Barta24

বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯, ১২ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

তিউনিসিয়ায় নৌকাডুবি: উদ্ধার হওয়া ১৫ তরুণ দেশে ফিরছেন

তিউনিসিয়ায় নৌকাডুবি: উদ্ধার হওয়া ১৫ তরুণ দেশে ফিরছেন
জীবিত উদ্ধার হওয়া রুবেল আহমদ / ছবি: বার্তা২৪
নূর আহমদ
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
সিলেট


  • Font increase
  • Font Decrease

লিবিয়া থেকে ইতালি যাওয়ার পথে তিউনিসিয়ার উপকূলবর্তী ভূমধ্যসাগরে অভিবাসন প্রত্যাশীদের নিয়ে নৌকাডুবির পর জীবিত উদ্ধার হওয়া ১৫ তরুণ দেশে ফিরছেন।

সোমবার (২০ মে) দুপুরে দেশে আসার উদ্দেশে তিউনিসিয়া বিমানবন্দরে অপেক্ষাকৃত উদ্ধার হওয়া তরুণ রুবেল আহমদ তার পরিবারের সদস্যদের এ তথ্য জানান। তিনি সিলেট সদর উপজেলার কান্দিগাও ইউনিয়নের ঘোপাল গ্রামের চমক আলীর ছেলে।

রাতে রুবেলের মামা আবুল হোসেন বার্তা২৪.কমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, মঙ্গলবার (২১ মে) দিবাগত রাত ১টার দিকে তাদের হযরত শাহজালাল (রহ.) বিমানবন্দরে পৌঁছার কথা রয়েছে।

তিনি আরও জানান, সোমবার দুপুরে রুবেল ফোন করে জানিয়েছে বাঙালী ১৫ জন অভিবাসীকে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে। তারা বিমানবন্দরে অবস্থান করছেন। রাতে হযরত শাহজালাল বিমানবন্দরে এসে পৌঁছাবেন।

রুবেলের মামা বলেন, ‘২০১৮ সালের জুন মাসে বিশ্বনাথ উপজেলার কাঠলীপাড়া গ্রামের চমক আলীর ছেলে আদম বেপারি রফিকুল ইসলাম রফিকের মাধ্যমে রুবেলকে লিবিয়া পাঠানো হয়। রফিক লিবিয়ায় থাকা তার ছেলে পারভেজের মাধ্যমে ইতালি পাঠানোর ব্যবস্থা করে। লিবিয়ার পৌঁছার আগে সাড়ে ৫ লাখ টাকা নেয় রফিক। এরপর গত ৯ মে লিবিয়া থেকে ইতালি পাঠানোর আগে তাদের কাছ থেকে আরও সাড়ে তিন লাখ টাকা নেয় তারা।’

আবুল হোসেনের দাবি, দালাল রফিক তাদের কথা রাখেনি। কথা ছিল বাংলাদেশ থেকে বিমানে লিবিয়া এবং সেখান থেকে মাছ শিকারের জাহাজে করে তাদের ইতালী পাঠানোর।

রুবেলের বরাত দিয়ে আবুল হোসেন বলেন, ‘রুবেলকে যখন প্লাস্টিকের বেলুনধর্মী নৌকায় তুলে দিতে চায় দালালচক্র তখন সে উঠতে চায়নি। জোর করে তারা ওই প্লাস্টিকের নৌকায় তুলে দেয়। তখন এক সঙ্গে দুটি নৌকা ছেড়ে যায়। এরমধ্যে তাদের নৌকায় বিভিন্ন দেশের ৫৭ জন তরুণ ছিল। বাঙালী ছিল ১৫ জন। এরমধ্যে ১৩ জনই দালাল রফিকের মাধ্যমে লিবিয়া থেকে ইতালি যেতে চেয়েছিল। দু’দিন দু’রাত সাগরে ভাসার পর তারা তিউনেশিয়া উপকূলে পৌঁছালে কোস্টগার্ডরা তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। অন্যদিকে লিবিয়া থেকে ছেড়ে যাওয়া অপর নৌকা ডুবে গিয়ে যাত্রীরা নিখোঁজ হন বলে তারা জানতে পেরেছিল।’

রুবেলের মামা জানান, পরিবারের সদস্যরা নিঃস্ব হলেও কোনোরকম প্রাণ নিয়ে দেশে ফিরছেন রুবেল আহমদ। এতেই তাদের সান্ত্বনা।

দালাল রফিকের বিরুদ্ধে তারা মামলা করবেন বলেও জানান তারা।

আরও পড়ুন: তিউনিসিয়ায় নৌকাডুবিতে ৩৯ বাংলাদেশি নিখোঁজ

আরও পড়ুন: 'তুমি বাঁচার চেষ্টা কর' বলে সাগরে তলিয়ে গেলেন ছোট ভাই

 

উল্লেখ্য, গত ৯ মে সন্ধ্যায় লিবিয়া থেকে নৌকা পথে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপে প্রবেশের লক্ষ্যে অভিবাসন প্রত্যাশীদের নিয়ে একটি বড় নৌকা যাত্রা করে। বড় নৌকা থেকে ছোট নৌকায় স্থানান্তরের সময় নৌকাটি ডুবে যায়। নৌকাডুবিতে নিহতদের মধ্যে এখন পর্যন্ত সিলেটের ৭ জনের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া গেছে। আর উদ্ধার হওয়া ১৫ জনকে দেশে পাঠানো হচ্ছে।

