গরুর ব্যাপারীর ২৮ লাখ টাকা ছিনতাই, মামলা নিতে পুলিশের ঠেলাঠেলি!

শাহরিয়ার হাসান, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, ঢাকা
গরু বিক্রির ২৮ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের পর রাস্তায় শুয়ে আহাজারি করছেন গরু ব্যাপারী হানিফ শেখ/ ছবি: সংগৃহীত

গরু বিক্রির ২৮ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের পর রাস্তায় শুয়ে আহাজারি করছেন গরু ব্যাপারী হানিফ শেখ/ ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজধানীর শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে থেকে হানিফ নামের এক গরুর ব্যাপারীর ২৮ লাখ টাকা ছিনতাই হয়। ঈদের আগের দিন রোববার (১১ আগস্ট) সকাল ৮ টায় এই ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর থেকে ৫ দিন হয়ে গেলেও এ ঘটনায় জড়িতদের শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ।

নাম মাত্র অভিযোগ ছাড়া এখন পর্যন্ত মামলাও হয়নি। এমনকি ডিএমপির কোন থানা, শেরেবাংলা নগর না মোহাম্মাদপুর এ বিষয়ে কাজ করবে সেটা নিয়েও চলছে ঠেলাঠেলি।

ভুক্তভোগীরা অভিযোগ করছেন, পুলিশ চাইলেই, দ্রুত টাকা উদ্ধার করে দিতে পারে। কিন্তু সেভাবে মাঠে নামছে না।

ভুক্তভোগী গরুর ব্যাপারী হানিফ শেখের মেয়ের জামাই খালেক ওই দিনের ঘটনার বর্ণনা দিয়ে বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে জানান, ১৮টি গরু নিয়ে তার শ্বশুর তেজগাঁওয়ের কলোনি বাজার হাটে এসেছিলেন। ঈদের ২ দিন আগেই ১৬টি গরু বিক্রি করেছিল তারা। সেই টাকা খালেক নিজে, তার শ্যালক ও বাচ্চু নামে এক রাখালকে নিয়ে বাড়িতে রাখতে যাচ্ছিলেন। হাটের পাশে থেকে একটি সিএনজি অটোরিকশা নিয়ে গাবতলীর দিকে যাচ্ছিলেন তারা। আসাদগেট এলাকার দিকে যেতেই চালক সমস্যা বলে অটোরিকশা থামায়। সঙ্গে সঙ্গেই দুইজন লোক এসে বলে তোরা ছিনতাইকারী। সিএনজি থেকে নেমে আয়।

তাদের কোন কথা না শুনে এক প্রকার জোর করেই সিএনজি থেকে নামিয়ে দেয়। এ সুযোগে সিএনজিচালক টাকার ব্যাগসহ পালিয়ে যান। পরে তারা চিৎকার করতে শুরু করলে ওই দুই ব্যক্তিও দ্রুত পালিয়ে যান।

এই ঘটনায় অনেক কাঠখড় পোড়ানোর পর মোহাম্মদপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করতে পেরেছিলেন হানিফ। তবে সেটা অভিযোগ পর্যন্ত রয়েছে মামলা পর্যন্ত গড়াইনি।

ভুক্তভোগী হানিফ শেখ বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে জানান, ঘটনা ঘটার সঙ্গে সঙ্গেই তারা বিষয়টি হাট পুলিশকে জানান।  হাটে দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যদের পরামর্শে মোহাম্মদপুর থানায় অভিযোগ করতে যান।

মোহাম্মাদপুর থানা শেরে বাংলা নগর থানাকে দেখিয়ে দেন। শেরে বাংলা নগর থানা বলে, ঘটনাস্থল মোহাম্মদপুর থানা এলাকায় পড়েছে তাদের কিছু করার নেই। শেষ পর্যন্ত মোহাম্মাদপুর থানা একটা অভিযোগ নেয়।

ভুক্তভোগীরা জানান, পুলিশ চাইলে দ্রুতই আমাদের টাকা উদ্ধার করে দিতে পারে। কিন্তু তারা জোর দিচ্ছে না এখনও।

ওই ঘটনার অগ্রগতি সর্ম্পকে জানতে চাইলে, শেরেবাংলা নগর থানার ওসি জানে আলম মুন্সি বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে জানান, ঘটনাস্থল যেহেতু আসাদগেট। ওটা মোহাম্মদপুর থানা এলাকায় পড়েছে। বিষয়টি ওই থানা পুলিশই দেখবে। যদিও হাট আমাদের থানার অধীনে।

একই প্রশ্নে মোহাম্মদপুর থানার ওসি জিজি বিশ্বাস বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, ‘ওই ২৮ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনাস্থল শেরেবাংলা নগর থানা এলাকায়। কেন যে তারা মামলা নিচ্ছে না। তবে ওইদিন একটা অভিযোগ আমরা নিয়েছিলাম। তাই আমরাই কাজ করছি। তবে এখন পর্যন্ত কোন আপডেট নেই।

সার্বিক বিষয়ে  তেজগাঁও বিভাগের মোহাম্মদপুর জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) শিবলী নোমান বার্তাটোয়েন্টিফোর. কমকে বলেন, ঘটনাটি সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে, শেরেবাংলা নগর থানার ঘটনা। তবুও আমরা বিষয়টি দেখছি।

তবে মামলা বা ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের শনাক্তের বিষয়ে কোন তথ্য জানাতে পারেনি এই সহকারী পুলিশ কমিশনার।

আপনার মতামত লিখুন :