Alexa

বাড়বে তাপমাত্রা, সম্ভাবনা নেই বৃষ্টির

বাড়বে তাপমাত্রা, সম্ভাবনা নেই বৃষ্টির

পুরনো ছবি

অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে ১৩ মে থেকে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি হয়। একই সঙ্গে কালবৈশাখী ঝড়ের তাণ্ডবও ছিল বেশ। এতে রাজধানীতে তিনজনের মৃতু্য হয়। এছাড়া বজ্রপাতেও অনেকের প্রাণহানি ঘটে। এরপরও ঘূর্ণিঝড় ফণীর আঘাতের পরবর্তী সময় থেকে তীব্র দাবদাহের পর জনজীবনে ফিরে কিছুটা স্বস্তি। এছাড়া রমজান মাস হওয়ায় রোজাদারদের মধ্যেও নেমে আসে প্রশান্তি।

তবে আবহাওয়া অফিস বলছে, শনিবার (২৫ মে) রাতে কোথাও কোথাও হালকা বৃষ্টি হলেও রোববার (২৬ মে) থেকে এর প্রবণতা অনেকটাই কমে আসবে। হয়তো দেশের দু-এক জায়গায় হালকা ধরনের বৃষ্টি হতে পারে। তবে আবারও বাড়বে তাপমাত্রা। কমবে বাতাসের বেগ। ৩৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস থেকে সর্বোচ্চ ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে পর্যন্ত এ তাপমাত্রা বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ফলে রোদের প্রখরতাও বাড়বে। আবারও দাবদাহে জনজীবনে অস্বস্তি বাড়তে পারে। রোজাদারদের মধ্যেও পড়বে এর প্রভাব।

শুক্রবার (২৪ মে) বিকেলে থেকে রাজধানীতে বৃষ্টি হয়। এরপর থেমে থেমে ভোর রাত পর্যন্ত গড়ায়। এরপর থেকে আকাশরে মুখ গোমড়া হয়ে থাকে। সকালের দিকে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হতে গিয়ে থেমে যায়। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে কমে যাওয়া তাপমাত্রা কিছুটা বাড়তে থাকে। তবে রোদের দেখা খুব একটা মেলেনি বললেই চলে।

আবহাওয়াবিদ মো. আফতাব উদ্দিন বার্তা২৪.কম বলেন, ‘শনিবার রাতে হালকা বৃষ্টি হতে পারে। তবে সম্ভাবনা কম রোববার থেকে তাপমাত্রা বাড়তে থাকবে। ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত বাড়তে পারে। আগামী ৩১ মে থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘তাপমাত্রা বাড়লেও আকাশ মেঘলা থাকার সম্ভাবনা বেশি। এছাড়া বজ্রপাতের প্রবণতা থাকবে না। অন্যদিকে বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপ থাকায় সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক  সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। এছাড়া নদীবন্দরে ২ নম্বর হুঁশিয়ারি সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।’ 

শনিবারের আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, লঘুচাপে বর্ধিতাংশ বাংলাদেশের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চল হয়ে উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে। ফলে ময়মনসিংহ, সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগের অনেক জায়গায় এবং রংপুর, রাজশাহী, ঢাকা, খুলনা, ও বরিশাল বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ী দমকা হাওয়া বা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রবৃষ্টি হতে পারে। সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা ২ থেকে ৩ ডিগ্রি বৃদ্ধি পেতে পারে। এছাড়া রাতের তাপমাত্রাও কিছুটা বৃদ্ধি পেতে পারে।

সমুদ্রবন্দরের সতর্কবার্তায় বলা হয়েছে, বজ্রমেঘের ঘণঘটা বৃদ্ধির কারণে উত্তর বঙ্গোপসাগর, বাংলাদেশের উপকূলয়ী এলাকা এবং সমুদ্রবন্দরের উপর দিয়ে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। তাই চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। সেখানে মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত সাবধানে চলাচল করতে বরা হয়েছে।

নদীবন্দরের সতর্কবার্তাায় বলা হয়েছে, যশোর, কুষ্টিয়া, খুলনা, বরিশাল, পটুয়াখালী এবং নোয়াখালী অঞ্চলসমূহের উপর দিয়ে পশ্চিম/উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় ৬০ থেকে ৮০ কিলোমিটার বেগে বৃষ্টি বা বজ্রবৃষ্টিসহ অস্থায়ীভাবে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। এসব এলাকার নদীবন্দরে ২ নম্বর নৌ হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

এছাড়া দেশের অন্যত্র পশ্চিম/উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় ৪৫ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে বৃষ্টি বা বজ্রবৃষ্টিসহ অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। এসব এলাকার নদীবন্দরে ১ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :