রংপুরে প্রাণ-এসিআইসহ ৫ প্রতিষ্ঠানের বিপুল পরিমাণ পণ্য জব্দ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রংপুর
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বিভিন্ন নামিদামি প্রতিষ্ঠানের ৫২ ভেজাল পণ্য বাজার থেকে প্রত্যাহারের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। এ নির্দেশের নয়দিন পর রংপুরে অভিযান পরিচালনা করেছে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস এন্ড টেস্টিং ইন্সটিটিউশন (বিএসটিআই)।

রোববার (১৯ মে) বেলা ৩টায় রংপুর সিটি বাজারের শতাধিক দোকানে এই অভিযান পরিচালনা হয়। এ সময় বাজারের ১৬টি দোকান থেকে পাঁচ প্রতিষ্ঠানের বিপুল পরিমাণের ভেজাল পণ্য জব্দ করা হয়। এর মধ্যে প্রাণের লাচ্ছা সেমাই, মোল্লা সল্টের আয়োডিনযুক্ত লবণ, সান ব্র্যান্ডের চিপস, প্রাণ ব্র্যান্ডের কারী পাউডার, এসিআইর আয়োডিনযুক্ত লবণ, ড্যানিশের গুঁড়া হলুদ জব্দ করা হয়।

অভিযান প্রসঙ্গে বিএসটিআই রংপুর বিভাগীয় কার্যালয়ের ফিল্ড অফিসার মো. দেলোয়ার হোসেন বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘হাইকোর্টের নির্দেশে অনুযায়ী আমরা অভিযান পরিচালনা করছি। নামিদামি প্রতিষ্ঠানের ৫২টি ভেজাল পণ্য দ্রুত বাজার থেকে প্রত্যাহারে আমাদের এ অভিযান অব্যহত থাকবে।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/19/1558268394882.jpg

অন্যদিকে, বিএসটিআইর পরিদর্শক অনিমেষ মজুমদার বার্তা২৪.কমকে জানান, হাইকোর্ট এসব পণ্য নষ্ট করে ফেলতে এবং তৃতীয় কারও হাতে যেন না যায় সেজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন। একই সঙ্গে নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ ও জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরকে এসব খাদ্যপণ্য বিক্রি ও সরবরাহে জড়িতদের বিরুদ্ধে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে নির্দেশ দিয়েছে।

অভিযানের সময় বিএসটিআইর ফিল্ড অফিসার মেজবাহ-উল-হাসান, পরিদর্শক মিঠুন করিবাজ ও আহমেদ হোসেন, রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ এর উপ-পরিদর্শক সাজ্জাদ হোসেন ও সিটি বাজার ব্যবসায়ী কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক রাকিবুল হায়দার রানা সঙ্গে ছিলেন।

আরও পড়ুন: প্রাণ-এসিআইসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ৫২ ভেজাল পণ্য প্রত্যাহারের নির্দেশ

আরও পড়ুন: ৭ প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স বাতিল, ১৮ পণ্যের উৎপাদন স্থগিত

উল্লেখ্য, গত ১১ মে রোববার হাইকোর্টের বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ বাজার থেকে নিম্নমানের ভেজাল ৫২টি পণ্য প্রত্যাহারের আদেশ দেন। ২০ মের মধ্যে এসব পণ্য প্রত্যাহার করার নির্দেশ দিয়ে আদালত বলেছেন, এসব পণ্য নষ্ট করে ফেলতে হবে যাতে তৃতীয় কারও হাতে না যায়।

বিএসটিআই সম্প্রতি ২৭ ধরনের ৪০৬টি খাদ্যপণ্যের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করেছে। এর মধ্যে ৩১৩টি পণ্যের পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে। সেখানে বিভিন্ন নামিদামি প্রতিষ্ঠানের ৫২টি নিম্নমানের ও ভেজাল পণ্য রয়েছে। এর আগে ২ মে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ প্রতিবেদন প্রকাশ করে বিএসটিআই।