Barta24

বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯, ১৩ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

ডিম ছেড়ে দুর্বল মা মাছ, শিকার রোধে সতর্ক প্রশাসন

ডিম ছেড়ে দুর্বল মা মাছ, শিকার রোধে সতর্ক প্রশাসন
হালদায় মাছ শিকার রোধে টহল দিচ্ছে প্রশাসন / ছবি: বার্তা২৪
আবদুস সাত্তার
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম চট্টগ্রাম


  • Font increase
  • Font Decrease

এশিয়ার একমাত্র প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন ক্ষেত্র হালদা নদীতে ডিম ছাড়ার কারণে দুর্বল হয়ে পড়েছে মা মাছ। ফলে মাছগুলো ধরতে জাল বা অন্য কোন ফাঁদের প্রয়োজন পড়ে না, হাত দিয়েই ধরা যায়। অনেক সময় ডিম ধরার জালেও আটকে যায় দুর্বল মা মাছ।

এসব মা মাছকে রক্ষার জন্য রোববার (২৬ মে) সকাল থেকে জরুরি সতর্ক অবস্থানে রয়েছে প্রশাসন।

এর আগে শনিবার (২৫ মে) বেলা সাড়ে ১১টা থেকে রাত ৩টা পর্যন্ত ডিম সংগ্রহ করা হয়েছে। হালদা নদীতে ২৩০টি নৌকায় ৭ হাজার কেজি মা মাছের ডিম পেয়েছে জেলেরা। রোববার থেকে জেলেরা প্রাপ্ত ডিম থেকে রেণু ফুটানোর কাজে ব্যস্ত।

হালদা পাড়ের ডিম সংগ্রহকারী রেকন মাঝি বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘হালদায় ডিম ছাড়ার পর মা মাছগুলো চিত হয়ে ভাসে। প্রায় আধা মরা হয়ে যায় মাছগুলো। স্থানীয় অনেকে তখন এসব মাছ শিকার করার চেষ্টা করেন। তারা জানে এটি বড় অন্যায়। কিন্তু কে শুনে কার কথা।’

হালদা নদীর রামদাশ হাট ঘাটের কামাল সওদাগর বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘মা মাছ শিকারীদের আমরাও বাধা দিই। এখন প্রশাসন সজাগ। এরপরও অনেকে চুরি করার চেষ্টা করে। কুশ, জাল বা ঘেরা দিয়ে মাছ শিকারের চেষ্টা করে।’

এ ব্যাপারে হালদার গবেষক চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালেয়র প্রাণী বিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. মনজুরুল কিবরিয়া রাতে হালদা পাড়ে বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘ডিম ছাড়ার পর মা মাছ অসম্ভব দুর্বল হয়ে পড়ে। অনেক মা মাছ বেহুশ অবস্থায়ও থাকে। কারণ ডিম ছাড়ার জন্য একটি মাছে অনেক শক্তির প্রয়োজন হয়।’

হাটহাজারী উপজেলা ইউএনও রুহুল আমিন বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘রাতে হালদা নদীতে পাহারায় ছিল মৎস্য অফিসের লোকজন। সকাল থেকে নদীতে টহল দেওয়া হচ্ছে। দুটি ভ্রাম্যমাণ আদালতের মোবাইল টিম রাখা হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘কেউ যদি কোনো ধরনের অন্যায় কাজ করে সাথে সাথে জেল। মা মাছ ধরা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। মা মাছের দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে যে শিকার করবে তার রেহায় হবে না।’

হাটহাজারী মৎস্য কর্মকর্তা আহজার উদ্দিন বার্তা২৪.কমকে জানান, ‘ডিম ছাড়ার পর মা মাছকে রক্ষার জন্য আমরা নদীতে টহলে আছি।’

এর আগে শুক্রবার (২৪ মে) সন্ধ্যার পর থেকে বজ্রসহ প্রবল বর্ষণ শুরু হলে নদীর পাড়ে অবস্থান নেন ডিম আহরণকারীরা। বর্ষণের ফলে হালদার সঙ্গে সংযুক্ত খাল, ছড়া ও নদীতে ঢলের সৃষ্টি হয়। এতে নদীতে ডিম ছাড়ে মা মাছ।

এদিকে, মাছুয়া ঝর্ণা, শাহ মাদারি এবং মদুনা ঘাটসহ তিনটি হ্যাচারির ১০৮টি কংক্রিট ও ১০টি প্লাস্টিকের কুয়ায় হালদার ডিম সংরক্ষণ করা হচ্ছে। এখানেই ডিম থেকে ফুটানো হচ্ছে রেণু।

আপনার মতামত লিখুন :

