Barta24

শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯, ৪ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

'৮০ টাকার আদা ১৬০ টাকা কেন?'

'৮০ টাকার আদা ১৬০ টাকা কেন?'
সচিবালয়ে মতবিনিময় সভায় বাণিজ্যমন্ত্রী, ছবি: বার্তা২৪.কম
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
ঢাকা


  • Font increase
  • Font Decrease

বর্তমানে খুচরা বাজারে আদার দাম দ্বিগুণ বেড়েছে। ৮০ টাকার আদা ১৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তবে আদার দ্বিগুণ দাম বাড়া নিয়ে ব্যবসায়ীদের কাছে এমন প্রশ্ন তুলেছেন বাণিজ্য সচিব মো. মফিজুল ইসলাম।

তিনি বলেছেন, 'মাত্র ১৫ দিনে এটা বেড়ে দ্বিগুণ হলো কেন? আমি গতকালও এক কেজি আদা ১৬০ টাকায় ক্রয় করেছি। আগামী কোরবানির ঈদ আসতে আসতে এটা আরও বেড়ে যাবে। কিন্তু এটা কেন? এটা হতে দেওয়া যাবে না।'

মঙ্গলবার (১৮ এপ্রিল) সচিবালয়ে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

আদা ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, 'যে পরিমাণ আদা চাহিদা আছে সেই পরিমাণ আদা আপনারা আমদানি করেন। কোনভাবেই যাতে আদার দাম বৃদ্ধি না পায়।'

এ সময় বাবুবাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও আড়তদার আনোয়ার হোসেন বলেন, 'আমরা যেসব দেশ থেকে বিশেষ করে ভারত, চায়না ও মায়ানমার থেকে আদা আমদানি করি সেসব দেশে এবার উৎপাদন কম হয়েছে। ফলে এবার আদার দাম বেশি থাকবে।'

এ বিষয়ে সচিব মফিজুল বলেন, 'নো, যে পরিমাণ আমদানি করার তা বিভিন্ন দেশ থেকে আমদানি করেন। এক সঙ্গে সব দেশে উৎপাদন কম হয়েছে এটা বিশ্বাসযোগ্য নয়। পর্যাপ্ত আদা আমদানি করতে হবে, যাতে কোনভাবেই আদার দাম না বাড়ে।' এক্ষেত্রে আমাদের কোনো সহযোগিতা দরকার হলে তা জানান।

এ সময় ব্যবসায়ী সমিতির এই নেতা বলেন, 'মিয়ানমার থেকে আমরা দুটি পথে আদা আমদানি করি। একটা হলো চট্রগ্রাম পোর্ট দিয়ে আরেকটা টেকনাফ দিয়ে। টেকনাফ দিয়ে আমরা সরাসরি আমদানি করতে পারি না। এ পথ মিয়ানমারের আর্মি নিয়ন্ত্রণ করে। কয়েক ধাপে আমাদের পয়সা খরচ করে আদা আনতে হয়। ফলে আদার দাম বেশি পড়ে যায়। তবে আমরা চেষ্টা করব যাতে আদার দাম আর বৃদ্ধি না পায়।'

এ সময় বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি উপস্থিত ছিলেন।

আপনার মতামত লিখুন :

আবারও সিলেটের সঙ্গে সারাদেশের যোগাযোগ বন্ধ

আবারও সিলেটের সঙ্গে সারাদেশের যোগাযোগ বন্ধ
৭-৮ ঘণ্টা বন্ধ থাকবে সিলেটের সাথে সারাদেশের সম্পূর্ণ যোগাযোগ, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার ওলিপুরে রেল ক্রসিং সংস্কার কাজ চলায় আবারও সিলেটের সঙ্গে সারাদেশের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। এতে আবারও দুর্ভোগে পড়তে হয়েছে সিলেটের কয়েক হাজার যাত্রীদের। সিলেটের সঙ্গে সারাদেশের যোগাযোগ অন্তত ৭/৮ ঘণ্টা বন্ধ থাকবে। 

শুক্রবার (১৯ জুলাই) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের যান চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়। পরে রাত ৮টার দিকে রেল লাইন তুলে ফেলায় রেল যোগাযোগও বন্ধ হয়ে পড়ে। রাত ২/৩টার আগে রেল ক্রসিং সংস্কার কাজ শেষ হবে না বলে জানিয়েছে রেল কর্তৃপক্ষ। 

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/19/1563547271734.jpg
 রাত ২/৩টার দিকে ফের রেলসহ সব ধরণের যান চলাচল স্বাভাবিক করে দেয়া হবে

