খুলনায় জাতীয় শোক দিবসে উজ্জীবিত জনতা

ডিস্ট্রিক করেসপন্ডেন্ট

  • Font increase
  • Font Decrease

খুলনা: যথাযোগ্য মর্যাদা এবং ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে খুলনায় স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত হচ্ছে।

বুধবার (১৫ আগস্ট) সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে সকল সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বেসরকারি ভবনসমূহে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখার মধ্য দিয়ে দিবসের কার্যক্রম শুরু হয়।

দিবসটি পালন উপলক্ষে সকাল ৮টায় একটি শোক র‌্যালি নগরীর গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে বাংলাদেশ বেতার খুলনা প্রাঙ্গণে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে স্থাপিত বঙ্গবন্ধু স্মৃতি ভাস্কর্যে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে বঙ্গবন্ধু ও ১৫ আগস্টে শাহাদাত বরণকারী তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার উজ্জীবিত জনতা।

খুলনা সিটি করপোরেশনের নবনির্বাচিত মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেকের নেতৃত্বে প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান, খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য মিজানুর রহমান মিজান, খুলনা বিভাগীয় কমিশনার, পুলিশ কমিশনার, অতিরিক্ত ডিআইজি, জেলা প্রশাসক, মুক্তিযোদ্ধাসহ সকল বিভাগীয় ও জেলা অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-শিক্ষকরা র‌্যালিতে অংশগ্রহণ করেন। শোক দিবস উপলক্ষে জেলা প্রশাসন খুলনার উদ্যোগে সকালে অফিসার্স ক্লাব মিলনায়তনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। বিভাগীয় কমিশনার মিয়া লোকমান হোসেন আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত রয়েছেন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেবেন খুলনার পুলিশ কমিশনার মো. হুমায়ুন কবির, অতিরিক্ত ডিআইজি একরামুল হাবিব, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশিদ, সংবিধান প্রণয়ন কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট এনায়েত আলী, পুলিশ সুপার এসএম শফিউল্লাহ এবং মহানগর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার অধ্যাপক আলমগীর কবীর।

পরে একই স্থানে শিশু একাডেমির চিত্রাঙ্কন, কবিতা আবৃত্তি ও রচনা প্রতিযোগিতার বিজয়ীদের মাঝে পুরষ্কার এবং যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের ঋণ বিতরণ করা হবে। এছাড়া সকাল সাড়ে ১০টায় খুলনার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহে আলোচনা
সভা, কবিতা পাঠ, রচনা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, হামদ ও নাত এবং মিলাদ মাহফিল ও মোনাজাতের আয়োজন রয়েছে।

প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর খুলনা বিভাগীয় জাদুঘর অটিস্টিক শিশুদের জন্য আজ দিনব্যাপী প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন এবং মাসব্যাপী শোকাবহ আগস্ট শীর্ষক আলোকচিত্র প্রদর্শন করছে।

উমেশচন্দ্র পাবলিক লাইব্রেরিতে সকাল নয়টা হতে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধুর কর্মজীবনভিত্তিক পুস্তক প্রদর্শন করা হচ্ছে।

বাদ জোহর কালেক্টরেট জামে মসজিদ, পুলিশ লাইন মসজিদ ও টাউন জামে মসজিদে মিলাদ মাহফিল ও মোনাজাত এবং সুবিধা মতো সময়ে অন্যান্য মসজিদ, মন্দির, গির্জা ও অন্যান্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে বিশেষ মোনাজাত ও প্রার্থনা করা
হবে।

খুলনা জেলা তথ্য অফিসের উদ্যোগে শহীদ হাদিস পার্কে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় এবং রাত ৮টায় বঙ্গবন্ধুর ওপর নির্মিত ‘ চিরঞ্জীব বঙ্গবন্ধু’ প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন করা হবে। ইসলামিক ফাউন্ডেশনে আলোচনা সভা, হামদ ও নাত, মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। জেলা শিল্পকলা একাডেমি স্বরচিত কবিতা পাঠ ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় আয়োজন করবে। এছাড়া জাতীয় শোক দিবসে খুলনার স্থানীয় সংবাদপত্রসমূহে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় বিশেষ সংখ্যা বা ক্রোড়পত্র প্রকাশ এবং বাংলাদেশ বেতার খুলনা বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচার করছে।

বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, রাজনৈতিক-সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন দিবসটি উপলক্ষে পৃথক পৃথক কর্মসূচি পালন করছে।

এছাড়া খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে যথাযথ মর্যাদায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচি পালিত হচ্ছে।

আপনার মতামত লিখুন :