Barta24

শুক্রবার, ২৩ আগস্ট ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬

English

পুলিশ নিজের নিরাপত্তার জন্য নয়নকে গুলি করেছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

পুলিশ নিজের নিরাপত্তার জন্য নয়নকে গুলি করেছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
সিরডাপ মিলনায়তনে সম্প্রতির বাংলাদেশ আয়োজিত 'শতবর্ষের পথে বঙ্গবন্ধু ও সম্প্রীতির বাংলাদেশ ' শীর্ষক সেমিনারে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল/ছবি: সুমন শেখ
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
ঢাকা


  • Font increase
  • Font Decrease

নিশ্চয়ই নয়ন অস্ত্র দেখিয়েছে বা নিজেকে আড়াল করার জন্য প্রচেষ্টা করেছিল। সেই মুহূর্তে পুলিশ নিজের নিরাপত্তার জন্য হয়ত নয়নকে গুলি করেছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

মঙ্গলবার (২ জুলাই) সিরডাপ মিলনায়তনে সম্প্রতির বাংলাদেশ আয়োজিত 'শতবর্ষের পথে বঙ্গবন্ধু ও সম্প্রীতির বাংলাদেশ ' শীর্ষক সেমিনারে এসে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী একথা বলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, যে তিনজন ছেলে নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যা করেছে, আমাদের নিরাপত্তা বাহিনী, গোয়েন্দা বাহিনী তাদের পিছনে সার্বক্ষণিক লেগে ছিল। তাদের গ্রেফতারের প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছিল। আমরা দুজনকে ধরেছি। আমি আগেই বলেছিলাম, আমরা সবাইকে ধরে ফেলব। তবে শেষ মুহূর্তে এই নয়ন শুধু পালিয়ে বেড়াচ্ছিল অবস্থান চেঞ্জ করছিল।

মন্ত্রী বলেন, তাই তার (নয়ন) সঙ্গে শেষ পর্যন্ত গুলিবিনিময় হয়েছে। তবে আমি এখনো জানিনা কি কারণে তাকে আসলেই গুলি করা হয়েছে। তবে এটা নিশ্চিত থাকেন, নিশ্চয়ই সে অস্ত্র দেখিয়েছিল, নিজেকে আড়াল করার চেষ্টা করেছিল। পুলিশ নিজের নিরাপত্তার জন্যই তার সঙ্গে গুলিবিনিময়ে করেছে।

অপর একটি প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আপনারা নিশ্চিন্তে থাকেন। কারা এর পিছনে ছিল। আমরা তদন্ত করে বের করব। আমরা চাই, এই ঘটনা যেন আর বাংলাদেশে না হয়।

তিনি বলেন, এ ঘটনায় প্রভাবশালী যারা থাকবে আমরা  তাদেরকেও বের করবো। আপনারা দেখেছেন, কোনো প্রভাবশালীকে এমনকি আমাদের নির্বাচিত প্রতিনিধিকেও  আমরা ক্ষমা করছি না। দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করার জন্য যা যা করার প্রয়োজন প্রধানমন্ত্রী সেগুলোই করছেন।

আপনার মতামত লিখুন :

রাজশাহীতে স্কুলছাত্রীকে অপহরণের চেষ্টা, গ্রেফতার ৩

রাজশাহীতে স্কুলছাত্রীকে অপহরণের চেষ্টা, গ্রেফতার ৩
অপহরণের অভিযোগে গ্রেফতারকৃত তিনজন, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

রাজশাহীতে স্কুল থেকে ফেরার পথে সপ্তম শ্রেণিতে পড়ুয়া এক ছাত্রীকে অপহরণের চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট) দুপুর ২টার দিকে হামিদপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে ক্লাস শেষে স্কুল ছুটির পর নিজ বাড়িতে ফেরার পথে আমচত্বর থেকে ওই ছাত্রীকে তুলে নেওয়া হয়। পরে সন্ধ্যার দিকে নগরীর নওদাপাড়ায় ফেলে রেখে যায় তারা।

