সিলেটে কমছে আবাদযোগ্য কৃষি জমির পরিমাণ

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, সিলেট
ছবি: সংগৃৃহীত

ছবি: সংগৃৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সিলেটে দিন দিন কমছে আবাদযোগ্য কৃষি জমির পরিমাণ। আবাদযোগ্য কৃষি জমি কমার সঙ্গে সিলেটে বাড়ছে স্থায়ী পতিত জমির পরিমাণও। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর জানিয়েছে, অপরিকল্পিত ঘরবাড়ি তৈরি, শিল্পায়ন এবং নগরায়নের ফলে গত এক যুগে সিলেটে আবাদযোগ্য কৃষি জমির পরিমাণ কমেছে ৩৫ হাজার ২১৫ হেক্টর। আর স্থায়ী পতিত জমির পরিমাণ বেড়েছে দ্বিগুণ। কৃষি জমি রক্ষায় আইন ও নীতিমালা থাকলেও মনিটরিংয়ের অভাবে এর তোয়াক্কা করছেন না কেউ। দ্রুত ভূমি রক্ষায় সমন্বিত নীতিমালা গ্রহণ না করলে ভয়াবহ বিপর্যয় ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর বলছে, মধ্য আয়ের দেশে রূপান্তরিত করতে হলে শিল্পের বিপ্লব ঘটাতে হবে। এ ক্ষেত্রে কৃষি জমিতে কিছুটা প্রভাব পড়বে। কৃষি ক্ষেত্রে উন্নত প্রযুক্তির ব্যবহারে এ প্রভাব মোকাবিলা করা সম্ভব।

সিলেট জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা যায়, সিলেট জেলায় মোট জমির পরিমাণ ৩ লাখ ৪৯ হাজার হেক্টর। এর মধ্যে ২০০৫-০৬ সালে সিলেটে আবাদযোগ্য জমির পরিমাণ ছিলো ২ লাখ ৬৪ হাজার ১০২ হেক্টর।  ২০০৬-০৭ সালে তা কমে হয় ২ লাখ ৬২ হাজার ৬০২ হেক্টর, ২০০৭-০৮ সালে আরোও কমে হয় ২ লাখ ৬০ হাজার ৮০৯ হেক্টর এরপর ২০০৮-০৯  সালে ২ লাখ ৫৯ হাজার ৩৯৩ হেক্টর, ২০০৯-১০ সালে ২ লাখ ৫৭ হাজার ৮৯৩ হেক্টর, ২০১০-১১ সালে ২ লাখ ৫৭ হাজার ৬৮৪ হেক্টর, ২০১১-১২ সালে ২ লাখ ৫৭ হাজার ৪৮৪ হেক্টর, ২০১২-১৩ সালে ২ লাখ ৫৭ হাজার ৩৮২ হেক্টর, ২০১৩-১৪ সালে ২ লাখ ৫৬ হাজার ৩শ হেক্টর, ২০১৪-১৫ সালে ২ লাখ ৪৪ হাজার ৮৬৭ হেক্টর, ২০১৫-১৬ সালে ২ লাখ ৪৩ হাজার ৮৪৭ হেক্টর, ২০১৬-১৭ সালে ২ লাখ ৪০ হাজার ৪৭ হেক্টর, ২০১৭-১৮ সালে ২ লাখ ২৮ হাজার ৮৮৭ হেক্টরে এসে দাঁড়িয়েছে সিলেটে আবাদযোগ্য জমির পরিমাণ।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে আরো জানা যায়, ২০০৫-০৬ সালে সিলেটে স্থায়ী পতিত জমির পরিমাণ ছিলো ৪৫ হাজার ৫২৩ হেক্টর।  ২০০৬-০৭ সালে তা বেড়ে হয় ৪৭ হাজার ১৮ হেক্টর, ২০০৭-০৮ সালে ৪৮ হাজার ৭৩০ হেক্টর, ২০০৮-০৯ সালে ৫০ হাজার ২২২ হেক্টর, ২০০৯-১০ সালে ৫১ হাজার ৭২২ হেক্টর, ২০১০-১১ সালে ৫১ হাজার ৯২৬ হেক্টর, ২০১১-১২ সালে ৫২ হাজার ১২১ হেক্টর, ২০১২-১৩ সালে ৫২ হাজার ২২৩ হেক্টর, ২০১৩-১৪ সালে ৫৩ হাজার ৩৫৫ হেক্টর, ২০১৪-১৫ সালে ৬৪ হাজার ৮৮৩ হেক্টর, ২০১৫-১৬ সালে ৬৫ হাজার ৯২৮ হেক্টর, ২০১৬-১৭ সালে ৭০ হাজার ২৭৩ হেক্টর, ২০১৭-১৮ সালে এসে তা বেড়ে হয়েছে ৮১ হাজার ৭০৩ হেক্টর।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক বিমল চন্দ্র সোম বলেন, চাষের জমিতে কৃষক কি করবে-এটা তার নিজস্ব ব্যাপার। এই বিষয়ে কোনও সরকারি নির্দেশনা নেই। জেলায় এক সময় যে কৃষি জমি ছিল, তা বর্তমানে ৩৫ হাজার হেক্টর কমেছে। তবে কৃষি বিভাগ কম জমিতে কিভাবে বেশি উৎপাদন করা যায়-সেই বিষয়ে চেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন বলে জানান এই কর্মকর্তা।

আপনার মতামত লিখুন :