ট্রাকভর্তি চামড়া ফেলে পালালেন ব্যবসায়ী!

মনি আচার্য্য, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, ঢাকা
সাভারের হেমায়েতপুর ট্যানারি পল্লীতে ট্রাকভর্তি চামড়া ফেলে পালিয়েছেন এক ব্যবসায়ী/ ছবি: সুমন শেখ

সাভারের হেমায়েতপুর ট্যানারি পল্লীতে ট্রাকভর্তি চামড়া ফেলে পালিয়েছেন এক ব্যবসায়ী/ ছবি: সুমন শেখ

  • Font increase
  • Font Decrease

সাভারের হেমায়েতপুর ঘুরে এসে: সারাদেশে কাঁচা চামড়ার বাজারে হাহাকার। কেনা দামের থেকে কম মূল্যে চামড়া বিক্রি করে বড় ধরনের আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন মৌসুমি ব্যবসায়ীরা।

ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার ক্ষোভে অনেক ব্যবসায়ীই মাটিতে চামড়া পুঁতে ফেলছেন। আবার কেউ কেউ আড়তদারদের সামনে চামড়া ফেলে রেখে চলে যাচ্ছেন।

তবে এবার ঘটল আরেকটি ভিন্ন ঘটনা। সিলেটের এক ব্যবসায়ী এক ট্রাক চামড়া ফেলে পালিয়েছেন। ট্রাকের চালককেও দিয়ে যাননি ভাড়ার টাকা। এছাড়া ৩০০ চামড়ায় লবণ ছিটানো শ্রমিকদের পাওনাও দেননি।

বুধবার (১৪ আগস্ট) সকালে সাভারের হেমায়েতপুরে অবস্থিত বেসিক শিল্প নগরীতে স্থানান্তরিত ট্যানারি পল্লীতে এ ঘটনা ঘটে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/14/1565782650042.gif

সরেজমিনে দেখা যায়, ট্যানারি পল্লীর চৌধুরী এন্ড কোং নামে একটি ট্যানারির সামনে একটি ট্রাকে কাঁচা চামড়া পরে আছে। এছাড়া ট্যানারিটির প্রধান ফটকের সামনে পড়ে আছে আরও কতগুলো চামড়া। এদিকে ট্রাকটিকে ঘিরে রেখেছেন স্থানীয় শ্রমিকরা। ট্রাকের দিকে অসহায় দৃষ্টিতে তাকানো ছাড়া আর কিছুই করতে পারছেন না চালক।

ট্রাকের চালক ও শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এক ব্যবসায়ী সোমবার (১৩ আগস্ট) সিলেট থেকে প্রায় এক হাজার ৫০০ কাঁচা চামড়া নিয়ে এসেছেন চৌধুরী এন্ড কোং ট্যানারির কাছে বিক্রি করতে। ঐ দিন রাতে প্রায় ৩০০ চামড়া নামিয়ে লবণ ছিটানো হয়। বাকি চামড়ার কাজ সকালে করার কথা শ্রমিকদের। সকালে উঠে শ্রমিকরা ও ট্রাক চালক দেখেন, ট্রাকে চামড়া পড়ে রয়েছে কিন্তু ব্যবসায়ী নেই। বার বার তার মোবাইল ফোনে কল করেও খোলা পাওয়া যায়নি। পরে তারা নানাভাবে নিশ্চিত হয়েছেন তিনি পালিয়ে গেছেন।

ট্রাক চালক মো. রিপন বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, ‘সোমবার ভোর ৫টার দিকে চামড়া নিয়ে সিলেট থেকে রওয়ানা হয়ে সন্ধ্যা ৬টায় হেমায়েতপুরে পৌঁছায়। পরে সকালে উঠে দেখি ব্যবসায়ী পালিয়ে গেছেন। আমাকে ভাড়ার টাকা না দিয়ে তিনি পালিয়েছেন। ট্রাকের সব চামড়া পচে গেছে, কেউ নামাচ্ছেন না। হাতে টাকাও নেই। এখন কিভাবে আমি সিলেট যাব?’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/14/1565782668399.gif

স্থানীয় শ্রমিক মো. শান্ত বলেন, ‘রাতে আমাদের দিয়ে ৩০০ চামড়ায় লবণ ছিটানো হয়। ব্যবসায়ীর কাছে আমরা ৩২ হাজার টাকা পাই। এখন তার নাম ঠিকানা কিছুই জানি না। শুধু ফোন নম্বর আছে, কিন্তু কল করলে বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। আমাদের টাকা না পাওয়া পর্যন্ত ট্রাক ছাড়ব না।’

এ বিষয়ে চৌধুরী এন্ড কোং ট্যানারির স্বত্বাধিকারী হাসান চৌধুরী বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, ‘ঐ ব্যবসায়ীর নাম ঠিকানা কিছুই জানা নেই। ট্রাকের চালক বলছেন, তারা নাকি সিলেট থেকে এসেছেন। কিন্তু ব্যবসায়ীকে পাওয়া যাচ্ছে না। লোকসান হবে বলে হয়তো তিনি পালিয়ে গেছেন। কাউকে টাকা না দিয়ে। এছাড়া ১২ ঘণ্টার ভেতরে লবণ না পড়ায় সব চামড়া পচে গেছে।’

এদিকে একাধিক ট্যানারি শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এ বছর চামড়ার ব্যবসায়ীরা অনেক টাকা লোকসানের সম্মুখীন হচ্ছেন। তাই কেউ চামড়া মাটিতে পুঁতে ফেলছেন, নয়তো চামড়া ফেলে খালি হাতে চলে যাচ্ছেন।

আপনার মতামত লিখুন :