ইলিশ আসতে শুরু করেছে, দামও কম

বরিশাল: মৌসুমের শুরুতেই সাগরে জেলেদের জালে ধরা পড়ছে ইলিশ। আর মোকামগুলোতেও ফিশিং বোটে (সাগরে মাছ ধরার নৌ-যান) আসতে শুরু করেছে প্রচুর ইলিশ। তাই সাগরের ইলিশ মাছে এখন কানায় কানায় পূর্ণ বরিশাল পোর্ট রোডস্থ মৎস অবতরণ কেন্দ্র।

আর প্রচুর পরিমাণে ইলিশ আসায় ব্যস্ত সময় পার করছে এখানকার মৎস শ্রমিকরা। সকাল থেকে দুপুর গড়িয়ে বিকেল ফিশিং বোট থেকে মাছ খালাসে ব্যস্ত তারা। এ যেন দম ফেলার ফুসরত নেই।

এদিকে সাগরের ইলিশের প্রচুর আমদানি থাকায় পাইকারি এবং খুচরা বাজারে পূর্ববর্তী সময়ের চেয়ে মাছের দামও এখন কম।

শুক্রবার (১০ আগস্ট) কীর্তনখোলা নদীর তীরে অবস্থিত পোর্ট রোডস্থ মৎস অবতরণ কেন্দ্র ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে। পুরো মোকাম জুড়ে পাইকারি থেকে খুচরা ব্যবসায়ী সবাই ব্যস্ত ইলিশ সংগ্রহে। আর প্রায় শতাধিক ফিশিংবোট ভোলা জেলার অন্তর্গত বঙ্গোপসাগর এলাকা থেকে এই ইলিশ মাছ নিয়ে এসেছে। এছাড়াও কলাপাড়ার মহিপুর মৎস বন্দর থেকে মোকামগুলোতে ট্রাকে ট্রাকে আসতে শুরু করেছে সাগরের ইলিশ।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Aug/10/1533903678227.jpg

এদিকে আবহাওয়া অনুকূলে না থাকায় দীর্ঘ অপেক্ষার পর সাগরে মাছ ধরতে শুরু করেছে জেলেরা। তাছাড়া বর্তমানেও আবহাওয়া ভালো নেই। যার ফলে আশানুরূপ মাছ পায়নি বলেও জানায় জেলেরা। আরও দুই একদিন সাগরে থাকতে পারলে বেশি মাছ পাওয়া যেত।

ভোলা জেলা থেকে আসা মো. ইউসুফ মাঝি জানান, ইলিশের মৌসুম শুরু হয়ে গেছে। সঙ্গে সঙ্গে মাছের আমদানিও ভালো। কিন্তু প্রচুর মাছ আসায় দাম অনেকটা কমে গেছে। গত কয়েকদিনে সাগর থেকে প্রায় ৬০-৭০ মণ ইলিশ সংগ্রহ করেছেন। কিন্তু বরিশালে এসে মাছের দাম শুনে হতাশ হয়েছেন। ইলিশের মূল্য আগের বছরের তুলনায় অর্ধেক কমে গেছে।

তিনি আরও জানান, গত কয়েকদিন ধরে ২৪ জন জেলে তার বোটে সাগরে মাছ ধরেছে। এতে অন্যান্য আনুষঙ্গিক মিলিয়ে যে খরচ হয়েছে তাতে মাছ বিক্রি করে তেমন লাভ হয়নি।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Aug/10/1533903698979.jpg

ইউসুফ জানান, আবহাওয়া খারাপের ফলে মাছ কম পাওয়া গেছে। তবে সাগরে প্রচুর মাছ রয়েছে। তাই আবহাওয়া ভালো থাকলে আরও কিছু সংখ্যক মাছ পাওয়া যেত। বর্তমানে তিনি প্রতি মণ ইলিশ ১৯ হাজার টাকা দামে বিক্রয় করছেন।

কলাপাড়ার মহিপুর বন্দর থেকে আসা বজলু নামে আরেকজন জানান, মাছের আমদানি ভালো। কিন্তু দাম অনেকটা কম। গত কয়েকদিনে সাগর থেকে তিনি ৫০ মণ ইলিশ ধরেছেন।

বরিশাল পোর্ট রোডস্থ মৎস অবতরণ কেন্দ্রে হাবিব নামে একজন শ্রমিক জানান, মাছের আমদানি শুরু হয়ে গেছে। এখানকার প্রায় শতাধিক লেবারের অলস সময় পার করার দিন শেষ হয়ে গেছে। আমদানি যত বাড়বে তত কর্মব্যস্ততা বেড়ে যাবে। শ্রমিকদের আয়ও বাড়বে।

পাইকারি ব্যবসায়ী আকবর হোসেন জানান, ইলিশ তো কাঁচামাল। এর দাম ওঠানামা করে। মাছ আসতে শুরু করেছে। বর্তমানে দামও একটু কম রয়েছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Aug/10/1533903732083.jpg

সাগরের ইলিশের আমদানির বিষয়ে বরিশাল মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রের ইজারাদার ও মৎস্য আড়তদার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক নীরব হোসেন টুটুল জানান, সাগরের বেশিরভাগ ইলিশের ওজন ৫০০-৬০০ গ্রামের হয়ে থাকে। গত বছর এ সময়ে ৪ হাজার মণ ইলিশ এসেছে বরিশালের পোর্ট রোডস্থ মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রে। আর এখন পর্যন্ত এসেছে মাত্র দুই থেকে আড়াই হাজার মণ ইলিশ। তাও স্থানীয় নদীর নয়, সাগরের ইলিশ।

তিনি জানান, বর্তমানে সাগরের ইলিশ মণ প্রতি ১৯ থেকে ২৩ হাজার টাকা দামে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়াও স্থানীয় নদীর ইলিশ মাছ (এলসি) মণ প্রতি ৩৫ থেকে ৩৬ হাজার টাকা দামে বিক্রি হচ্ছে। তবে স্থানীয় নদীর মাছ এখনো তেমন একটা আশা শুরু করেনি।

টুটুল আরও জানান, আগে অভিযান ছাড়াই মাছের অনেক উৎপাদন হত। কিন্তু বর্তমানে এত অভিযান পরিচালনা করার পরেও সেই মাছ পাওয়া যাচ্ছে না। দিন দিন ইলিশের সংখ্যা কমে যাচ্ছে।

জেলা মৎস কর্মকর্তা (ইলিশ) বিমল চন্দ্র দাস জানান, মোকামে প্রচুর ইলিশ আসছে। জেলেরা জানিয়েছে, সাগরে প্রচুর ইলিশ রয়েছে। তাই দাম একটু কম।

জাতীয় এর আরও খবর

//election count down