আপনার মতামত লিখুন :

ঘাতক নয়নকে আটকাতে বরগুনার মোড়ে মোড়ে চেকপোস্ট

ঘাতক নয়নকে আটকাতে বরগুনার মোড়ে মোড়ে চেকপোস্ট
স্ত্রীর সামনে কুপিয়ে হত্যা করা হয় শরীফকে, ছবি: বার্তা২৪.কম

বরগুনায় স্ত্রীর সামনে স্বামী শাহ নেওয়াজ রিফাত শরীফকে (২৫) কুপিয়ে হত্যা করেছে সন্ত্রাসীরা। এ ঘটনায় পর থেকে ঘাতক নয়ন ও তার সহযোগীদের হন্যে হয়ে খুঁজছে সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশের সদস্যরা।

পুলিশ বলছে, নয়ন যেন বরগুনা জেলার সীমানা থেকে বের হয়ে যেতে না পারে, সেজন্য রাস্তার মোড়ে মোড়ে পুলিশি চেকপোস্ট বসানো হয়েছে।

বুধবার (২৬ জুন) দিনগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে বার্তা২৪.কমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন বরগুনা জেলার পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন।

আরও পড়ুন: আপ্রাণ চেষ্টা করেও স্বামীকে বাঁচাতে পারলেন না স্ত্রী

এদিকে বরগুনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবির মোহাম্মদ হোসেন বার্তা২৪.কমকে জানান,দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে হত্যাকারীদের আটক করতে অভিযানে নেমেছে সদর থানা পুলিশ। পাশাপাশি জেলা পুলিশ ও গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) পুলিশ সদস্যরাও অভিযান চালাচ্ছে।  তবে মধ্যরাত পর্যন্ত কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি।

এর আগে, বুধবার (২৬ জুন) সকালে রিফাত শরীফ তার স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকাকে নিয়ে বরগুনা সরকারি কলেজে যান। কলেজ থেকে ফেরার পথে নয়ন, রিফাত ফরাজীসহ চার যুবক রিফাত শরীফের ওপর হামলা চালান। এ সময় তারা ধারালো অস্ত্র দিয়ে রিফাত শরীফকে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকেন। এতে বাধা দেওয়ার আপ্রাণ চেষ্টা করেন রিফাত শরীফের স্ত্রী আয়েশা। কিন্তু কিছুতেই হামলাকারীদের থামাতে পারেননি তিনি। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় রিফাত শরীফকে প্রথমে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে তাকে বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে ভর্তির এক ঘণ্টা পর বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

রাজধানীতে গড়ে উঠা সীসা বার উচ্ছেদের দাবি

রাজধানীতে গড়ে উঠা সীসা বার উচ্ছেদের দাবি
বিশ্ব মাদকবিরোধী দিবসে প্রেসক্লাবে মানববন্ধনে স্কুলছাত্ররা/ ছবি: বার্তা২৪.কম

মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচার বিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস বা বিশ্ব মাদকবিরোধী দিবসে রাজধানী ঢাকায় গড়ে উঠা অবৈধ সীসা বার উচ্ছেদের দাবি জানিয়েছে মাদকবিরোধী সংগঠন ‘প্রত্যাশা’।

বুধবার ( ২৬ জুন) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ‘মাদক কে না বলুন’ শীর্ষক মানববন্ধন এ দাবি জানায় সংগঠনটি। সারাবিশ্বের মতো বাংলাদেশেও বিশ্ব মাদকবিরোধী দিবসটি পালন করা হয়ে থাকে।

‘প্রত্যাশা’র সাধারণ সম্পাদক হেলাল আহমেদের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মাদকদ্রব্য বিরোধী ফেডারেশনের মহাসচিব আশরাফুল আলম কাজল, সংগঠনটির নির্বাহী সদস্য গোলাম কাদের, আব্দুল রাজ্জাক, মনিরউদ্দিন প্রমুখ। এ সময় বিভিন্ন স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীরা মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/26/1561565422611.jpg

মানববন্ধনে ফেডারেশনের মহাসচিব আশরাফুল আলম কাজল বলেন, ‘দেশে মাদকের ব্যবহার যে হারে বৃদ্ধি পেয়েছে, তা খুবই উদ্বেগজনক। এখনই এর লাগাম টেনে ধরতে না পারলে ভবিষ্যত প্রজন্মকে সুস্থ ও সুন্দরভাবে গড়ে তোলা অসম্ভব হবে।’

হেলাল আহমেদ বলেন, ‘সম্প্রতি মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর নতুন করে প্রাইভেট ক্লাব, অভিজাত শপিংমলসহ বিভিন্ন স্থাপনায় বারের লাইসেন্স প্রদান করছে। এটি বর্তমান সরকারের মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা ও প্রধানমন্ত্রী মাদক নির্মূলে যে অঙ্গীকার করেছেন, তা বস্তবায়নে জটিলতা তৈরি হবে।’

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র