বরিশালে বাস শ্রমিকদের কাছে জিম্মি যাত্রীরা

আব্দুস সালাম আরিফ, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, পটুয়াখালী
বরিশাল রুটের একটি বাস, ছবি: বার্তা২৪.কম

বরিশাল রুটের একটি বাস, ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বরিশালে বাস শ্রমিকদের কাছে জিম্মি সাধারণ যাত্রীরা। অভিযোগ আছে, শেষ গন্তব্যের আগেই যাত্রীদের নামিয়ে দেওয়া হয়। যাত্রীরা প্রতিবাদ করলে তাদের সাথে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন বাস শ্রমিকরা।

গত ২০ মে দুপুর দেড়টার দিকে বরিশাল থেকে একটি অটোরিকশায় করে রূপাতলী বাসস্ট্যান্ডে গিয়ে দেখা যায়, সড়কের ওপর দাঁড়িয়ে রাইজিং পরিবহনের শ্রমিকরা পটুয়াখালী-পটুয়াখালী বলে ডেকে যাত্রী তুলছে। গাড়ি কখন ছাড়বে- জানতে চাইলে পাশের কাউন্টার থেকে এক যুবক জানান ১টা ৫৫ মিনিটে। ভালো সিট আছে। তাড়াতাড়ি টিকিট নেন। সাথে সাথে আমি তিনটি টিকিট নিলাম।

বরিশাল থেকে ১টা ৫৮ মিনিটে পরিবহনটি পটুয়াখালীর উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করে। গাড়িতে ওঠার আগে ব্যাগগুলো বাসের বাঙ্কারে রাখলাম। তবে বাসের একটি সিট থেকে অরেকটি সিটের দূরত্ব খুবই কম। ফলে হাঁটু সোজা করে বসার উপায় নেই। বরিশাল থেকে রাইজিং পরিবহনের ঢাকা মেট্রো জ ১৪-২৭০৬ গাড়িটি ২টা ৪৭ মিনিটে লেবুখালী ফেরিঘাটের কাছাকাছি জায়গায় থামায়।

একটু পর লক্ষ্য করলাম বাসের হেলপার যাত্রীদের নামতে তাগাদা দিচ্ছেন। হেলপার জানালো, বাস আর যাবে না। পরে পটুয়াখালী কেন যাবে না- জানতে চেয়ে কয়েকজন যাত্রী প্রতিবাদ করলে বাস শ্রমিকরা জানান, বাস আর যাবে না। আপনারা অন্য বাসে চলে যান।

পরে বাস থেকে বাধ্য হয়ে নেমে ব্যাগগুলো নিয়ে হেলপারের সাথে কথা কাটাকাটি শুরু করে দিলেন কয়েকজন যাত্রী। এক পর্যায়ে তিনজন যাত্রীকে ২০ টাকা করে ফেরত দিল। পরে তারা ফেরি পার হয়ে অন্য একটি বাসে উঠে গন্তব্যে পৌঁছাল।

এদিকে, পটুয়াখালী ফিরতে ফিরতে বাসের ছবি দিয়ে ফেইসবুকে একটি পোস্ট দিলাম। পোস্টের কমেন্টে অনেকে জানালেন, বরিশাল-কুয়াকাটা মহাসড়কে এই ভোগান্তি দীর্ঘদিনের। এই সড়কের পথে পথে যাত্রী হাত বদল হয়। বিশেষ করে বরিশালের যাত্রীদের পটুয়াখালীর লেবুখালী ও কুয়াকাটায় নেওয়ার কথা বলে চৌরাস্তায় নামিয়ে দেওয়া হয়। অনেক সময় কুয়াকাটার পরিবর্তে আমতলি কিংবা কলাপাড়া ব্রিজেও নামিয়ে দেয়া হয়। যদিও বরিশাল থেকে ছেড়ে আশা সব পরিবহনে বরিশাল- কুয়াকাটা লেখা থাকে। ফলে যাত্রীরা না বুঝেই পরিবহন শ্রমিকদের হাতে প্রতারিত ও লাঞ্ছিত হন।

এ বিষয়ে পটুয়াখালী ট্রাফিক ইন্সপেক্টর হেলাল উদ্দিন বার্তা২৪.কম-কে বলেন, ‘যাত্রীদের সাথে এমন প্রতারণার বিষয়ে আমরা প্রায়ই অভিযোগ পাই। তাই এ বিষয়ে একটি সুষ্ঠু সমাধান বের করা প্রয়োজন।’

তবে এ বিষয়ে বক্তব্য জানতে পটুয়াখালী বাস মালিক সমিতির নেতাদের সাথে যোগাযোগ করা হলেও কেউ কথা বলতে রাজি হন নি।

আপনার মতামত লিখুন :