সিলেটে সবজির দাম চড়া

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, সিলেট
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সিলেটে সব ধরনের সবজিই চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে। বাজারে ৫০ টাকার নিচে কেজিতে কোনো সবজিই মিলছে না। এছাড়া আগের মতো চড়া দামেই পেঁয়াজ, রসুন ও আদা বিক্রি হচ্ছে।

ব্যবসায়ীদের দাবি, সদ্য শেষ হওয়া বন্যায় সবজির ফলনে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। তাই সরবরাহ কম, দামও বেশি।

বৃহস্পতিবার (৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে সিলেটের রিকাবীবাজার, মদিনা মার্কেট ও বন্দরবাজারের সবজি বাজার ঘুরে দেখা যায়, ১৫০ টাকা কেজিতে ফুলকপি বিক্রি হচ্ছে। শিম বিক্রি হচ্ছে ১২০ থেকে ১৩০ টাকা কেজিতে। আর বাঁধাকপির কেজি ৬০ টাকা। মানভেদে ৮০ থেকে ১০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে কাঁচা মরিচ। গাজর ও শসা ৮০ থেকে ১২০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

এছাড়া করলা, কাঁকরোল, ঝিঙা ৫০ থেকে ৬০ টাকা, পেঁপে, পটল, কচুর লতি ৫০ টাকা, বেগুন ও বরবটি ৬০ থেকে ৮০ টাকা, আলু ২০ থেকে ২২ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। ধনে পাতা ১০০ গ্রাম বিক্রি হচ্ছে ২০ টাকায়।

এদিকে ঈদের আগে থেকেই সিলেটে চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ, রসুন ও আদা। বাজারে প্রতিকেজি দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা। আর আমদানি করা ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৪২ থেকে ৪৫ টাকায়। বাজারে বর্তমানে আমদানি করা রসুন বিক্রি হচ্ছে ১৫০ থেকে ১৬০ টাকায়। আদা বিক্রি হচ্ছে ১৪০ টাকা কেজিতে।

নগরের রিকাবীবাজারের ব্যবসায়ী তারিফ মিয়া জানান, প্রায় দুই মাস ধরেই পেঁয়াজ ও রসুনের দাম চড়া। বাজারে সরবরাহ কম। ভারতের পেঁয়াজের দামও বেড়েছে। এর প্রভাব পড়েছে সিলেটের বাজারে।



মাংসের বাজার ঘুরে দেখা গেছে, ব্রয়লার মুরগি ১২৫ টাকা থেকে বেড়ে ১৩৫ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। আর গরুর মাংস ৪৮০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

মদিনা মার্কেটে বাজার করতে আসা শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র তানভীর জানান, বাজারে সরকারের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। ব্যবসায়ীরা সব সময় নানা অজুহাতে দাম বাড়ান।

তিনি বলেন, ‘পণ্যের দাম বাড়ালে আমাদের মিলের খরচ বেড়ে যায়। মাসের শেষে আমাদের হিসাব মেলাতে কষ্ট হয়।’

একই বাজারের সবজি বিক্রেতা শরিফ হাসান বলেন, ‘দাম বৃদ্ধি নির্ভর করে পাইকারি ব্যবসায়ীদের উপর। আড়তে দাম বাড়লে আমাদেরও বেশি দামে বিক্রি করতে হয়।’

আপনার মতামত লিখুন :