খুলনায় ঈদ আনন্দের নতুন সংযোজন রাসেল ইকোপার্ক

ডিস্ট্রিক করেসপন্ডেন্ট,বার্তা২৪.কম
খুলনার শেখ রাসেল ইকোপার্ক। ছবি: বার্তা২৪

খুলনার শেখ রাসেল ইকোপার্ক। ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

খুলনা: ঈদে দর্শনার্থীদের আনন্দে মুখরিত খুলনার বিনোদন কেন্দ্রগুলো। দুপুরের রোদ্রৌজ্জল তাপদহ থেকে গভীর রাত অবধি ঈদের তৃতীয় দিন বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে জনস্রোত দেখা যায়। এবারের ঈদে খুলনার বিনোদন ও ভ্রমণ পিপাসুদের জন্য নতুন সংযোজন শেখ রাসেল ইকোপার্ক।

শহরের কোলাহল থেকে নিরিবিলি পরিবেশে রূপসা নদীর তীরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠপুত্র শহীদ শেখ রাসেলের নামে সরকারি উদ্যোগে তৈরি ইকোপার্কটি নজর কাড়ছে সবার। পার্কে বেড়াতে আসা শিশুদের আনন্দময় সময়ের পাশাপাশি বড়রাও উপভোগ করছেন হাসি আর আড্ডায়।

শেখ রাসেলের ইকোপার্কের সঙ্গে ভীড় হয়েছে নগরীর খালিশপুরের ওয়ান্ডারল্যান্ড শিশুপার্ক, গিলাতলা বনবিলাস চিড়িয়াখানা ও শিশুপার্ক, লবণচরার ভুতের আড্ডা, মুজগুন্নীর এসওএস শিশুপার্ক, শহরের ৪নং, ৫নং ও ৭নং ঘাটের বিনোদন কেন্দ্র,  রূপসা ব্রীজের দু’পাড়, জাতিসংঘ পার্ক।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Aug/24/1535094947946.gif

এছাড়া শহীদ হাদিস পার্ক ও ফরেস্ট ঘাটে দর্শনার্থীদের চাপে তিলধারণের ঠাই নেই। ডুমুরিয়া উপজেলার চাকুন্দিয়া গ্রামে গ্রামবাংলার ঐতিহ্য হা-ডু-ডু খেলা এবং চুকনগরে দড়ি টানাটানি করে গ্রামবাসী।

উপজেলার বিভিন্ন স্থানে প্রীতি ফুটবল, ক্রিকেট ও কেরাম প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। বন্ধু-বান্ধব ও পরিবার-পরিজন নিয়ে কেউবা মেতে উঠছেন রূপসী রূপসায় ও ভৈরব নদে নৌকা ভ্রমণে।

শহর-গ্রাম সবমিলে ঈদ আনন্দে একাকার খুলনা। রূপসা ব্রীজে দাড়িয়ে কলেজছাত্র ফয়সাল আহমেদ বলেন, বান্ধবীদের নিয়ে একটু ঘুরতে বেরিয়েছি। শহরের কোলাহল থেকে স্বস্তির নিঃশ্বাস নিতে রূপসা ব্রীজের বিকল্প নেই।

দর্শনার্থী ইমরান হোসেন সবুজ বলেন, বন্ধু-বান্ধব নিয়ে রূপসা ব্রীজের নদীর সৌন্দর্য উপভোগ করতে হাজারো মানুষ এখানে আসেন। জাতিসংঘ শিশুপার্কে আসা শাহরিয়ার আহমেদ বলেন, ‘ভার্সুয়াল জগতের একঘেঁয়েমি জীবন থেকে বের হয়ে বন্ধুরা সবাই এখানে ঘুরতে এসেছি। দারুন লাগছে। তবে প্রচুর ভীড়ে ঘেঁমে গেছি। এটাই আনন্দ।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Aug/24/1535094978837.gif

পিতা ইয়াছিনুল হকের সঙ্গে পার্কে আসা শিশু ইসরাত জাহান ইরা বলল, ‘পার্কে ঘুরতে এসে অনেক মজা হচ্ছে।  মাটির খেলনা কিনেছি, দোলনায় চড়েছি। ভালো লাগছে।

খালিশপুরের ওয়ান্ডার ল্যান্ড শিশুপার্কের ব্যবস্থাপক ও হিসাবরক্ষক মোঃ শাহাবুদ্দিন জানান, ঈদে পার্কটিকে নতুন ভাবে সাজানো হয়েছে। শিশুরাই বেশি আনন্দ করছে এ পার্কে। ঈদকে ঘিরে দর্শনার্থীদের জন্য বিভিন্ন সুবিধাও দিচ্ছে কর্তৃপক্ষ। এসব কারণে এবার ভীড়টা বেশি বলেও জানান তিনি।

খুলনা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ বেলাল হোসেন জানান, প্রায় দেড়শ’ বিঘাতে শেখ রাসেল ইকোপার্কটি তৈরি করা হচ্ছে। রূপসা ব্রীজ থেকে মাত্র দেড় কিলোমিটার দক্ষিণে ৪নং মাথাভাঙ্গা মৌজায় পার্কটি গড়ে উঠার পর এটি হবে এ এলাকার অন্যতম একটি চিত্ত বিনোদন স্থান।

আপনার মতামত লিখুন :