রসিকে ২০ ঘণ্টায় কোরবানির বর্জ্য অপসারণ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, রংপুর
রংপুরে কোরবানির বর্জ্য অপসারণের গাড়ি, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

রংপুরে কোরবানির বর্জ্য অপসারণের গাড়ি, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণে ২৪ ঘণ্টা সময় বেঁধে দিলেও মাত্র ২০ ঘণ্টার মধ্যে সেই বর্জ্য অপসারণে আবারো সফল রংপুর সিটি করপোরেশন (রসিক)। ঈদের প্রথম দিন (১২ আগস্ট) দুপুর থেকেই বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রম শুরু করে রসিকের পরিচ্ছন্নতা কর্মীরা। রিকশা ভ্যান নিয়ে নির্দিষ্ট ডাস্টবিন ও নির্ধারিত স্থান ও বাড়ি বাড়ি থেকে সংগ্রহ করা বর্জ্য সন্ধ্যার পর ডাম্পিং প্রক্রিয়ায় নেওয়া হয়। রাতে এক ঘণ্টার বৃষ্টির পর আবারো বর্জ্য অপসারণ শুরু হয়।

মঙ্গলবার (১৩ আগস্ট) সকালে ঈদের দ্বিতীয় দিনেও নগরীর বিভিন্ন অলি-গতিতে পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের বর্জ্য অপসারণ করতে দেখা যায়। নগরবাসীকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে পরিচ্ছন্ন নগরীর উপহার দেওয়ার প্রচেষ্টা থেকে রসিকের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের তিনটি ইউনিটে ৬২৭ জন পরিচ্ছন্নতা কর্মী এ কাজ করছেন। দ্রুত সময়ের মধ্যে বর্জ্য অপসারণ করে গত ঈদুল আজহাতেও প্রশংসিত হয়েছেন সিটি মেয়র। এবারো সেই সফলতা ধরে রাখলেন তিনি।

তবে চামড়া কেনাবেচার প্রসিদ্ধ এলাকার চামড়াপট্টি থেকে গতকাল রাতে ও আজ সকালে গাড়িগুলোতে বেশ কয়েকবার পশুর বর্জ্য অপসারণ করে দুর্গন্ধমুক্ত রাখতে ব্লিচিং পাউডার ছিটিয়ে দেয়া হলেও এখনো দুর্গন্ধমুক্ত হয়নি এলাকাটি। বেশ কিছু চামড়া গুদামের সামনে ময়লা পানি, বর্জ্য পড়ে থাকতে দেখা গেছে।

রংপুর সিটি করপোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত কমিটির চেয়ারম্যান ও ২১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাহবুবার রহমান মঞ্জু বলেন, 'রসিকের ৭০টি রিকশা ভ্যান, ২৭টি বর্জ্যবাহী ট্রাক, দুটি স্টিল রোডার, পানিবাহী দুটি গাড়ি ও ৬২৭ জন সেবক সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করছে। গতকাল সোমবার রাতের বৃষ্টি হওয়াতে কিছুটা লাভ হয়েছে। তবে আমরা বর্জ্য অপসারণ শেষ করেনি। আজ বিকেলের আগেই বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রম শতভাগ সম্পন্ন হবে।'

রসিকে ২০ ঘণ্টায় কোরবানির বর্জ্য অপসারণ

তিনি বলেন, 'ঈদের তিন দিনেই অনেকে কোরবানি করে থাকেন। এ কারণে বুধবারও (১৪ আগস্ট) বর্জ্য অপসারণের কাজ চলবে। এ কার্যক্রম সরাসরি মনিটরিং করছেন সিটি মেয়র মোস্তাাফিজার রহমান মোস্তফা। ঈদের দিন বর্জ্য অপসারণে আমরা শতভাগ সফল হয়েছি। এবার শতভাগ কোরবানির বর্জ্য অপসারণ নিশ্চিত করতে কন্ট্রোল রুম খোলা হয়।'

এদিকে মঙ্গলবার দুপুরে সিটি মেয়র নিজেই বেশ কয়েকটি এলাকা পরিদর্শন করে বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রমের খোঁজখবর নেন। পরিচ্ছন্ন কর্মীদের পাশাপাশি সিটির বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তারা এই ঈদে পরিবার পরিজনের কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে আন্তরিকতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করায় তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা বলেন, 'কোরবানির বর্জ্য অপসারণে যে সময় বেঁধে দিয়েছিলাম- ওই সময়ের মধ্যেই পরিচ্ছন্ন কর্মীরা নিরলস পরিশ্রম করে তা সফল করেছে। এই কাজের জন্য আমি চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করেছিলাম। সিটি করপোরেশনের নিয়োজিত পুরো টিম এই চ্যালেঞ্জ সার্থক করেছে।'

এবার নগরীর ৩৩টি ওয়ার্ড থেকে ঈদের দিন রাত পর্যন্ত ১৭০ টন বর্জ্য অপসারণ করা হয়েছে। অপসারিত বর্জ্য নগরীর কলাবাড়ি, নাসনিয়া ও শরেয়ারতল এলাকায় ডাম্পিং করা হচ্ছে।

আপনার মতামত লিখুন :