স্প্রে ম্যানকে খুঁজছে সবাই!



মনি আচার্য্য, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, ঢাকা
রাজধানীতে জমে থাকা এসব পানি থেকে উৎপন্ন হচ্ছে মশা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

রাজধানীতে জমে থাকা এসব পানি থেকে উৎপন্ন হচ্ছে মশা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ডেঙ্গুর ভয়াবহতা থেকে নগরবাসীকে রক্ষা করতে নানা উদ্যোগ গ্রহণ করছে রাজধানী ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন। তবে সব উদ্যোগই যেন ডেঙ্গুর সামনে মুখ থুবড়ে পড়ছে। প্রতিদিনই ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হওয়া রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে। ডেঙ্গুর এমন চিত্র দেখে রাজধানীবাসী আরও আতঙ্কিত হচ্ছেন।

এ বিষয়ে নগরবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ডেঙ্গু আতঙ্ক ও ভয়াবহতা থেকে বাঁচতে তারা প্রতিনিয়তই সচেতন হচ্ছেন। এছাড়া নিজ থেকেও নানা কার্যক্রম পরিচালনা করছেন নগরবাসী।

তবে নগরবাসীর অভিযোগ, ডেঙ্গু রোগের মূল কারণ এডিস মশা নিধন বা নিয়ন্ত্রণে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের কোনো ধরণের সাহায্য পাচ্ছে না নগরবাসী। একাধিকবার আবেদন করেও মশক নিধনের স্প্রে ম্যান বা সিটি করপোরেশনের মশক নিধন কর্মীদের খুুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। রাজধানীর এমনও এলাকা আছে যেখানে গত ২-৩ মাস ধরে কোনো মশক নিধন কর্মী যায়নি। ফলে রাজধানীর অধিকাংশ এলাকার বাসিন্দারা এখনো প্রতিনিয়ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হচ্ছেন।

স্প্রে ম্যানকে খুঁজছে সবাই!

সোমবার (৫ আগস্ট) রাজধানীর বেশ কয়েকটি এলাকার বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

এদিকে মশক নিধনের কর্মসূচির বিষয়ে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে দাবি করা হচ্ছে, মশক নিধনে কর্মীদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। তারা বাড়ি বাড়ি গিয়ে মশক নিধন করছেন।

কিন্তু সিটি করপোরেশনের এমন দাবি সরাসরি প্রত্যাখ্যান করছেন রাজধানীবাসী। তারা বলছেন, 'দুয়েকটি এলাকা ছাড়া রাজধানীর অধিকাংশ এলাকায় মশক নিধনের কর্মীরা যাচ্ছেন না। স্থানীয় কাউন্সিলরদের সঙ্গে বারবার যোগাযোগ করা হলেও মশক নিধনের ওষুধ ছিটানোর বিষয়ে তেমন কোনো সাড়া পাওয়া যাচ্ছে না।'

স্প্রে ম্যানকে খুঁজছে সবাই!

এ বিষয়ে রাজধানীর পোস্তগোলা এলাকার বাসিন্দা মো. দেওয়ান বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, 'আমরা এলাকাবাসীরা নিজে থেকে ডেঙ্গু প্রতিরোধে অনেক কাজ করছি। কিন্তু মশক নিধনের ওষুধ ছিটানো হচ্ছে না আমাদের এলাকায়। এ বিষয়ে স্থানীয় কাউন্সিলের সঙ্গে কথা বলেও কোনো লাভ হয়নি।'

রাজধানীর আজিমপুরের বাসিন্দা মো.আজাদ বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, 'এলাকায় জমে থাকা পানি বা আবর্জনা কোনো কিছুই পরিষ্কার করছে না সিটি করপোরেশন। আর মশক নিধনের স্প্রে ম্যানকে কখনোই খুঁজেই পাওয়া যায় না। মাঝেমধ্যে নিজেদের ইচ্ছায় আসে, অল্প স্প্রে করে চলে যায়। কিন্তু গত দুই সপ্তাহ ধরে তাদের দেখা নেই।'

স্প্রে ম্যানকে খুঁজছে সবাই!

এদিকে মশক নিধনের ওষুধ ছিটানোর কার্যক্রমকে আরও বেগবান করতে বিদেশ থেকে নতুন ওষুধ ঢাকায় এসেছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন।

তিনি বলেন, 'আমাদের নতুন ওষুধ চলে এসেছে, এখন বিমানবন্দরে রয়েছে। সেই ওষুধ আনার পর আগামীকাল মঙ্গলবার (৬ আগস্ট) বিকাল ৩টায় নগর ভবনে সবার সামনে পরীক্ষা করা হবে।'

যদিও সিটি করপোরেশনের এসব আশ্বাস বিশ্বাস করতে পারছেন না নগরবাসী। কেননা মশক নিধনের একাধিক আশ্বাস ইতোমধ্যে দুই মেয়র দিয়েছেন। কিন্তু মেয়রদের এমন আশ্বাসের কোনো ফল নগরবাসী পাননি বলে অভিযোগ করেন।