Barta24

মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯, ৫ ভাদ্র ১৪২৬

English

তিন জোড়া স্পেশাল ট্রেনের টিকিট দিচ্ছে আজ

তিন জোড়া স্পেশাল ট্রেনের টিকিট দিচ্ছে আজ
কাঙ্ক্ষিত রেলের টিকিট পেয়ে খুশি যাত্রীরা/ছবি: সুমন শেখ
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

আসন্ন ঈদুল ফিতরে যাত্রীদের ঈদযাত্রায় দুর্ভোগ কমাতে বাংলাদেশ রেলওয়ে ৮ জোড়া ঈদ স্পেশাল সার্ভিস চালু করার উদ্যোগ নিয়েছে। তবে আজ শুক্রবার (২৪ মে) থেকে তিন জোড়া স্পেশাল ট্রেন সার্ভিসের আগাম টিকিট দেওয়া হচ্ছে।

শুক্রবার দুপুরে কমলাপুর রেলস্টেশনের স্টেশন ম্যানেজার আমিনুল হক তিন জোড়া ঈদ স্পেশাল ট্রেনের টিকিট দেওয়ার এই তথ্য জানান।

স্টেশন ম্যানেজার আমিনুল হক জানান, প্রতিবারের মত ঈদ উপলক্ষে যাত্রীর চাপ সামলাতে আমাদের কিছু ঈদ স্পেশাল সার্ভিস থাকে এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। সে হিসেবে এবার বিভিন্ন রুটে ৮ জোড়া ঈদ স্পেশাল সার্ভিস থাকবে। আজ তিন জোড়া স্পেশাল ট্রেনের অগ্রিম টিকিট দেয়া হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, ঈদ স্পেশাল সার্ভিস যুক্ত হওয়ার পর এখন প্রতিদিন টিকিট দেওয়া হচ্ছে ২৭ হাজার ৭২০ টি । ঈদ স্পেশাল সার্ভিসগুলো হল- ঈশ্বরদী ঈদ স্পেশাল, দেওয়ানগঞ্জ ঈদ স্পেশাল, লালমনি ঈদ স্পেশাল।

এসব স্পেশাল সার্ভিস গুলো আগামী ২ জুন থেকে কমলাপুর স্টেশন থেকে গন্তব্যে ছেড়ে যাবে। তবে ঈদ স্পেশাল সার্ভিসের কোন টিকিট অনলাইন এবং কোঠায় দেওয়া হবে না।

আপনার মতামত লিখুন :

সরকারবিরোধী বৈঠক, তরুণীসহ আটক ৮

সরকারবিরোধী বৈঠক, তরুণীসহ আটক ৮
চারঘাট থেকে আটককৃতরা। ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম।

সরকারবিরোধী বৈঠক করার দায়ে রাজশাহীর চারঘাট থেকে ২ তরুণীসহ ৮ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (২০ আগস্ট) দুপুরে রাজশাহী পুলিশ সুপার (এসপি) মো. শহিদুল্লাহ তার কার্যালয়ে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান।

আটককৃতরা হলেন- বামনদীঘি গ্রামের আব্দুল কুদ্দুছের দুই ছেলে ইয়ামিন সরকার (২২), ইউসুফ আলী (২৬), ইয়ামিন সরকারের স্ত্রী সাদিয়া আক্তার মিম (১৯), ফরমান আলীর ছেলে সবুজ ইসলাম (১৯), শহিদুল ইসলামের ছেলে মুরশিদুল ইসলাম (২৭), মৃত লতিফ সরকারের ছেলে আব্দুল কুদ্দুস (৫৮), আস্করপুর মধ্যপাড়ার বজিদুল ইসলামের দুই সন্তান ফাতিমা মনিকা (২৩) ও হাসিবুল হাসান (২১)।

রাজশাহী পুলিশ সুপার মো. শহিদুল্লাহ জানান, চারঘাট থানার বামনদীঘি গ্রামের আব্দুল কুদ্দুছের বাড়িতে একদল তরুণ-তরুণী সরকারবিরোধী বৈঠকে বসেছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে সেখানে অভিযান চালায় পুলিশ। অভিযানে ২ তরুণীসহ ৮ জনকে আটক করতে সক্ষম হয় তারা। এ সময় তাদের কাছ থেকে বিভিন্ন জিহাদি বই, ছাত্রশিবিরের দলীয় লিফলেট, মাসিক রিপোর্ট, সরকারবিরোধী পোস্টার, যুদ্ধাপরাধী জামায়াত নেতা গোলাম আযম ও মতিউর রহমান নিজামীর ছবি সংবলিত পোস্টার ও ফেস্টুন উদ্ধার করা হয়।

