আবারও প্রাণসহ ৫ কোম্পানির দুধে মিলল অ্যান্টিবায়োটিক



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট,বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রথম দফায় পাস্তুরিত ও অপাস্তরিত দুধে মানবদেহের চিকিৎসায় ব্যবহৃত অ্যান্টিবায়োটিক উপস্থিতি পাওয়ার পর সমালোচনার মুখে পড়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বায়োমেডিক্যাল রিসার্চ সেন্টারের গবেষকেরা। 

এবার দ্বিতীয় দফা পরীক্ষায়, দুধের নতুন ১০ টি নমুনার ১০ টিতেই মিললো অ্যান্টিবায়োটিক। যেখানে প্রথম দফায় পাওয়া গিয়েছিল ৩ ধরনের অ্যান্টিবায়োটিক। সেখানে এবার পাওয়া গেছে ৪ টি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমেডিক্যাল রির্সাচ সেন্টারের সদ্য সাবেক পরিচালক অধ্যাপক আ ব ম ফারুক বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে নতুন এই গবেষণার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, প্রাণ, মিল্কভিটা, আড়ংসহ পূর্বের ৫ টি কোম্পানির ৭ টি পাস্তুরিত প্যাকেটজাত দুধের সংগৃহীত নমুনা ও খোলা জায়গা থেকে তিনটি নমুনা সংগ্রহ করে মোট ১০টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। সবগুলোতে অ্যান্টিবায়োটিকের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। যা আগে মতো উদ্বেগজনক।

অধ্যাপক আ ব ম ফারুক আরও বলেন, আমরা প্রথমেই বলেছিলাম এই গবেষণা আমরা চলমান রাখবো। মাঝে অ্যান্টিবায়োটিক নিয়ে নানা ধরনের কথা হয়েছে।

এ ধরনের দুধে মোট ১৯টি পরীক্ষা করা যায়। যেখানে বিএসটিআই করে ৯ টি। আমরা এবার শুধু একটি পরীক্ষা করেছি। সেটা হল দুধে এন্টিবায়োটিক আছে কিনা এবং সেটি গুরুত্বপূর্ণ।

আগের কোম্পানিগুলোর দুধের স্যাম্পল দিয়ে, একই এলাকার দোকান থেকে সংগ্রহ করে, একই যন্ত্রপাতি ও গবেষক দিয়ে পরীক্ষা করা হয়েছে। শুধু সময়ের ব্যবধান হয়েছে। কিন্ত ফলাফল একই পাওয়া গেছে। বরং অ্যান্টিবায়োটিকের ধরণ আরেকটি বেশি পাওয়া গেছে।

আরও পড়ুন: 

প্রাণ, মিল্কভিটা ও আড়ং-এর দুধ মানহীন