সরকা‌রের বিরু‌দ্ধে সাংবা‌দিক‌দের দাঁড় কর‌ানোর ষড়যন্ত্র করছে দুদ‌ক: ক্র্যাব

সরকা‌রের বিরু‌দ্ধে সাংবা‌দিক‌দের দাঁড় কর‌ানোর ষড়যন্ত্র করছে দুদ‌ক: ক্র্যাব
দুদক কার্যালয়ের সামনে সাংবাদিকদের বিক্ষোভ, ছবি: বার্তা২৪

ক্রাইম অ্যাসো‌সি‌য়েশ‌ন অব বাংলা‌দেশের (ক্র্যাব) সভাপ‌তি আবুল খা‌য়ের বলেছেন, সরকা‌রের বিরু‌দ্ধে সাংবা‌কি‌দের দাঁড় কর‌া‌নোর ষরযন্ত্র কর‌ছে দুর্নী‌তি দমন ক‌মিশন (দুদক)। এজন্য দিপু সা‌রোয়া‌রের বিরু‌দ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার চি‌ঠি পা‌ঠি‌য়ে‌ছে।

বৃহস্প‌তিবার (২৭ জুন) সাংবা‌দিক দিপু সারোয়ার ও ইমরান হো‌সেন সুমন‌কে দুদকের হুম‌কির প্রতিবা‌দে আয়োজিত মানববন্ধন ও বি‌ক্ষোভ সমা‌বেশে তিনি এসব কথা বলেন।

ক্র্যাব সভাপ‌তি ব‌লেন, মি‌ডিয়ার লোক যেন দুদকে আস‌তে না পা‌রে, তারা যেন সরকার‌কে সহ‌যোগিতা কর‌তে না পা‌রে, সেজন্য এক শ্রেণীর লোক সব সময় তৎপর। সেই লো‌কেরা চায় কীভা‌বে সরকারের ভাবমূ‌র্তি নষ্ট করা যায়। সরকা‌রের বিরু‌দ্ধে যায় এমন এক‌টি প্লাটফর্ম তৈ‌রি কর‌তে ষরযন্ত্র ক‌রে কিছু সরকা‌রি কর্মকর্তা। যে কর্মকর্তা সাংবা‌দি‌কের বিরু‌দ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার চি‌ঠি দি‌য়ে‌ছেন, তি‌নি জে‌নেই চি‌ঠি দি‌য়ে‌ছেন। তি‌নি জা‌নেন এ চি‌ঠি দি‌লে সাংবা‌দিকরা ক্ষিপ্ত হ‌বেন, আন্দোলন কর‌বেন, সরকা‌রের ভাবমূ‌র্তি ক্ষুণ্ন হ‌বে।

‌আবুল খা‌য়ের ব‌লেন, সাংবা‌দিক‌দের এ বি‌ক্ষোভ সারা দেশ দেখ‌ছে; এমন‌কি আন্তর্জা‌তিক মি‌ডিয়ায় পর্যন্ত যা‌চ্ছে। এটা দে‌শের জন্য মঙ্গল নয়। সরকা‌রের বিরু‌দ্ধে সাংবা‌দিক‌দের দাঁড় করা‌তে ‌কর্মকর্তা এমন চি‌ঠি দি‌য়ে‌ছে। আমরা এমন ব্যক্তি‌কে দুদক থে‌কে সরিয়ে দেওয়ার আহবান জানাই। সেই কর্মকর্তা দুদ‌কের ভা‌লো চায় না, সরকা‌রের ভা‌লো চায় না। ষরযন্ত্রকারী এই দুদক কর্মকর্তা‌ সরকার‌কে সাংবা‌দিক‌দের সা‌থে বি‌রোধ তৈরি করার ষরয‌ন্ত্রে লিপ্ত।

‘সাংবা‌দিক‌দের সা‌থে এত বড় অন্যায় করার পর তা‌কে (দুদক প‌রিচালক ফানা‌ফিল্যাহ‌) এখনও তার অবস্থা‌নে অবস্থান কর‌তে দেন, এটা সাংবা‌দিক সমাজ মে‌নে নি‌তে পা‌রে না।’

আরও পড়ুন: সাংবা‌দিক দিপুকে দেওয়া চি‌ঠির মেয়াদ শেষ: দুদক

সাংবা‌দিক দিপুকে দেওয়া চি‌ঠির মেয়াদ শেষ: দুদক

সাংবা‌দিক দিপুকে দেওয়া চি‌ঠির মেয়াদ শেষ: দুদক
সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন দুদকের জনসং‌যোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্টাচার্য, ছবি: বার্তা২৪

