Barta24

শনিবার, ১৭ আগস্ট ২০১৯, ২ ভাদ্র ১৪২৬

English

রেললাইনের পাশ থেকে সাংবাদিকের মরদেহ উদ্ধার

রেললাইনের পাশ থেকে সাংবাদিকের মরদেহ উদ্ধার
এহসান ইবনে রেজা ফাগুন, ছবি: সংগৃহীত
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
ময়মনসিংহ


  • Font increase
  • Font Decrease

জামালপুরে রেললাইনের পাশ থেকে এহসান ইবনে রেজা ফাগুন (২০) নামে এক সাংবাদিকের মরদেহ উদ্ধার করেছে রেলওয়ে থানা পুলিশ। নিহত ফাগুন অনলাইন নিউজ পোর্টাল প্রিয়.কমে সাব এডিটর হিসেবে কাজ করতেন।

এছাড়াও তিনি এনটিভির শেরপুর প্রতিনিধি কাকন রেজার ছেলে ও তিতুমীর কলেজে টুরিজম এন্ড হোটেল ম্যানেজমেন্টে ১ম বর্ষের ২য় সেমিস্টারের শিক্ষার্থী ছিলেন।

মঙ্গলবার (২১ মে) রাতে জামালপুর-নান্দিনা রেলস্টেশনের মাঝামাঝি কালিবাড়ী মধ্যপাড়া এলাকা থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

বুধবার (২২ মে) বিকেলে নিহতের ছবি দেখে মরদেহ সনাক্ত করেন তার বাবা কাকন রেজা।

জামালপুর রেলওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তাপস চন্দ্র পন্ডিত জানান, মঙ্গলবার রাতে মধ্যপাড়া এলাকায় রেললাইনের পাশে মরদেহটি পড়ে থাকতে দেখে এলাকাবাসী পুলিশকে খবর দেয়। খবর পেয়ে রেলওয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য জামালপুর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

তবে পরিচয় না পাওয়ায় ময়নাতদন্ত শেষে বুধবার দাফনের জন্য আঞ্জুমান মফিদুলের কাছে হস্তান্তর করা হয়। আঞ্জুমান মফিদুল ইসলাম কর্তৃপক্ষ মরদেহের কফিন তৈরি করে জানাজা ও দাফনের প্রস্তুতি নিচ্ছিল। এরই মধ্যে বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে মরদেহটি সম্পর্কে জানতে চাইলে জিআরপি পুলিশের পক্ষ থেকে নিহতের বাবা কাকন রেজার কাছে ছবি পাঠানো হয়। ওই ছবি দেখে কাকন রেজা মরদেহটি তার ছেলের বলে শনাক্ত করেন। পরে অজ্ঞাত পরিচয়ে ফাগুনের মরদেহ দাফন স্থগিত করে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

নিহতের বাবা কাকন রেজা বলেন, ‘এহসান ইবনে রেজা ফাগুন মঙ্গলবার ঢাকা থেকে শেরপুর বাড়িতে ফিরছিল। ময়মনসিংহ আসার আগেও তার সাথে আমার কথা হয়েছে। কিন্তু রাতে ফিরে না আসায় বিভিন্ন জায়গায় ছেলের খোঁজ করছিলাম। সকালে তার খোঁজে ময়মনসিংহে যাই। এক পর্যায়ে জামালপুর রেলওয়ে থানার পুলিশ আমার কাছে ছবি পাঠালে তা দেখে নিশ্চিত হই যে এটি আমার ছেলে ফাগুনেরই মরদেহ।’

আপনার মতামত লিখুন :

পানি প্রবাহ কনভেনশনে অনুসমর্থনের পরামর্শ

পানি প্রবাহ কনভেনশনে অনুসমর্থনের পরামর্শ
বিশ্ব নদী অধিকার দিবস উপলক্ষে আয়োজিত গোলটেবিল বৈঠক

জাতিসংঘের পানি প্রবাহ কনভেনশনে বাংলাদেশকে অনুসমর্থন দিতে পরামর্শ দিয়েছেন গোলটেবিল বৈঠকের বক্তারা। পানি প্রবাহ কনভেনশনের ফলে আন্তঃসীমান্তীয় নদীগুলোর ক্ষেত্রে কোন দেশ ক্ষতিগ্রস্ত হলে সে ক্ষেত্রে প্রতিকার চাইতে পারবে।

বিশ্ব নদী অধিকার দিবস (১৭ আগস্ট) উপলক্ষে রাজধানীর লালমাটিয়ায় এক গোলটেবিল বৈঠকে বক্তারা এ পরামর্শ দেন।

বক্তারা বলেন, সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট ডিভিশন গত ১ জুলাই দেশের সব নদীকে জীবন্ত সত্তা ঘোষণা করে একটি রায় দিয়েছেন। এর ফলে ভাটির দেশ হিসেবে একটি স্বীকৃতি পাওয়া গেছে। যদি জাতিসংঘের পানি প্রবাহ কনভেনশনে বাংলাদেশ অনুসমর্থন দেয় তাহলে অধিকার চাওয়া পূর্ণতা পাবে।

১৯৯৭ সালে আন্তর্জাতিক পানি প্রবাহ কনভেনশন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। আয়োজক ছিল জাতিসংঘ। এই কনভেনশনে সিদ্ধান্ত হয়েছিল একটি আইন প্রণয়নের। কনভেনশনে সেই আইনটিও প্রস্তুত করা হয়। শর্ত থাকে, জাতিসংঘভুক্ত ৩৫টি দেশের অনুসমর্থন পাওয়া গেলে আইনটি চূড়ান্ত হবে। জাতিসংঘভুক্ত দেশের জন্য তা কার্যকর হবে।

