সেনা কর্মকর্তাদের পদোন্নতির বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর একগুচ্ছ নির্দেশনা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা ২৪.কম, ঢাকা
সেনা কর্মকর্তাদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

সেনা কর্মকর্তাদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

  • Font increase
  • Font Decrease

মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাস, নেতৃত্ব, পেশাগত দক্ষতা, শৃঙ্খলা, সততা, বিশ্বস্ততা ও  আনুগত্য সর্বোপরি প্রযুক্তিগত উপযোগিতা গ্রহণযোগ্যতা বিবেচনা করে সেনা সদস্যদের পদোন্নতি দেয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, একটি দেশের গণতন্ত্রকে প্রতিষ্ঠিত ও সুসংহত করতে একটি শক্তিশালী ও সুশৃঙ্খল সেনাবাহিনী অত্যন্ত সহায়ক ভূমিকা পালন করে। যারা সুশিক্ষিত, কর্মক্ষম, সচেতন, বুদ্ধিমান এবং সর্বোপরি গণতন্ত্রকে সুসংহত করার জন্য দৃঢ় প্রত্যয়ের অধিকারী এরূপ যোগ্য অফিসারদের কাছে নেতৃত্ব ন্যাস্ত করতে হবে। আপনাদেরকে সবকিছুর ঊর্ধ্বে থেকে নিরপেক্ষ দৃষ্টিতে বিচার বিশ্লেষণ করে মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী দেশপ্রেমিক যোগ্য নেতৃত্ব খুঁজে বের করতে হবে।

রোববার (১৬ জুন) সেনাবাহিনী সদর দপ্তরের সেনাসদর কনফারেন্স হল (হেলমেট) 'সেনাসদর নির্বাচনী পর্ষদ-২০১৯' এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে পর্ষদের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/16/1560684654954.jpg

আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের সরকার সর্বদাই জনগণের সেবক হিসেবে দেশ পরিচালনা করতে চায়, কখনেই শাসক হিসেবে নয়। বর্তমান সরকারের রাষ্ট্রপরিচালনাকালীন যখনই প্রয়োজন হবে, তখনই সেনাবাহিনী জনগণের পাশে এসে দাঁড়াবে এটা আমার দৃঢ় বিশ্বাস। এজন্য যোগ্য, দক্ষ, কর্মক্ষম এবং দেশপ্রেমিক অফিসারদের হাতে এর নেতৃত্ব ন্যস্ত করতে হবে।

তিনি বলেন, আমি খুবই আনন্দিত যে, সেনাবাহিনী তাদের অফিসারদের পদোন্নতির জন্য TRACE (Tabulated Record and Comparative Evaluation) এরমত একটি আধুনিক পদ্ধতির উপর জোর দিচ্ছে। যা কিনা পেশাগত দক্ষতার বিভিন্ন দিকের তুলনামূলক মূল্যায়ন প্রকাশ করে। এর সঙ্গে আপনারা Equality. Justice এবং Merit কে Respect করে যোগ্য ব্যক্তিকে পদোন্নতির জন্য নির্বাচন করবেন।

সেনা সদস্যদের মনোবল বৃদ্ধিতে সরকার গৃহীত বিভিন্ন সম্প্রসারণ ও কল্যাণমুখী পদক্ষেপের কথা স্মরণ করেন প্রধানমন্ত্রী। একটি আধুনিক ও যুগপোযোগী প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা গড়ে তুলতে সরকারের নেয়া কর্মকাণ্ড তুলে ধরেন তিনি।

এরআগে প্রধানমন্ত্রী সেনাসদরে পৌঁছালে তাঁকে স্বাগত জানান সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ।

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মোঃ নজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় এর সচিব সাজ্জাদুল হাসান, প্রেস সচিব ইহসানুল করিম, সেনাবাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দসহ আরো অনেকে।

উল্লেখ্য, সেনাবাহিনীর কর্মকর্তাদের পদোন্নতির লক্ষ্যে ৫ দিনব্যাপী চলবে সেনাসদর নির্বাচনী পর্ষদের কার্যক্রম। এ পর্ষদের মাধ্যমে কর্নেল হতে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এবং লেঃ কর্নেল হতে কর্নেল পদবিতে পদোন্নতির জন্য সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

আপনার মতামত লিখুন :