সাংবা‌দিক দিপু সা‌রোয়ারকে দেওয়া চি‌ঠিতে তাকে হা‌জির হ‌তে বলা হ‌য়ে‌ছিল বুধবার (২৬ জুন)। কিন্তু দিন পার হয়ে যাওয়ায় বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) দু‌র্নী‌তি দমন ক‌মিশ‌নের (দুদক) জনসং‌যোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্টাচার্য জানিয়েছেন, ওই চি‌ঠির কার্যকা‌রিতা নষ্ট হ‌য়ে গে‌ছে।

সকালে রাজধানীর সেগুন বাগিচায় দুদ‌ক কার্যালয়ের সাম‌নে বিক্ষোভ করে ক্রাইম রি‌পোর্টার্স অ্যাসো‌সি‌য়েশন অব বাংলা‌দেশের (ক্র্যাব)। পরে দুদ‌কের পক্ষ থে‌কে জনসং‌যোগ কর্মকর্তা সাংবা‌দিক‌দের এ কথা ব‌লেন।

‌তি‌নি ব‌লেন, যে চি‌ঠির মেয়াদ শেষ, তা নি‌য়ে আর কথা বলার কোনো মা‌নে হয় না। আমরা প্রশাস‌নিক ভাষায় এটা‌কে ব‌লি 'ফেড অ্যা‌কম‌প্লিট'। যে‌হেতু তা‌রিখ পে‌রি‌য়ে গে‌ছে, সুতরাং এ চি‌ঠি নি‌য়ে আর কিছু করার দরকার আছে ব‌লে আমি ম‌নে ক‌রি না। আমরা দুদক ও সাংবা‌দিকরা এক সা‌থে কাজ ক‌রি। আমরা সাংবা‌দিক‌দের রি‌পোর্ট অনুসন্ধান ক‌রি, আমরাও সাংবা‌দিক‌দের তথ্য দি‌য়ে সহ‌যোগিতা ক‌রি। অনেক অনুসন্ধা‌নের উৎস থা‌কে শুধু সাংবা‌দিক‌দের প্রতি‌বেদন। আমরা মি‌লে মিশে দুর্নীতির বিরু‌দ্ধে কাজ ক‌রি।

সাংবা‌দিক‌দের এক প্রশ্নের জবা‌বে তি‌নি ব‌লেন, চি‌ঠি‌টি লেখা হ‌য়ে‌ছে ২০১২ সা‌লের এক অনু‌মো‌দিত ফর‌মে‌টে। এখা‌নে দুইটা বিষয় থা‌কে, এক অভিযোগ সং‌শ্লিষ্ট ব্যক্তি আর অপর‌টি সা‌ক্ষী। দিপু সা‌রোয়ার সা‌ক্ষী।

তাহ‌লে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হ‌বে কার বিরু‌দ্ধে, এমন প্রশ্নের উত্তরে তি‌নি ব‌লেন, যাদের (ডিআইজি মিজান ও দুদক কর্মকর্তা এনামুল বা‌ছির) বিরু‌দ্ধে তদন্ত চল‌ছে, তাদের বিরু‌দ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া অব্যাহত থাক‌বে।

দুদক প‌রিচালক ফানা‌ফিল্যার বিরু‌দ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হ‌বে কি-না, এমন প্রশ্নে তি‌নি ব‌লেন, তা‌কে শোকজ করা হ‌য়ে‌ছে। সাত দিনের ম‌ধ্যে তা‌কে দুই রকম চি‌ঠি দেওয়ার কারণ জানা‌তে বলা হ‌য়ে‌ছে।

এসময় দুদক কর্মকর্তা প্রণব কুমা‌রের বক্তব্য প্রত্যাহা‌র ক‌রে পাল্টা বক্তব্য দেন ক্র্যাব সভাপ‌তি আবুল খা‌য়ের। তি‌নি ব‌লেন, তিনি (প্রণব কুমার) চি‌ঠির কার্যকা‌রিতা শেষ হ‌য়ে‌ছে ব‌লে‌ছেন। কিন্তু আস‌লে এসব নো‌টি‌শের কার্যকা‌রিতা শেষ হয় না। কাউ‌কে পাঠা‌নো এক‌টি আদেশ সময়মত না পৌঁছা‌লে সে আদেশের মেয়াদ শেষ হ‌য়ে যায় না। তারা আস‌লে এ চি‌ঠি ন‌থি‌তে রাখ‌বেন এবং যেকোনো সময় এ আদেশ ব‌লে তারা আমা‌দের সহক‌র্মী সাংবা‌দিক‌দের লাঞ্ছিত কর‌তে পার‌বেন। আমরা অন‌তি‌বিল‌ম্বে এ চি‌ঠি প্রত্যাহার করার দা‌বি জানা‌ই।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র