বাজেটে স্মার্টফোন আমদানিতে বর্ধিত কর প্রত‍্যাহার চায় বিএমবিএ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
জাতীয় প্রেসক্লাবে মোবাইল ফোন আমদানিকারক, ডিস্ট্রিবিউটর ও উৎপাদনকারীদের সংগঠন বিএমবিএ আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন

জাতীয় প্রেসক্লাবে মোবাইল ফোন আমদানিকারক, ডিস্ট্রিবিউটর ও উৎপাদনকারীদের সংগঠন বিএমবিএ আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন

  • Font increase
  • Font Decrease

২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে স্মার্টফোন আমদানির উপর বর্ধিত ২৪ শতাংশ কর প্রত‍্যাহারের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ মোবাইল ফোন ব‍্যবসায়ী এসোসিয়েশন (বিএমবিএ)।

আমদানি শুল্ক ১৫ শতাংশ বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান সংগঠনের নেতারা।

বুধবার (১৯ জুন) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে মোবাইল ফোন আমদানিকারক, ডিস্ট্রিবিউটর ও উৎপাদনকারীদের সংগঠন বিএমবিএ আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বিএমবিএ'র সভাপতি মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন জিটু বলেন, মোবাইল ফোন আমদানিতে অতিরিক্ত শুল্ক ও কর আরোপের ফলে মোবাইল ব‍্যবহারকারীর সংখ্যা কমে যেতে পারে। মোবাইল ব‍্যবহারকারীর সংখ্যা কমলে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যাও কমে যাবে ফলে সরকারের রাজস্ব আদায়ও কমে যাবে।

তিনি বলেন, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে আমদানি শুল্ক ১০ শতাংশ যা ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে ১৫ শতাংশ বৃদ্ধি করে ২৫ শতাংশ করা হয়েছে। শুল্ক ও ভ‍্যাটসহ চলতি অর্থবছরে ৩০ দশমিক ৭৫ শতাংশ রয়েছে। তা বৃদ্ধি করে ৫৭ দশমিক ৩১ শতাংশ করা হয়েছে। এ অবস্থায় যদি স্মার্টফোন আমদানির উপর অতিরিক্ত শুল্ক ও কর আরোপ করা হলে এর সঙ্গে জড়িত ডিজিটাল আর্থিক লেনদেন, শিক্ষাব‍্যবস্থা, ডিজিটাল কৃষি উন্নয়ন, ডিজিটাল স্বাস্থ্যসেবা বাধাগ্রস্ত হবে।

তিনি আরও বলেন, প্রস্তাবিত শুল্কের বর্ধিত কর কার্যকর হলে চোরাইপথে মোবাইল ফোন আমদানি বেড়ে যাবে ফলে সরকার হাজার হাজার কোটি টাকা রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হবে, এবং অর্থনীতি ঝুঁকির মুখে পড়বে। সাধারণ ব‍্যবসায়ীরা হয়রানির শিকার হবেন। প্রকৃত আমদানিকারক আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হয়ে আমদানিতে নিরুৎসাহিত হবে এবং বাজারে এক ধরনের কৃত্রিম সংকটের সৃষ্টি হবে।

সংগঠনের পক্ষ থেকে তিনি এ সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসার আহ্বান জানিয়ে বলেন, আমাদের দাবি সমূহ বিবেচনা করে ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে স্মার্টফোন আমদানির উপর আরোপিত বর্ধিত কর প্রত‍্যাহার করে এ শিল্পকে এবং শিল্পের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সকলকে বিপর্যয়ের হাত থেকে রক্ষা করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট আবেদন জানাচ্ছি।

 

আপনার মতামত লিখুন :