ভুক্তভোগী ছাত্রীর পরিবারের অভিযোগের প্রেক্ষিতে অভিযান চালিয়ে বৃহস্পতিবার রাত ৯টার দিকে তিন যুবককে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃতরা হলেন- নগরীর আমচত্বর এলাকার ওয়েল্ডিং মিস্ত্রী আতিকুর রহমান, সহযোগী শিমুল ও অটোরিকশা চালক ফয়সাল।

নগরীর শাহ মখদুম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এসএম মাসুদ পারভেজ বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে জানান, ছুটি শেষে বাড়ি ফেরার পথে প্রায়শ আমচত্বর এলাকার দোকানে কাজ করা ওয়েল্ডিং মিস্ত্রী আতিকুর ভুক্তভোগীকে বিরক্ত করতো। মাঝেমধ্যে প্রেমের প্রস্তাব দিতো।

বৃহস্পতিবারও সে প্রতিদিনের মতো দুপুর ২টার পর স্কুল শেষে বাড়ি ফেরার পথে আমচত্বর পৌঁছালে আতিকুর তার সহযোগি শিমুল ও অটোরিক্সা চালক ফয়সালের সহযোগীতায় জোরপূর্বক ভুক্তভোগীকে রাস্তা থেকে অটোতে তুলে নিয়ে চলে যায়।

ওসি আরও জানান, ওই ছাত্রী বাড়িতে না ফেরায় পরিবারের লোকজন বিষয়টি শাহমখদুম থানায় জানায়। মৌখিকভাবে জানানোর পর থেকেই পুলিশ তাকে উদ্ধারে তৎপরতা শুরু করে। তবে সন্ধ্যার দিকে অপহরণকারী বখাটেরা ওই ছাত্রীকে আমচত্বর ফেলে রেখে চলে যায়। ছাত্রীর কাছ থেকে পরিচয় জেনে পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাদের তিনজনকে আটক করে।

ওসি এসএম মাসুদ পারভেজ বলেন, ‘রাতে ওই ছাত্রীর মা সাহেব জানবিবি বাদী হয়ে তিন যুবকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে। মামলা গ্রেফতার দেখিয়ে আটককৃতদের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হবে।’

যোগ্যতা নিয়েই রাজনৈতিক দলে অংশ নিতে চান খুলনার নারী নেত্রীরা

যোগ্যতা নিয়েই রাজনৈতিক দলে অংশ নিতে চান খুলনার নারী নেত্রীরা
খুলনায় নারী নেত্রীদের মতবিনিময় সভা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

যোগ্যতা নিয়েই রাজনৈতিক দলের কার্যক্রমে অংশ নিতে চান খুলনার নারী নেত্রীরা। খুলনার নারী নেত্রীরা বলেছেন, স্বামী, সন্তান, সংসার, চাকরি সামলে নারীদের কাজ করতে হয়। তারপরও তারা এগিয়ে চলছে। তাই কোটা নয়, যোগ্যতার ভিত্তিতেই নারীরা এগিয়ে যাবে। রাজনৈতিক দলের কমিটিতে যোগ্যতার ভিত্তিতে ৩৩ শতাংশ নারীর অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে।

বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট) দুপুরে নগরীর উমেশচন্দ্র পাবলিক লাইব্রেরি মিলনায়তনে নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন বিষয়ক মতবিনিময় সভায় এক মঞ্চে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির তৃনমূলের নারী নেত্রীরা এসব কথা বলেন। ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনাল এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন।

খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বিএমএ সালামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানের বক্তব্য দেন, জেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাড. এস এম শফিকুল আলম মনা, জেলা আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাড. ফরিদ আহমেদ, নিমাই মন্ডল, জুবায়ের আহমেদ জবা, বিএনপি নেতা বিএম কামরুজ্জামান টুক, মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী অধ্যক্ষ দেলোয়ারা বেগম, হোসনে আরা চম্পা, মহিলা দলের জেলা সভাপতি অ্যাডভোকেট তসলিমা খাতুন ছন্দা, নারী নেত্রী শোভা রাণী হালদার প্রমুখ।

এতে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নারী সংগঠনের অর্ধ শতাধিক প্রতিনিধি অংশ নেন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র