রোহিঙ্গা ইস্যু: বিশ্বকে 'অ্যাগ্রেসিভ' হতে বললেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, ঢাকা
রোহিঙ্গা ইস্যুতে কূটনীতিকদের সঙ্গে ব্রিফ অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্র মন্ত্রী, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

রোহিঙ্গা ইস্যুতে কূটনীতিকদের সঙ্গে ব্রিফ অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্র মন্ত্রী, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

রোহিঙ্গা ইস্যুতে বিশ্ব সম্প্রদায়কে 'অ্যাগ্রেসিভ' (আক্রমণাত্মক) ভূমিকা নিতে বলেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন।

তিনি বলেছেন, 'এ সমস্যা শুধু বাংলাদেশের নয়। গোটা বিশ্বের সমস্যা। এগ্রেসিভ ভূমিকায় থেকে মিয়ানমারকে চাপ দিতে হবে। যেন তারা তাদের লোকদের ফিরিয়ে নেয়। গোটা বিশ্ব আমাদের সঙ্গে আছে।'

বৃহস্পতিবার (২৯ আগস্ট) রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় বাংলাদেশে নিয়োজিত কূটনীতিকদের সঙ্গে এ ইস্যুতে ব্রিফ শেষে এসব কথা বলেন তিনি।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, 'রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে পুনর্বাসনে ব্যর্থ হওয়ায় বাংলাদেশ সরকারকে ২২ আগস্ট থেকে দোষারোপ করছে মিয়ানমার। এটা প্রায় জোরেশোরেই করছে। আমরা এটার প্রতিবাদ জানাই। দুই দেশের মধ্যে সমঝোতা অনুযায়ী ২২ আগস্ট প্রায় সাড়ে তিন হাজার রোহিঙ্গা রাখাইন রাজ্যে ফেরত যাওয়ার কথা থাকলেও তারা যায়নি।'

তিনি বলেন, 'কারণ বাংলাদেশের পক্ষ থেকে তাদের দেশে ফেরত যেতে উৎসাহিত করা হলেও, মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ রোহিঙ্গা শরণার্থীদের কাছে প্রমাণ করতে পারেনি যে, তারা দেশে ফিরে সুরক্ষিত থাকবে। মিয়ানমারকেই তার দেশের নাগরিকদের আশ্বস্ত করতে হবে, ফিরিয়ে নিতে। বাংলাদেশ শুধু লজিস্টিক সাপোর্ট দিতে পারে। রোহিঙ্গাদের দাবি অনুযায়ী- তাদের সুরক্ষা ও জীবিকা সংক্রান্ত নিশ্চয়তা মিয়ানমার সরকার দিলেই এ সমস্যার সহজ সমাধান হবে। মিয়ানমার এ সমস্যার সৃষ্টি করেছে।'

এক প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, 'প্রত্যাবাসনের বিষয়ে চীন, বাংলাদেশের পাশে আছে। চীনের প্রস্তাব অনুযায়ী- এই সংকট সমাধানে অচিরেই বাংলাদেশ চীন ও মিয়ানমার এক সঙ্গে বৈঠকে বসবে।'

তিনি আরও বলেন, 'যদি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কোনো এনজিও যদি উসকানিমূলক ও রাজনীতি বিরোধী কোনো কাজ করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। রোহিঙ্গারা আইনশৃঙ্খলা বহির্ভূত কোনো কাজ করলে তাদেরকে সেখান থেকে বের করে দেওয়া হবে। বিশ্ব মিডিয়াকে ওই দেশে গিয়ে পরিস্থিতির পর্যালোচনা এবং আন্তর্জাতিকভাবে ফোকাস করতে হবে। মিয়ানমারের উচিৎ বিশ্বকে সেখানে নিয়ে দেখানো, তারা রোহিঙ্গাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পেরেছে। এটা আমাদের বিষয় না।'

ব্রিফ অনুষ্ঠানে ঢাকাস্থ সব কূটনৈতিক মিশন প্রধানদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। ব্রিফিংয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ছাড়াও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এমপি, সিনিয়র সচিব মো. শহীদুল হকসহ মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন: রোহিঙ্গা ইস্যুতে কূটনীতিকদের ব্রিফ করছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

আপনার মতামত লিখুন :