 

শায়েস্তাগঞ্জ স্টেশন মাস্টার এবিএম মঈনুল ইসলাম বলেন, 'ওলিপুর এলাকায় রেল ক্রসিং সংস্কার কাজ চলায় শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা থেকে সিলেট-ঢাকা মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ করা হয়েছে। পরে রাত ৮টার দিকে লাইন তুলে ফেলায় রেল যোগাযোগও বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। রাত ২/৩টার দিকে ফের রেলসহ সব ধরণের যান চলাচল স্বাভাবিক করে দেয়া হবে।' 

পূর্ব ঘোষণা ছাড়া সংস্কার কাজ পরিচালনা করায় সীমাহীন ভোগান্তিতে পড়েছেন সিলেট বিভাগের চার জেলার কয়েক হাজার যাত্রী। সন্ধ্যা ৭টা থেকে মহাসড়কের দু'পাশে কয়েক শতাধিক যানবাহন আটকা পড়েছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/19/1563547556445.jpg
সিলেট থেকে ঢাকাগামী 'জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস' শায়েস্তাগঞ্জ জংশনে আটকা পড়েছে

 

এদিকে, রেল লাইন তুলে ফেলায় সিলেট থেকে ঢাকাগামী 'জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস' শায়েস্তাগঞ্জ জংশনে আটকা পড়েছে। এছাড়া রাতে আন্তঃজেলা ট্রেনসহ আরও বেশ কয়েকটি লোকাল ট্রেন বিভিন্ন স্টেশনে আটকা পড়বে।

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার (১১ জুলাই) সন্ধ্যার দিকে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার লস্করপুর রেল ক্রসিং সংস্কার করায় রাত দুইটা পর্যন্ত বন্ধ থাকে রেল ও ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের যান চলাচল। এতে ভোগান্তিতে পড়তে হয় যাত্রীদের। এছাড়া ১৮ জুন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার শাহবাজপুর সেতু ভেঙে ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক প্রায় ১০দিনসহ দুইদিন সম্পূর্ণ যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ থাকে। 

'ইন্টারনেটমুখী হয়ে বই থেকে দূরে সরে যাচ্ছে নতুন প্রজন্ম'

'ইন্টারনেটমুখী হয়ে বই থেকে দূরে সরে যাচ্ছে নতুন প্রজন্ম'
খুলনা সিটি কর্পোরেশনর মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

জ্ঞান চর্চার জন্য বইয়ের বিকল্প নেই। নতুন প্রজন্ম অতিমাত্রায় ইন্টারনেটমুখী হওয়ায় বই থেকে দূরে সরে যাচ্ছে। তাদের মধ্যে পুস্তক পাঠের আগ্রহ সৃষ্টি করে জ্ঞানভিত্তিক ও মননশীল সমাজ গড়ে তুলতে হবে। তাহলে আজকের প্রজন্ম আগামী দিনে সুন্দর ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তুলতে ভূমিকা রাখতে পারবে বলে উল্লেখ করেন খুলনা সিটি কর্পোরেশনর মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক।

শুক্রবার (১৯ জুলাই) বিকেলে নগরীর বিএমএ মিলনায়তনে বার্ষিক গ্রন্থ প্রদর্শনীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন তিনি।

অনুষ্ঠানে তিনি ফিতা কেটে এ প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন। জ্ঞান ভিত্তিক সমাজ গঠনের উদ্দেশ্য একাডেমিক ও গবেষণামূলক গ্রন্থ রচনা ও পাঠকের কাছে তা সহজলভ্য করে তোলার লক্ষ্যে প্রকাশনা সংস্থা 'ইউনিভার্সিটি প্রেস লিমিটেড (ইউপিএল)' এ প্রদর্শনীর আয়োজন করে। সিটি মেয়র নতুন প্রজন্মকে বইমুখী করার জন্য শিক্ষক, অভিভাবকসহ সুধীজনদের উদ্যোগী হওয়ার আহ্বান জানান।  

বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) খুলনার সভাপতি ডা. শেখ বাহারুল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার অধ্যাপক সাধন রঞ্জন ঘোষ এবং স্বাগত বক্তৃতা করেন ইউপিএল এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাহরুখ মহিউদ্দীন। অন্যান্যদের মধ্যে পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতি খুলনা শাখার সভাপতি মোঃ আলমগীরসহ সাংবাদিক ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, এ প্রদর্শনীর মাধ্যমে প্রকাশনা সংস্থাটি খুলনায় তাদের কার্যক্রম শুরু করতে যাচ্ছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র