Barta24

বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৭ ভাদ্র ১৪২৬

English

সিলেটে ঈদের কেনাকাটায় বৃষ্টির বাগড়া

সিলেটে ঈদের কেনাকাটায় বৃষ্টির বাগড়া
ছবি: বার্তা২৪.কম
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
সিলেট


  • Font increase
  • Font Decrease

সিলেটে সাধারণত ২০ রোজার পরে জমে ওঠে ঈদ বাজার। তবে সোমবার (২৭ মে) ২১ রোজায় বৃষ্টিতে দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে বাজার করতে আসা ক্রেতা সাধারণের। হঠাৎ বৃষ্টির বাগড়া ছন্দপতন ঘটিয়েছে সিলেটের ঈদ বাজারে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, সোমবার থেকে সিলেটে ঈদ বাজার পুরোদমে জমে উঠেছে। রাত সাড়ে ১০টায় হঠাৎ করে বৃষ্টি শুরু হয়। এতে বিভিন্ন মার্কেটে আটকা পড়ে ক্রেতারা। সাধারণত বিপণী বিতানগুলো পাশাপাশি হওয়ায় এক মার্কেটে পছন্দ না হলে অন্য মার্কেটে গিয়ে কেনাকাটা করেন ক্রেতারা। সোমবার রাতে আর সেটি হয়ে ওঠেনি।

সিলেট শহরতলীর নোয়াখুররমখলা গ্রামের হামিদুর রহমান জানান, মেয়ের জন্য ড্রেস কিনতে বের হয়েছিলেন। হঠাৎ বৃষ্টি শুরু হওয়ায় মার্কেটে দাঁড়ানোরই সুযোগ পাচ্ছেন না। তবে যেহেতু এখনো সময় আছে আগামীকাল শপিং করে নিবেন বলেও জানান তিনি।

ব্যাংক কর্মকর্তা শামসুদ্দিন কেনাকাটা করতে এসেছিলেন পরিবারের সদস্যদের নিয়ে। শুকরিয়া মার্কেটে যাওয়ার কথা থাকলেও বৃষ্টির কারণে আটকা পড়েন সিলেট প্লাজায়।

তিনি জানান, আজ হয়তো আর শপিং করা যাবে না। তবে বৃষ্টি যাই হোক, ভয় হচ্ছে খোঁড়াখুঁড়ি রাস্তা পারাপার নিয়ে। কারণ রাস্তায় উন্নয়ন কাজ চলায় বৃষ্টি আরও বেশি দুর্ভোগ বাড়িয়ে দিয়েছে।

ব্লুওয়াটার শপিং সিটির ফাইজা ফ্যাশনের মালিক আব্দুল জানান, সিলেটে সাধারণত ২০ রোজার পরে বাজার শুরু হয়। আজ সন্ধ্যা থেকে বিপুল সংখ্যক ক্রেতা সমাগম ঘটে। তবে বৃষ্টির বাগড়ায় সব এলোমেলো হয়ে গেছে।

এদিকে বৃষ্টিতে চরম বিপাকে পড়েন ফুটপাতের ভাসমান ব্যবসায়ীরা। রফিক মিয়া নামে এক হকার বলেন, ‘এভাবে আগামীর দিনগুলোর আবহাওয়া ভালো না হলে আমাদের ব্যবসার বারোটা বাজবে। বৃষ্টির কারণে ক্রেতারাও পড়েছে চরম বিপাকে। তারা কোনো রকমে বাড়ি ছুটছে।’

আপনার মতামত লিখুন :

যোগ্যতা নিয়েই রাজনৈতিক দলে অংশ নিতে চান খুলনার নারী নেত্রীরা

যোগ্যতা নিয়েই রাজনৈতিক দলে অংশ নিতে চান খুলনার নারী নেত্রীরা
খুলনায় নারী নেত্রীদের মতবিনিময় সভা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

যোগ্যতা নিয়েই রাজনৈতিক দলের কার্যক্রমে অংশ নিতে চান খুলনার নারী নেত্রীরা। খুলনার নারী নেত্রীরা বলেছেন, স্বামী, সন্তান, সংসার, চাকরি সামলে নারীদের কাজ করতে হয়। তারপরও তারা এগিয়ে চলছে। তাই কোটা নয়, যোগ্যতার ভিত্তিতেই নারীরা এগিয়ে যাবে। রাজনৈতিক দলের কমিটিতে যোগ্যতার ভিত্তিতে ৩৩ শতাংশ নারীর অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে।

বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট) দুপুরে নগরীর উমেশচন্দ্র পাবলিক লাইব্রেরি মিলনায়তনে নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন বিষয়ক মতবিনিময় সভায় এক মঞ্চে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির তৃনমূলের নারী নেত্রীরা এসব কথা বলেন। ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনাল এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন।

খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বিএমএ সালামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানের বক্তব্য দেন, জেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাড. এস এম শফিকুল আলম মনা, জেলা আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাড. ফরিদ আহমেদ, নিমাই মন্ডল, জুবায়ের আহমেদ জবা, বিএনপি নেতা বিএম কামরুজ্জামান টুক, মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী অধ্যক্ষ দেলোয়ারা বেগম, হোসনে আরা চম্পা, মহিলা দলের জেলা সভাপতি অ্যাডভোকেট তসলিমা খাতুন ছন্দা, নারী নেত্রী শোভা রাণী হালদার প্রমুখ।

এতে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নারী সংগঠনের অর্ধ শতাধিক প্রতিনিধি অংশ নেন।

খুলনায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় আসামির মৃত্যু

খুলনায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় আসামির মৃত্যু
খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, ছবি: সংগৃহীত

খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালের প্রিজন সেলে চিকিৎসাধীন শামসু মল্লিক (৭৫) নামের এক আসামি মারা গেছেন।

বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট) দুপুরের দিকে তিনি মারা যান। শামসু মল্লিক নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের একটি মামলার আসামি ছিলেন। সে রূপসার কাশেম মল্লিকের ছেলে।

ওই আসামি গত কয়েকদিন ধরেই জ্বরে আক্রান্ত ছিলেন বলে জানান খুলনার জেলার মো. জান্নাত উল ফরহাদ।

তিনি বলেন, 'জ্বরে আক্রান্ত হয়ে গত ১৯ আগস্ট থেকে তিনি জেলা কারাগারের হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। সেখানেই তিনি মারা যান।'

খুলনা জেলার রূপসা থানায় দায়ের হওয়া নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের একটি মামলায় তিনি আসামি ছিলেন। রূপসা থানার মামলা নং-১০ (৬) ১৯ জিআর -১৮৮/১৯।

উক্ত ব্যক্তির মরদেহ ময়না তদন্ত শেষে জেলা কারাগার কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানা যায়।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র