Barta24

বুধবার, ২৪ জুলাই ২০১৯, ৮ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

বিশ্বসেরা ৫০ নারী শিক্ষাবিদের একজন তুরিন আফরোজ

বিশ্বসেরা ৫০ নারী শিক্ষাবিদের একজন তুরিন আফরোজ
অধ্যাপক ড. তুরিন আফরোজ, ছবি: বার্তা২৪
সেন্ট্রাল ডেস্ক
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

বিশ্বের শীর্ষ পঞ্চাশ নারী শিক্ষাবিদের সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন অধ্যাপক ড. তুরিন আফরোজ। বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই) ভারতের মুম্বাইয়ে অনুষ্ঠিত 'ওয়ার্ল্ড এডুকেশন কংগ্রেস ২০১৯'-এ তাকে এ সম্মাননা প্রদান করা হয়।

মুম্বাইয়ে অবস্থিত বাংলাদেশের ডেপুটি হাই কমিশন তুরিন আফরোজের পক্ষে এই সম্মাননা গ্রহণ করেছে। শিক্ষাক্ষেত্রে অসাধারণ অবদান রাখার জন্য প্রতি বছর বিশ্বের ৫০ জন নারী শিক্ষাবিদকে এই সম্মাননা প্রদান করা হয়ে থাকে। জুরি বোর্ডে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ হতে স্বনামধন্য শিক্ষাবিদ, গবেষক এবং পেশাজীবীবৃন্দ পুরস্কারপ্রাপ্তদের মনোনয়ন দান করে থাকে।

ড. তুরিন আফরোজ বর্তমানে বাংলাদেশের ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটিতে আইনের অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত আছেন। গত ১৯ বছর ধরে তিনি দেশে এবং বিদেশে আইনের শিক্ষকতা করে আসছেন। ইতোপূর্বে তিনি অস্ট্রেলিয়ার ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্টার্ন সিডনি ও মোনাশ বিশ্ববিদ্যালয়ে এবং বাংলাদেশে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিষয়ে শিক্ষকতা করেছেন। অধ্যাপক আফরোজ বাংলাদেশ, ভারত, যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়া এবং যুক্তরাষ্ট্রে অর্থনীতি এবং আইন নিয়ে লেখাপড়া করেছেন।

বাংলাদেশে ১৯৮৮ সালের এইচএসসি পরীক্ষায় মানবিক শাখার সম্মিলিত মেধা তালিকায় তিনি প্রথম স্থান অধিকার করেছিলেন। ১৯৯২ সালে দিল্লী বিশ্ববিদ্যালয়ের বেস্ট অল রাউন্ড স্টুডেন্ট হিসেবে 'কমলা নেহরু পদকে' ভূষিত হন। ২০০২ সালে আইন ও অর্থনীতি বিষয়ে গবেষণার জন্য অধ্যাপক তুরিন আফরোজকে অস্ট্রেলিয়ান ল’ অ্যান্ড ইকোনোমিক সোসাইটি (AustLEA) বিশেষ সম্মাননা প্রদান করে।

তিনি ২০১৩ সাল থেকে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে এডিশনাল এটর্নি জেনারেল পদমর্যাদায় প্রসিকিউটর হিসেবে কর্মরত আছেন। অধ্যাপক আফরোজের গবেষণা কর্ম দেশ-বিদেশের বিভিন্ন জার্নাল এবং বইয়ে প্রকাশিত হয়েছে। তার লেখা আলোচিত বই সমূহের মধ্যে, ২০১৯ সালে সিঙ্গাপুর থেকে প্রকাশিত Trials of 1971 Bangladesh Genocide: Through a Legal Lens; ২০১০ সালে ঢাকা থেকে প্রকাশিত Genocide, War Crimes and Crimes Against Humanity in Bangladesh: Trial under International Crimes (Tribunals) Act, 1973 ইত্যাদি অন্যতম।

আপনার মতামত লিখুন :

রেনু হত্যার প্রধান আসামি হৃদয় গ্রেফতার

রেনু হত্যার প্রধান আসামি হৃদয় গ্রেফতার
তাসলিমা বেগম রেনু হত্যার মূল আসামি হৃদয়/ ছবি: সংগৃহীত

রাজধানীর উত্তর বাড্ডায় ছেলেধরা সন্দেহে তাসলিমা বেগম রেনু হত্যা মামলার প্রধান আসামি হৃদয়কে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) পূর্ব বিভাগের মাদক উদ্ধার টিম।

মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জের ভূলতা থেকে তাকে আটক করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম-কমিশনার মাহবুব আলম। তিনি বলেন, ‘আজ সন্ধার দিকে তাসলিমা বেগম রেনু হত্যা মামলার প্রধান আসামি হৃদয়কে গ্রেফতার করে ডিবির একটি টিম।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/23/1563900973518.jpg

এর আগে মঙ্গলবার বিকালে রাজধানীর গুলিস্তানের গোলাপ শাহর মাজার থেকে উত্তর বাড্ডায় গণপিটুনিতে নিহত তাসলিমা বেগম রেনু হত্যা মামলার প্রধান আসামি হৃদয় সন্দেহে এক যুবককে শাহবাগ থানা পুলিশের কাছে তুলে দেয় সাধারণ মানুষ।

এ বিষয়ে শাহবাগ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবুল হাসান বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, ‘গুলিস্তানের গোলাপ শাহর মাজার থেকে তাসলিমা বেগম রেনু হত্যা মামলার প্রধান আসামি হৃদয় সন্দেহে এক যুবককে আটক করে সাধারণ মানুষ আমাদের কাছে নিয়ে আসে। সে হৃদয় কিনা তা আমরা জানি না। আমরা বাড্ডা থানা পুলিশের কাছে তাকে পাঠিয়ে দিয়েছি। এখন তারা নিশ্চিত করবেন আটক যুবক হৃদয় কিনা।’

আরও পড়ুন: রেনু হত্যার প্রধান আসামি হৃদয় সন্দেহে যুবক আটক

চট্টগ্রামে দগ্ধ হয়ে মা-মেয়ের মৃত্যু

চট্টগ্রামে দগ্ধ হয়ে মা-মেয়ের মৃত্যু
আগুন

চট্টগ্রাম নগরীর ইপিজেড এলাকায় একটি বস্তিতে অগ্নিকাণ্ডে দগ্ধ হয়ে মা-মেয়ের মৃত্যু হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) রাত সাড়ে আটটায় কলসী দীঘির বস্তিতে আগুনের সূত্রপাতহয়।

এ অগ্নিকাণ্ডে দগ্ধ হয়ে মারা গেছেন নাসিমা বেগম (৩৫) ও তার মেয়ে লামিয়া (৭)।

চট্টগ্রাম ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক জসিম উদ্দীন বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে জানান, অগ্নিকাণ্ডের খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিটের দেড় ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। ঘটনাস্থল থেকে মা-মেয়ের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র