১৯৯৭ সালের পর ৩৫টি দেশের অনুসমর্থন পাওয়ার জন্য প্রায় ১৭ বছর অপেক্ষা করতে হয়েছে। ৩৪টি দেশ অনুসমর্থন দেওয়ার পর দীর্ঘদিন আইনটি অনুসমর্থন পাওয়ার অপেক্ষায় ঝুলে ছিল। ৩৫তম দেশ হিসেবে ভিয়েতনাম আইনটির জন্য অনুসমর্থন দেয়।

কনভেনশনে উল্লেখ করা হয়েছিল, ৩৫তম দেশ অনুসমর্থন করার অব্যবহিত ৯০ দিন পর তা আইনে পরিণত হবে। সেই বিধান অনুযায়ী ২০১৪ সালের ১৭ আগস্ট আন্তর্জাতিক পানি প্রবাহ কনভেনশনে গৃহীত আইন প্রয়োগ উপপযোগী হয়ে ওঠে।

তবে এখনও বাংলাদেশ, ভারত ও নেপাল আন্তর্জাতিক পানি প্রবাহ কনভেনশনে সমর্থন জানায়নি। এই সমর্থন দিলে বিশেষত আন্তঃসীমান্তীয় নদীগুলোর ক্ষেত্রে কোন দেশ ক্ষতিগ্রস্ত হলে তারা প্রতিকার চাইতে পারবে। তবে প্রতিকার চাওয়ার আগে তাদের অনুসমর্থন দেওয়ার প্রয়োজন হবে।

সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট ডিভিশন গত ১ জুলাই দেশের সব নদীকে জীবন্ত সত্তা ঘোষণা করে একটি রায় দিয়েছেন। এ রায় অনুযায়ী জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনকে নদীর অভিভাবক ঘোষণা করা হয়েছে। আইনগতভাবেও নদী রক্ষায় জোর দেওয়া হয়েছে।

গোলটেবিল বৈঠকে বক্তরা বলেন, নদী বাঁচাতে প্লাস্টিকের ব্যবহার কমিয়ে আনতে হবে। এ জন্য পরিবেশবান্ধব প্লাস্টিক বাজারে আনতে হবে যাতে এটি মাটির সঙ্গে মিশে যায়। নদীর প্রবাহ চালু রাখতে শীতকালে উজানের দেশ পানি আটকে রাখতে পারে না।

গোলটেবিল বৈঠকে বক্তব্য রাখেন, জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের সার্বক্ষণিক সদস্য মোহাম্মদ আলাউদ্দিন, বিআইডব্লিউটিএ’র যুগ্ম পরিচালক এ কে এম আরিফ উদ্দিন, জল ও পরিবেশ ইন্সটিটিউটের চেয়ারম্যান ম. ইনামুল হক, পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলনের নির্বাহী সদস্য তোফায়েল আহমেদ, স্ট্যামফোর্ড ইউনিভার্সিটির প্রফেসর ড. কামরুজ্জামান, রিভারাইন পিপল-এর পরিচালক মোহাম্মদ এজাজ, বাংলাদেশ নদী পরিব্রাজক দলের সভাপতি মো. মনির হোসেন, নোঙ্গরের চেয়ারম্যান শামস্ সুমন প্রমুখ।

আ'লীগের উপদেষ্টা পরিষদে আতাউর রহমান আতা

আ'লীগের উপদেষ্টা পরিষদে আতাউর রহমান আতা
আতাউর রহমান আতা, ছবি: সংগৃহীত

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মনোনীত হয়েছেন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব আতাউর রহমান আতা। ২০০১ সালে নাট্যক্ষেত্রে অবদানের জন্য একুশে পদক পেয়েছিলেন তিনি।

শনিবার (১৭ আগস্ট) দলের দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলের ২০তম জাতীয় কাউন্সিলের প্রদত্ত ক্ষমতাবলে আতাউর রহমানকে উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য হিসেবে মনোনয়ন দেন।

প্রসঙ্গত, ১৯৪১ সালের ১৮ জুন নোয়াখালীতে আতাউর রহমানের জন্ম। স্কুলজীবনেই সাংস্কৃতিক অঙ্গনে পা রাখেন তিনি। ষাটের দশকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র থাকাকালে ২১ ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদুল্লাহ হল থেকে আবদুল্লাহ আল মামুনসহ আতাউর রহমান প্রথম মঞ্চ নাটকে অভিনয় করেন। ১৯৭২ সালে ‘বুড়ো শালিকের ঘাড়ে রোঁ’ এর মাধ্যমে তার নাট্য নির্দেশনা শুরু। পরে নিজের দল ও অন্য দলের হয়ে অসংখ্য নাটকে নির্দেশনা দিয়েছেন তিনি।

মঞ্চ নাটকের নির্দেশনার পাশাপাশি আতাউর রহমান অভিনয়ও করছেন সমানতালে। এ ছাড়া নাট্য বিষয়ক বই, নাট্যসমালোচনা, উপস্থাপনা, শিক্ষকতা, টেলিভিশন নাট্যকার, প্রবন্ধকার, বক্তা সব ক্ষেত্রেই রয়েছে আতাউর রহমানের সরব পদচারণা।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র