সিলেটে সৎ মাকে কোপালো সৎ ছেলে

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা ২৪.কম,সিলেট
গুরুতর আহত সুমনা আক্তার, ছবি: বার্তা২৪.কম

গুরুতর আহত সুমনা আক্তার, ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সিলেটে  মুহিবুর রহমান বেলাল নামে এক ব্যক্তির তৃতীয় স্ত্রীকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করা হয়েছে। আহতের নাম সুমনা আক্তার (৪৫)। স্বামী বেলালের যোগসাজশে তার প্রথম স্ত্রীর ছেলে ইমন তাকে কুপিয়ে আহত করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। অভিযুক্ত মুহিবুর সিলেট মেট্রোপলিটন এলাকার বিমানবন্দর থানার জাহাঙ্গীর নগর গ্রামের বাসিন্দা। আহত সুমনাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাতেই ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

বুধবার (২২ মে) রাত ১১ টায় সিলেট নগরীর পাঠানটুলা এলাকার সানরাইজ কমিউনিটি সেন্টারের সামনে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় সন্দেহভাজন হিসেবে শাহনুর নামে একজনকে আটক করেছে পুলিশ।

আহত সুমনা আক্তারের মেয়ে ফাইজা আক্তার জানান, বাজার করে দেওয়ার কথা বলে আমার মাকে পাঠানটুলা স্কুলের সামনে যেতে বলেন আমার সৎ বাবা মুহিবুর রহমান বেলাল। তিনি যথারীতি বাজারের টাকা হাতে দিয়ে আড়াল হয়ে যান। এরপরই ঘটনাস্থলের পাশে ওঁৎ পেতে থাকা  তার সৎ বাবার প্রথম স্ত্রীর ছেলে ইমনের নেতৃত্বে চার-পাঁচজনের একটি দল মায়ের ওপর হামলা চালায়।

হামলার সময় দা, ছুড়িসহ অন্যান্য দেশীয় অস্ত্র দিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে কুপিয়ে পালিয়ে যায়। পরে তার চিৎকারে স্থানীয় সিএনজি চালকরা তাকে উদ্ধার করে তাকে সিলেট এমএমজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। পরে ওসমানী মেডিকেল কর্তৃপক্ষ তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠান।

এদিকে আহত মহিলার স্বামী অভিযুক্ত মুহিবুর রহমান বেলাল নিজেকে নির্দোষ দাবি করে হামলার জন্য তার প্রথম স্ত্রীর ছেলে ইমনকে দায়ী করেন। তিনি এ বিষয়ের সঙ্গে কোনোভাবেই সম্পৃক্ত নন জানান তিনি। 

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সেলিম মিঞা বলেন, জমি ও পারিবারিক দ্বন্দ্বের কারণে এ হামলার ঘটনা ঘটেছে। হামলার ঘটনায় সুমনা আক্তারের হাতের রগ কেটে গেছে। আশঙ্কাজনকভাবে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য একজনকে আটক করা হয়েছে। অপর আসামিদের ধরতে পুলিশ কাজ করছে।

আপনার মতামত লিখুন :