তিনি আরও জানান, আটককৃতদের নামে আগে কোনো মামলা ছিল না। তারা নতুন করে সংগঠিত হয়ে নাশকতা সৃষ্টির চেষ্টা করছিল। প্রাথমিকভাবে তারা জামায়াত-শিবিরের সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকার কথা স্বীকার করেছে। গোপনে সংগঠিত হওয়া গ্রুপটির নেতৃত্ব দেওয়া ইয়ামিন সরকার ফাজিল পাস করে স্থানীয় একটি মসজিদে ইমামতি করছে।

রাজশাহীতে অপহৃত কিশোরী উদ্ধার, গ্রেফতার হয়নি বখাটেরা

রাজশাহীতে অপহৃত কিশোরী উদ্ধার, গ্রেফতার হয়নি বখাটেরা
ছবি: সংগৃহীত

রাজশাহীর দুর্গাপুরে অস্ত্রের মুখে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যাওয়া স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (২০ আগস্ট) বেলা সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার তাহিরপুর পুরানো স্কুলের সামনের রাস্তা থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়। তবে ঘটনায় জড়িত কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

এদিন বিকেলে রাজশাহী পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান পুলিশ সুপার (এসপি) মো. শহিদুল্লাহ।

এসপি বলেন, 'অপহরণের ঘটনার পর পুলিশি তৎপরতায় অপহৃত স্কুলছাত্রীকে রাস্তায় ফেলে রেখে পালিয়ে যায় বখাটেরা। ছাত্রীকে উদ্ধার করে তার পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে। জড়িত বখাটেদের গ্রেফতার অভিযান অব্যাহত রেখেছে পুলিশ।'

জানা যায়, সোমবার (১৯ আগস্ট) বিকেলের দিকে উপজেলার কয়ামাজমপুর গ্রামের মন্ডলপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। অপহৃত কিশোরী কয়ামাজমপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী। কিশোরীর পরিবার হিন্দু সম্প্রদায়ের।'

পরিবার সূত্রে জানা যায়, গত এক বছর ধরে টুটুল নামে স্থানীয় এক যুবক কিশোরীকে উত্যক্ত করে আসছিল। বখাটেদের হাত থেকে রেহাই পেতে কিশোরীর বিয়ে ঠিক করে পরিবার। আগামী ১০ সেপ্টেম্বর তার বিয়ের দিন ঠিক করা হয়।

অপহৃত কিশোরীর বাবা জানান, ঘটনার সময় বাড়িতে তার স্ত্রী ও বৃদ্ধা মা ছিলেন। সন্ধ্যার কিছুক্ষণ আগে দু'টি মোটরসাইকেলযোগে ৪/৫ জন যুবক তার বাড়িতে আসেন। প্রথমে তারা অস্ত্রের মুখে কিশোরীর মা ও দাদিকে জিম্মি করে। পরে তার ঘরে ঢুকে স্বর্ণালংকার ও নগদ অর্থ লুট করে। পরে মেয়েকে নিয়ে যেতে উদ্যত হলে তার স্ত্রী চিৎকার দিয়ে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করেন। এ সময় তার স্ত্রীকে মারপিট করে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেওয়া হয়।

কিশোরীর বাবা বলেন, 'যারা বাড়িতে এসেছিল, তাদের একজনের হাতে পিস্তল ও একজনের হাতে ধারালো অস্ত্র (চাকু) ছিল। বাড়ির বাইরে পাহারায় ছিল আরও দুই থেকে তিন জন।'

কিশোরীর বাবা জানান, প্রায় এক বছর ধরে কায়ামাজমপুর গ্রামের ফেরদৌস আলীর ছেলে টুটুল তার মেয়েকে উত্ত্যক্ত করে আসছিল। এ নিয়ে কয়েকবার তার বাবাকে অভিযোগও করা হয়। তাতে কোনো কাজ হয়নি। টুটুলের বাবা ৩নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। ফলে ভয়ে তিনি পুলিশকে অভিযোগও করতে যাননি। বাধ্য হয়ে মেয়ের বিয়ে ঠিক করেছিলেন। এক সপ্তাহ আগে হিন্দু ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী তার আশীর্বাদ হয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র