ঈশ্বরগঞ্জে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে বৃদ্ধার ঘর দখলের অভিযোগ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, ময়মনসিংহ
অভিযুক্ত যুবলীগ নেতা, ছবি: সংগৃহীত

অভিযুক্ত যুবলীগ নেতা, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে দাদনের ফাঁদে ফেলে এক অসহায় বৃদ্ধার বসতঘর ও জমি দখল করে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে তারুন্দিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক এনামুল হক'র বিরুদ্ধে। 

সোমবার (২ সেপ্টেম্বর) দুপুরে এমন অভিযোগ জানিয়ে এ ঘটনার বিচার ও নিরাপত্তা চেয়ে জেলা পুলিশ সুপার বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছেন ভুক্তভোগী নারী মোছা. ছাহারা খাতুন (৭৫)।

লিখিত অভিযোগে বলা হয়, পরিবারের অগোচরে ছাহারা খাতুনের ছেলে ইদ্রিস মিয়াকে (৩০) প্রায় বছরখানেক আগে ৬০ হাজার টাকা দাদন দেন যুবলীগ নেতা এনামুল। ইদ্রিস মিয়ার কাছে ৬০ হাজার টাকার সুদ বাবদ চক্রবৃদ্ধি হারে ৩ লাখ ৫৫ হাজার টাকা দাবি করেন ওই নেতা। টাকা দিতে ব্যর্থ হওয়ায় জোর করে এনামুল তার ফুফাতো ভাই হারুন অর রশিদের নামে সাড়ে ১৫ শতাংশ জমি রেজিস্ট্রি দলিল করিয়ে নেয়। যার মধ্যে ইদ্রিস মিয়ার মা ছাহারা খাতুনের ৫ শতাংশ জমি রয়েছে যেখানে ৪২ হাত লম্বা একটি ঘর রয়েছে।

ওই নারীর অভিযোগ, মাসখানেক আগে যুবলীগ নেতা এনামুলের নেতৃত্বে স্থানীয় সাঈদ, মোতালিব, ওমর ফারুক, হাবিকুল, হারুন, কাদির ও রুহুল আমীন আমাকে মারধর করে ঘর থেকে বের করে দিয়ে তালা ঝুলিয়ে দেয়। 

ভুক্তভোগী নারী আরও অভিযোগ করেন, ঘটনাটি ঈশ্বরগঞ্জ থানা পুলিশকে লিখিতভাবে জানালেও পুলিশ এখন পর্যন্ত মামলা নেয়নি। তবে গত ৩১ আগস্ট পুলিশ গিয়ে তার ঘরের তালা খুলে দিয়েছে। কিন্তু যুবলীগ নেতা আমাদেরকে বাড়ি ও জমি ছেড়ে দিতে হুমকি দিচ্ছে। না ছাড়লে হত্যার ভয় দেখাচ্ছে। 

প্রতিবেশী আব্দুল আজিজ জানান, ঘটনাটিকে ভিন্নখাতে প্রভাবিত করতে ভুক্তভোগী নারীসহ ৯ জনকে আসামি করে ফুফাতো ভাই হারুন অর রশিদকে দিয়ে আদালতে মিথ্যা চাঁদাবাজি মামলা দায়ের করিয়েছেন ওই যুবলীগ নেতা। 

তবে এসব ঘটনার সাথে তিনি জড়িত নন বলে দাবি করে অভিযুক্ত তারুন্দিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক এনামুল হক বলেন, 'এলাকার একজনের সাথে তাদের জমি-বাড়ি নিয়ে বিরোধ চলছে। এতে আমি জড়িত নই।’

এ বিষয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাকের হোসেন সিদ্দিকী বলেন, ‘অভিযোগ করা হয়েছে বলে শুনেছি। তবে অফিসিয়ালি নির্দেশ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আপনার মতামত লিখুন :