলো সরিয়ে নেব।' আদালতের সিদ্ধান্তকে সাধুবাদও জানান তিনি।

প্রাণ-তীর-ড্যানিশসহ রাজশাহীর বাজারে নিষিদ্ধ ৫২ পণ্যের ছড়াছড়ি

জানতে চাইলে রাজশাহী জেলা প্রশাসক এসএম আব্দুল কাদের বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালতের টিম প্রতিদিন নগরীর বিভিন্ন বাজারে দিনভর অভিযান পরিচালনা করছে। জরিমানা করছে, সকলকে সতর্ক করছে। গণমাধ্যমেও বিষয়টি ফলাও করে প্রচার হচ্ছে। সবাই বিষয়টি এরই মধ্যে অবগত হয়েছেন বলেই আমার বিশ্বাস। তবুও কেউ কেউ যদি দাবি করে থাকে, তারা এখনও জানেন না। তবে বিষয়টি অবগত করতে দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়া হবে।'

তিনি আরও বলেন, 'প্রশাসন চেষ্টা করে যাচ্ছে, এখানে যারা ক্রেতা সেই সাধারণ মানুষকে সচেতন এবং বিক্রেতাদের দায়িত্বশীল হতে হবে। একজন নাগরিক হিসেবে ন্যূনতম দায়িত্বশীল হলে ভেজাল ও নিম্নমানের এসব পণ্য কেউ বিক্রি করবে না বলে আমার বিশ্বাস।'

আপনার মতামত লিখুন :

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে প্রিয়া সাহার যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার অভিযোগ মিথ্যা

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে প্রিয়া সাহার যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার অভিযোগ মিথ্যা
পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও প্রিয়া সাহা, ছবি: সংগৃহীত

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ড. এ. কে. আব্দুল মোমেনের সঙ্গে প্রিয়া সাহার যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। তিনি বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বা মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি হয়ে যুক্তরাষ্ট্রে যাননি।

সোমবার (২২ জুলাই) এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন এ কথা জানিয়েছেন।

বিজ্ঞপ্তিতে মন্ত্রী বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার আমন্ত্রণ ও ভিসা পাওয়ার ব্যাপারে প্রিয়া সাহাই ভালো বলতে পারবেন। বিভিন্ন মাধ্যমে আমরা জানতে পেরেছি, তার সন্তানরা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পড়াশোনা করেন। তবে, বাংলাদেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায় নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে করা অভিযোগের কোনো ভিত্তি নেই, তা কেবল তার কল্পনাপ্রসূত।

আব্দুল মোমেন বলেন, ওই ঘটনার পর আর ক‘জনের মতো সাংবাদিক সাবেদ সাতীও প্রিয়া সাহার মতো মিথ্যা তথ্য দিয়েছেন। প্রিয়া সাহা বাংলাদেশ থেকে তিন কোটি ৭০ লাখ ধর্মীয় সংখ্যালঘু গায়েব বা গুম হওয়ার মিথ্যা ও বানানো গল্প উপস্থাপন করেছেন। প্রকৃত ঘটনা জেনেই কেবল গণমাধ্যমকর্মীদের তথ্য উপস্থাপন করা জরুরি।

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে ন্যামের প্রতি আহ্বান

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে ন্যামের প্রতি আহ্বান
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

মিয়ানমার যেন রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয় এবং রোহিঙ্গা সংকটের স্থায়ী সমাধান করে সে বিষয়ে জোট নিরপেক্ষ দেশসমূহের (ন্যাম) সদস্যসহ মিয়ানমারের প্রতিবেশী দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় এসোসিয়েশন (আসিয়ান) ভুক্ত দেশসমূহ তথা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আরও অধিক এবং অব্যাহতভাবে প্রচেষ্টা গ্রহণ করার আহ্বান জানালেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন।

রোববার (২১ জুলাই) ভেনিজুয়েলার রাজধানী কারাকাসে ন্যাম কোর্ডিনেটিং ব্যুরো এর মন্ত্রী পর্যায়ের সভায় বক্তব্য প্রদানকালে এ আহ্বান জানান তিনি।

উল্লেখ্য ন্যাম মিনিস্ট্রিয়ালের এবারের প্রতিপাদ্য ছিল ‘আন্তর্জাতিক আইনের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শনের মাধ্যমে শান্তি এগিয়ে নেওয়া ও সুসংহত করা’।

অধিকৃত ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডে আন্তর্জাতিক আইন ও আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইনের লঙ্ঘন এবং ফিলিস্তিনী জনগণের প্রতি দীর্ঘ নিপীড়নের কথা উল্লেখ করে স্থায়ী প্রতিনিধি বলেন, শুধু উদ্বেগ প্রকাশ করে ফিলিস্তিনসহ বিশ্বের অন্যান্য স্থানে সংঘটিত এ জাতীয় অমানবিক ও বর্বর কর্মকাণ্ডের পুনরাবৃত্তি রোধ করা সম্ভব নয়। দেশগুলো যাতে আন্তর্জাতিক আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয় আমাদেরকে অবশ্যই তা নিশ্চিত করতে হবে; আর মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ সংগঠনকারীদের দায়-দায়িত্ব নিরূপণের মাধ্যমে বিচারের আওতায় আনতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে যেমনটি প্রযোজ্য মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের উপর সংঘটিত মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধের ক্ষেত্রে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৩ সালে জোট নিরপেক্ষ সম্মেলনে যোগদানের যে যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তা স্মরণ করে মোমেন বলেন, 'বাংলাদেশ এখনও জাতির পিতার সেই নীতি-আদর্শ ও জোট নিরপেক্ষ আন্দোলনের কর্মকাণ্ড থেকে অনুপ্রাণিত হয় যা আজকের বিশ্বে চলমান অস্ত্রের বিস্তার, শুধু নিরাপত্তার ক্ষেত্রে

সর্বশেষ প্রযুক্তিসমূহের ব্যবহারের আধিক্য, জলবায়ু পরিবর্তন, আন্ত:সাংস্কৃতিক সংঘাত ইত্যাদি চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় প্রযোজ্য হতে পারে।

আফ্রিকা, এশিয়া, ওশেনিয়া, ল্যাটিন আমেরিকা, ইউরোপ ও ক্যারিবিয়ান অঞ্চলের ৮৫টি দেশের ১৬ জন মন্ত্রীসহ উচ্চ-পর্যায়ের প্রতিনিধিগণ এই মিনিস্ট্রেরিয়াল সভায় যোগ দেন।

ভেনেজুয়েলার পররাষ্ট্রমন্ত্রী জর্জ অ্যার্রিয়াজা মন্টসের্রাট এ সভায় সভাপতিত্ব করেন। সভাটিতে ভেনিজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো বক্তব্য প্রদান করেন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র