প্রজেক্টে হানা দিয়ে নিয়মিত মাসোহারা নিতেন ডাকাত দল

শাহরিয়ার হাসান, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
আটক হওয়া ডাকাত দল, ছবি: বার্তা২৪

আটক হওয়া ডাকাত দল, ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

ডাকাতি দিয়ে যাত্রা শুরু। ৫০ জন সদস্য সংগ্রহ করেছে দল ভারি করার জন্য। বড় এই দল নিয়ে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ডাকাতি করে বেড়িয়েছেন। তবে এতে সন্তুষ্ট নয় তারা। নতুন নতুন প্রজেক্টে হানা দিয়ে গুরুত্বপূর্ণ মালামাল নিয়ে নিতেন। পাশাপাশি নিয়মিত মাসোহারা নিতেন বিভিন্ন ব্যবসায়ীক গোষ্ঠীর কাছে থেকে।

সর্বশেষ রাজধানীর আদাবরের বেড়িবাঁধে বালু উত্তোলনের ড্রেজারের ব্যাটারি ডাকাতি করে এই চক্র। পাশাপাশি মাসোহারা দাবি করেন। তার আগে গত ১২ জুন শরীয়তপুরের জাজিরা থানার লক্ষীকান্দিপুর গ্রামে এক বাড়িতে ডাকাতি করে দলটি। এসময় বাড়ির এক সদস্যকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে দেড় লাখ টাকা ও সোনা-গয়না নিয়ে যায় ডাকাত দল।

তবে শেষ রক্ষা হয়নি এই ডাকাত দলের। ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) সিরিয়াস ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন ডিভিশনের অর্গানাইজড ক্রাইম প্রিভেনশন টিম ডাকাত চক্রের সাত সদস্যকে গ্রেফতার করেছে।

শুক্রবার রাতে আদাবরের বেড়িবাঁধ এলাকা থেকে গ্রেফতার হওয়া এই ডাকাত দলটির ২ দিনের রিমান্ড জিজ্ঞাসাবাদের প্রথম দিনে এসব তথ্য জানিয়েছে।

ডিবি জানায়, এই ডাকাত দলের লিডার তিনজন। এরা কখনো মনির গ্রুপ, কখনো হাসমত গ্রুপ আবার কখনো বারেক গ্রুপ নামে পরিচিত। বেশ কয়েক বছর ধরে দেশের বিভিন্ন স্থানে ডাকাতি করে আসছে এই চক্রটি। এজন্য এই দলের কয়েকজন সদস্য বেশ কয়েকবার আইন-শৃঙ্খলাবাহিনীর হাতে গ্রেফতারও হয়ে ছিলেন। পরে জামিনে বের হয়ে আবার একই কাজে যুক্ত হয়েছেন। এদের নামে বিভিন্ন থানায় রয়েছে অস্ত্র ও ডাকাতি মামলা।

ডিবি সূত্রে আরও জানা যায়, শুরুতে এরা মানুষের বাড়িঘরে ডাকাতি করলেও গতকয়েক মাস ধরে ডাকাতির অভিনব এক কৌশল অবলম্বন করে আসছিলেন। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে নদী থেকে বালু উত্তোলনের কাজে ব্যবহৃত ড্রেজারের বড় বড় ব্যাটারি ডাকাতি করতেন তারা। পরে আবার ওই ড্রেজারের মালিককে ব্যাটারিগুলো ফিরিয়েও দিতেন। কিন্তু এজন্য তাদের মাসিক একটা চাঁদা বা মাসোহারাদিতে হতো। প্রত্যেকটি ড্রেজার থেকে প্রায় ২০ হাজার করে মাসোহারাউঠাতো এই ডাকাত দলের সদস্যরা।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা এই কাজে জড়িত থাকার বিষয়টি স্বীকার করেছে। এ সংক্রান্তে গ্রেফতারকৃত এবং পলাতক আসামিদের বিরুদ্ধে ডাকাতির প্রস্তুতি ও অস্ত্র আইনে আদাবর থানায় পৃথক দুটি মামলা করা হয়েছে। ডাকাত দলের সদস্যরা রাজধানীর বেড়িবাঁধ এলাকায় সুনিবিড় হাউজিং সোসাইটিতে ভাড়া থাকতেন।

অভিযানে নেতৃত্ব দেওয়া ডিবির সিরিয়াস ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন ইউনিটের অর্গানাইজড ক্রাইম প্রিভেনশন ইউনিটের সিনিয়র সহকারী কমিশনার নাজমুল হক বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘এই চক্রটি দীর্ঘদিন ধরে দেশের বিভিন্নস্থানে ডাকাতি করে আসছে। তারা ঢাকার আশে পাশের বুড়িগঙ্গা ও ধলেশ্বরী নদীতে ডাকাতি করতো। তাদের আমরা গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছি।’

একই ইউনিটের ডিসি মীর মোদদাছছের হোসেন বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘জিজ্ঞাসাবাদে ডাকাত দলের সদস্যরা আরও বেশ কয়েকজনের নাম বলেছে। তাদের গ্রেফতারে কাজ চলছে। তারা ছোট কোনো ডাকাত গ্রুপ না। তারা ভয়াবহ ডাকাতির পাশাপাশি চাঁদাবাজিও করতো।’

আপনার মতামত লিখুন :