Barta24

বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৭ ভাদ্র ১৪২৬

English

সিলেটে উন্নয়ন বিড়ম্বনায় ঈদের কেনাকাটা

সিলেটে উন্নয়ন বিড়ম্বনায় ঈদের কেনাকাটা
রাস্তায় খোঁড়াখুঁড়ি চলছে, দুর্ভোগে জনসাধারণ
নূর আহমদ
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
সিলেট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

ঈদের কেনাকাটা করতে এসে উন্নয়ন বিড়ম্বনায় পড়ছেন সাধারণ লোকজন। নগরীর শপিংমলগুলোর সামনে দিনরাত চলছে খোঁড়াখুঁড়ি। ফুটপাতগুলোও অরক্ষিত। এ নিয়ে ঈদের শপিং করতে আসা বিভিন্ন শ্রেণী পেশার লোকজন পড়ছেন চরম বিপাকে।

নগরীর বন্দরাবাজার থেকে জিন্দাবাজার সড়ক ব্যস্ততম একটি সড়ক। বন্দরাবাজার কোর্ট পয়েন্টে নেমে অনেকেই পায়ে হেটে জিন্দাবাজারের বিভিন্ন বিপণী বিতানগুলোতে শপিং করতে যান। গত তিন মাস ধরে এই সড়কে যানচলাচল বক্সকালভার্ড নির্মাণের জন্য বন্ধ ছিল। সম্প্রতি সড়কটি খুলে দিলেও সড়কের দুপাশের ফুটপাত দখল করে রেখেছে হকাররা। অন্যদিকে একপাশে এখনো ড্রেন নির্মাণ কাজ চলছে। এতে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে জন সাধারণের।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/27/1558956668726.jpg

জিন্দাবাজার থেকে চৌহাট্টা সড়কে গত ৪/৫ দিন ধরে সড়কের একপাশ খুঁড়ে মাটির নিচ দিয়ে বৈদ্যুতিক লাইন সঞ্চালনের কাজ চলছে। এজন্য দিনে রাতে সমানতালে চলছে খোঁড়াখুঁড়ি। ফলে রাস্তার ওপরে মাটি তুলে রাখায় পথচারীদের চলাচলেও বিঘ্ন সৃষ্টি করছে। একই অবস্থা আম্বরখানা থেকে চৌহাট্টা সড়কেরও।

সিলেটের বিশ্বনাথ থেকে শপিং করতে আসা আব্দুল কাদির জানান, আলহামরা শপিং সিটি থেকে কেনাকাটা করে পায়ে হেটে কাজি ম্যানশন যেতে চেয়েছিলাম। স্ত্রী ও সন্তানদের শপিং সেন্টার থেকে বের করে নিয়ে এসে যেন বিপাকে পড়েছি।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/27/1558956688732.jpg

তিনি বলেন ‘সিটি করপোরেশন যেন রাস্তা খোঁড়াখুঁড়ির সময় পেলনা।’

শুকরিয়া শপিংমলে কেনাকাটা করতে আসা কলেজ শিক্ষক শারমিন সুমি বলেন, ‘এক মার্কেট থেকে অন্য মার্কেটে যাওয়ার কোন সুযোগ নেই। বের হলে ফুটপাত নেই, সড়ক খুঁড়ে মাটি তোলার কারণে পথচলাও কঠিন হয়ে পড়েছে।’

সিলেট সিটি করপোরেশনের চীফ ইঞ্জিনিয়ার (ভারপ্রাপ্ত) নূর আজিজুর রহমান জানান, কাজের একটি নির্দিষ্ট সময় বেধে দেয়া আছে। এজন্য ঠিকাদাররা দ্রুত কাজ সম্পন্ন করার চেষ্টা করছেন। তবুও যাতে জন দুর্ভোগ না বাড়ে আমরা তদারকিতে রেখেছি।

এ ব্যাপারে সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী জানান, পুরো নগরীতে উন্নয়ন কাজ চলছে, কারণ একটি কাজ সম্পন্ন না হলে অন্যটি আটকে থাকে। এজন্য একটু দ্রুততম সময়ের মধ্যে কাজ করছেন ঠিকাদাররা। তবে যে সব জায়গায় সড়কে মাটি তুলে রাখা হয়েছে তা দ্রুত অপসারণের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। মেয়র নগরবাসীর সাময়িক অসুবিধার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন।

আপনার মতামত লিখুন :

খুলনায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় আসামির মৃত্যু

খুলনায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় আসামির মৃত্যু
খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, ছবি: সংগৃহীত

খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালের প্রিজন সেলে চিকিৎসাধীন শামসু মল্লিক (৭৫) নামের এক আসামি মারা গেছেন।

বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট) দুপুরের দিকে তিনি মারা যান। শামসু মল্লিক নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের একটি মামলার আসামি ছিলেন। সে রূপসার কাশেম মল্লিকের ছেলে।

ওই আসামি গত কয়েকদিন ধরেই জ্বরে আক্রান্ত ছিলেন বলে জানান খুলনার জেলার মো. জান্নাত উল ফরহাদ।

তিনি বলেন, 'জ্বরে আক্রান্ত হয়ে গত ১৯ আগস্ট থেকে তিনি জেলা কারাগারের হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। সেখানেই তিনি মারা যান।'

খুলনা জেলার রূপসা থানায় দায়ের হওয়া নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের একটি মামলায় তিনি আসামি ছিলেন। রূপসা থানার মামলা নং-১০ (৬) ১৯ জিআর -১৮৮/১৯।

উক্ত ব্যক্তির মরদেহ ময়না তদন্ত শেষে জেলা কারাগার কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানা যায়।

ইউনিমার্ট ও বেঙ্গল ব্লুবেরি হোটেলকে জরিমানা

ইউনিমার্ট ও বেঙ্গল ব্লুবেরি হোটেলকে জরিমানা
ইউনিমার্টে মেয়াদ উত্তীর্ণ ওষুধ, উত্তর সিটি করপোরেশনের অভিযান/ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

মেয়াদ উত্তীর্ণ ওষুধ রাখার দায়ে ইউনিমার্টকে জরিমানা করেছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন। অন্যদিকে নিরাপদ খাদ্য আইন ভঙ্গ করায় বেঙ্গল ব্লুবেরি হোটেলকেও জরিমানা করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট) রাতে ডিএনসিসি’র নগর ভবনের নিচের ইউনিমার্ট ও বেঙ্গল ব্লুবেরিকে জরিমানা করা হয়। ডিএনসিসি’র নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাজিদ আনোয়ার ও আব্দুল হামিদ মিয়া পৃথক দু’টি অভিযানে এই জরিমানা আদায় করে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/22/1566487047787.jpg

ইউনিমার্টের অপরাধ তাদের ফার্মেসিতে মেয়াদ উত্তীর্ণ ওষুধ ৪ ডিগ্রির নিচে তাপমাত্রায় তরল দুধ না রাখায় নিরাপদ খাদ্য আইন ২০১৩ এর ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনের ৩৫, ৫১ ও ৫২ ধারা ভঙ্গ করেছে। এই অপরাধে প্রতিষ্ঠানটিকে ৫ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/22/1566486844667.jpg

এ বিষয়ে ইউনিমার্টের এক্সিকিউটিভ কোয়ালিটি কন্ট্রোল ওয়াকিল আহমেদ বলেন, আমরা যে ফ্রিজ ব্যবহার করছি সেটা নির্দিষ্ট সময় যাওয়ার পর ডিফ্রস্ট হয়।  ডিফ্রস্ট হলে তাপমাত্রা ছেড়ে দেয়, তখন দেখা যায় তাপমাত্রা কিছুটা হেরফের হয়। আর মেয়াদ উত্তীর্ণ ওষুধ একটা উপায়ে সংগ্রহ করে ফেরত দিতে হয় সেটা করতে গিয়ে ভুলবশত এটা হয়েছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/22/1566487065559.jpg

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আবদুল হামিদ মিয়া বলেন, তরল দুধ ৪ ডিগ্রি তাপমাত্রা নিচে রাখার কথা সেটি রাখা হয়নি। যা একটি অপরাধ। নিরাপদ খাদ্য আইন ২০১৩ এবং ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনের ৩৫, ৫১ এবং ৫২ ধারায় তাদের ৫ লাখ টাকা জরিমানা এবং অনাদায়ে এক মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড। আর মেয়াদ উত্তীর্ণ ওষুধ ধ্বংস করা হবে। এছাড়া পরবর্তিতে আবারও মেয়াদ উত্তীর্ণ ওষুধ পেলে তাদের লাইসেন্স বাতিল করা হবে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/22/1566486900316.jpg

বেঙ্গল ব্লুবেরি হোটেলের জরিমানার বিষয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাজিদ আনোয়ার বলেন, তাদের ফ্রিজে কন্টামিনেশন হয়েছে, তার মানে হচ্ছে একই ফ্রিজে এক সঙ্গে মাছ, মাংস, সবজিসহ বিভিন্ন জিনিস রয়েছে। তাছাড়া ফ্রিজে কোনও খাদ্য পণ্য রাখলে তার গায়ে মেয়াদ উত্তীর্ণের তারিখ লিখে রাখতে হয় যেটা তারা করেনি। এজন্য গুলশান ৯০ নম্বর রোডে বেঙ্গল ব্লুবেরি হোটেলকে ৭ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র